বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১
logo
কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি
প্রকাশ : ১৩ জুন, ২০১৫ ১৯:৫৭:৩৯
প্রিন্টঅ-অ+
জেলা ওয়েব

কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি দেখা দিয়েছে। নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে শতাধিক চর ও দ্বীপচর। এসব এলাকার অন্ততঃ ২০ হাজার মানুষ পানি বন্দী হয়ে পড়েছে। কাঁচা সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় এসব এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে পাঁচ হেক্টর জমির মৌসুমী সবজি ক্ষেত ও আমন বীজ তলা।
জেলার কুড়িগ্রাম সদরের তিনটি, উলিপুর উপজেলার চারটি, চিলমারী উপজেলার পাঁচটি, রাজিবপুর উপজেলার তিনটি ও রৌমারী উপজেলার চারটিসহ ১৯টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে।
সদরের যাত্রাপুর ইউনিয়নের চর পারবতীপুর গ্রামের মোকছেদ আলী জানান, বাড়ির চারিদিকে পানি উঠায় রাস্তা-ঘাট তলিয়ে গেছে। এ অবস্থায় বাইরে বের হতে পারছি না। পানি আরো বাড়তে থাকলে বিপদে পড়বো।
সদরের ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের কৃষক শ্যামল দাস জানান, আমার এক একর জমির পটল ক্ষেত তলিয়ে গেছে। এ অবস্থায় ক্ষেত থেকে আর কোনো পটল তুলতে পারবো না। এতে আমার অনেক ক্ষতি হয়ে গেল।
 
সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর জানান, গত দুই দিনে তার ইউনিয়নের ব্রহ্মপুত্রের অববাহিকায় প্রায় দেড় হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।
কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহফুজার রহমান জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে ১৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১৭ সেন্টিমিটার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপরদিকে নুন খাওয়া পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ১৫ সেন্টিমিটার এবং কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি ১১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে ধরলা নদীর পানি সেতু পয়েন্টে অপরিবর্তিত রয়েছে।

জেলা এর আরো খবর