রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১
logo
বিয়েটা সেরেই ফেললেন আশরাফুল!
প্রকাশ : ১৭ জুলাই, ২০১৫ ১০:২৫:৩৮
প্রিন্টঅ-অ+

নববধু অর্চির সঙ্গে আশরাফুল

ক্রিকেট ওয়েব

ঢাকা: দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঐতিহাসিক সিরিজ জয়ের আনন্দে যখন উদ্বেল পুরো দেশ, তখনই খবর এলো, এই প্রোটিয়াদেরই প্রথমবার হারানোর নায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল গাঁটছড়া বেধে ফেলেছেন। শুরু করে দিয়েছেন জীবনের দ্বিতীয় ইনিংস। আশরাফুলের জীবনে ‘ফুল’ হয়ে যিনি এলেন, তার নাম অনিকা তাসলিমা অর্চি।
মোহাম্মদ আশরাফুলের অসাধারণ ব্যাটিং নৈপুন্যেই ২০০৭ বিশ্বকাপে প্রোটিয়াদের প্রথমবারেরমত হারিয়েছিল বাংলাদেশ। সেই আশরাফুলই এখন ম্যাচ ফিক্সিংয়ের দায়ে ক্রিকেটে নিষিদ্ধ। তবে, যখন তিনি খেলতেন, তখনও বেশ আলোচনায় ছিল তার বিয়ের ব্যাপারটি। কিন্তু হচ্ছে, হচ্ছে করেও হচ্ছিল না, তার জীবনের দ্বিতীয় ইনিংস শুরুটা।
অবশেষে, বলা যায় সবার অজান্তেই বিয়ের পিঁড়িতে বসে গেলেন বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক। গত বুধবারই কিশোরগঞ্জের ভৈরবের মেয়ে অনিকা তসলিমা অর্চির সঙ্গে আকদ সম্পন্ন হয় আশরাফুলের। অর্চির গ্রামের বাড়ি ভৈরবে হলেও, সপরিবারে থাকেন ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডে। দুই ভাইবোনের মধ্যে অর্চি বড়। তাঁর বাবা একজন ব্যবসায়ী।
তবে আশরাফুলের আকদের আনুষ্ঠানিকতা বাংলাদেশে নয়, হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আশরাফুল নিজের বিয়ে সম্পর্কে সত্যতা স্বীকার করে একটি পোস্টও দেন। সেখানে লিখেন, ‘ভালোই লাগছে নতুন জীবন শুরু করতে পারছি বলে। দেশবাসীর কাছে আমি দোয়া চাইব, আমার নতুন জীবন যেন সুখী হয়।’
ফেসবুকেই আশরাফুল জানিয়েছেন, আপাতত আকদ হলেও বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারবেন আগামী ডিসেম্বরে। উল্লেখ্য, আশরাফুলের এই বিয়েতে পেছনে থেকে ভূমিকা রেখেছেন জাতীয় দলের আরেক সাবেক ক্রিকেটার শাহরিয়ার নাফিসের মা।
২০০১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় আশরাফুলের। ৬১ টেস্ট খেলে তাঁর সংগ্রহ ২৭৩৭ রান। এর মধ্যে রয়েছে ছয়টি সেঞ্চুরি ও আটটি হাফ সেঞ্চুরি। এছাড়া ১৭৭টি ওয়ানডে ম্যাচে তাঁর রান ৩৪৬৮। এর মধ্যে রয়েছে তিনটি সেঞ্চুরি ও ২০টি হাফ সেঞ্চুরি।
Ashraful2ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগে ২০১৩ সালের মে মাসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সাময়িক নিষিদ্ধ হন আশরাফুল। পরে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৪ সালের জুনে তাঁকে আট বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়। যদিও বিসিবি পরে জানায়, শাস্তি কমিয়ে এনে ৫ বছর করে। সে হিসেবে, অন্তত ২০১৮ সালের মে মাস পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞার শাস্তি ভোগ করতে হবে তাঁকে। এই সময়ের মধ্যে তিনি আইসিসি ও বিসিবির শিক্ষা ও পুনর্বাসন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করলে শেষ তিন বছরের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেবে বিসিবি।
 

ক্রিকেট এর আরো খবর