সোমবার, ২১ জুন ২০২১
logo
উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ
অ্যাটলেটিকোকে কাঁদিয়ে শিরোপা রিয়ালের
প্রকাশ : ২৯ মে, ২০১৬ ০৯:০৬:৪৯
প্রিন্টঅ-অ+
ক্রীড়া ওয়েব

চাঁদপুর: নির্ধারিত ৯০ মিনিট ১-১ ড্র। অতিরিক্ত ত্রিশ মিনিটেও হয়নি কোন ফয়সালা। হৃদয়কাঁপানো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল ম্যাচ গড়ালো টাইব্রেকারে। যেখানে শেষ হাসি হাসল রিয়াল মাদ্রিদ। টাইব্রেকারে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে ৫-৩ ব্যবধানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সর্বোচ্চ ১১তম শিরোপা জিতেছে জিদান শিবির। অন্যদিকে তৃতীয়বারের মতো ফাইনালে এসেও শিরোপায় চুমু আঁকা হলো না অ্যাটলেটিকোর। চোখের জলেই ভাসতে হলো গ্রিজম্যান, গাবি, হুয়ানফ্রাদের।
টাইব্রেকারে নেয়া পাঁচটি শটেই সফল রিয়াল মাদ্রিদ। তবে টানা তিন শট সফল ছিল অ্যাটলেটিকোর। চতুর্থ শটে মিস করে বসলেন পুরো ম্যাচে দুর্দান্ত খেলা হুয়ান ফ্রা। বল ফিরে আসল পোস্টে লেগে। ব্যবধান তখন ৪-৩। রিয়ালের হয়ে পঞ্চম শট নেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। গোওওওল।
এক ঝটকায় জার্সি খুলে রোনালদোর ‍উন্মত্ত উল্লাস। সঙ্গে যোগ দিলেন রিয়ালের বাকি সদস্যরাও। সান সিরোতে শুরু হলো জিদান শিবিরের বাধনহারা শিরোপা উৎসব। বিপরীত চিত্রটা ছিল বেশ করুণ। গ্যালারিতে অ্যাটলেটিকোর একটি অল্প বয়সী ভক্ত কেদেই চলেছে। চোখে জল অনেকেরই। কেউ বা মুখটা ঢেকে শূন্য দৃষ্টিতে তাকিয়ে রয়েছে ভাবলেশহীন। কী বেদনার্ত চিত্র? দুই মৌসুম আগে এই রিয়ালের কাছে হেরে শিরোপা বঞ্চিত হয়েছিল অ্যাটলেটিকো। এবারও তাই। হলো না প্রথমবারের মতো ইউরোপ সেরার স্বাদ নেয়া।
মিলানের সানসিরো স্টেডিয়ামে শুরু থেকেই বেশ আক্রমণাত্মক ছিল রিয়াল মাদ্রিদ। প্রথম দশ মিনিট বেশ সাজানোগোছানো ছিল তাদের। সেই ফল তারা পেয়ে যায় ম্যাচের ১৫ মিনিটেই। বা প্রান্ত থেকে টনি ক্রুসের ফ্রি কিকে বক্সের বাইরে থেকে গেলের ফ্লিক। বক্সের মধ্যে থাকা সার্জিও রামোসের প্লেসিং। গোল। বল জড়ায় অ্যাটলেটিকোর জালে। ১-০তে লিড নেয়ায় তখন বেশ উজ্জীবিত লস ব্লাংকস শিবির।
তবে পিছিয়ে পড়ার পর খেলায় ফিরতে বেশ মরিয়া ছিল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদও। ঘর সামলানোর পাশাপাশি সংঘবদ্ধ আক্রমণেও যায় তারা। তবে প্রথমার্ধে গোলের দেখা পায়নি সিমিনিও শিবির। তবে এই অর্ধে গোলের কয়েকটি সুযোগ পেয়েছিল রিয়াল।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই গোলের সুযোগ পায় অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। ফার্নান্দো তোরেসকে বক্সের মধ্যে ফাউল করায় পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। ম্যাচে সমতা ফেরানোর অপূর্ব সুযোগ তখন অ্যাটলেটিকোর সামনে। কিন্তু হায়, দলের সবচেয়ে সফল ফুটবলার অ্যান্টোনি গ্রিজম্যান যে শট নিলেন, তা খুঁজে পেল না রিয়ালের জাল।বল চলে যায় পোস্টের বাইরে দিয়ে। অ্যাটলেটিকো ভক্তদের আহাজারি ছুয়ে যায় সানসিরো স্টেডিয়াম।
ডাগ আউটে বিষণ্ন ছিলেন অ্যাটলেটিকো কোচ সিমিওনে। পেনাল্টি মিসের শোকে মূহ্যমান তিনি। তারপরও অবিরাম চেচিয়ে উদ্বুব্ধ কর গেছেন শিষ্যদের। সময় নষ্ট করার প্রবণতা দেখা যায়নি তখন অ্যাটলেটিকোর। কিভাবে গোল শোধ করা যায়।
অবশেষে ৭৯ মিনিটে সফল অ্যাটলেটিকো। বুকের উপর থেকে যেন পাথর সরে যায় অ্যাটেলেটিকোর ভক্ত-অনুরাগীদের। ৭৯ মিনিটে বক্সের খানিকটা বাইরে থেকে গাবির স্কুপ ওভার। ডান প্রান্ত থেকে জুয়ান ফ্রায়ের ক্রস। তাতে পা লাগিয়ে ফেরেইরা ক্যারাসকোর গোলে। পরাস্ত রিয়াল গোলরক্ষক। উৎসবে যেন ফেটে পড়ে অ্যাটলেটিকো শিবির। স্কোর তখন ১-১। নির্ধারিত ৯০ মিনিটে আর কোন গোল হয়নি। ফলে ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে।
অতিরিক্ত ত্রিশ মিনিটের খেলায় হয়েছে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ। তবে হয়নি গোল। ১-১ সমতা থাকায় ম্যাচ তখন গড়ায় টাইব্রেকারে। ভাগ্যের লড়াইয়ে যেখানে শেষ হাসি হাসে রিয়াল মাদ্রিদ, ১-১ (৫-৩)।

খেলা এর আরো খবর