রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১
logo
চাঁদপুর ফরিদগঞ্জে খাদ্য গুদামের ৪০টন চাল অবৈধ ভাবে পাচরের চেষ্টা
প্রকাশ : ১৭ মার্চ, ২০১৬ ১৭:৪৩:৪৭
প্রিন্টঅ-অ+
শরীফ চৌধুরী

চাঁদপুর: চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা খাদ্য গুদামের ২ ট্রাকে প্রায় ৪০টন চাল পাচারকালে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে রক্ষা পেয়েছে। বুধবার বিকেলে ফরিদগঞ্জ  উপজেলা সদরের খাদ্য গুদামের সামনে চালগুলো ট্রাকে উত্তোলনের সময় ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জয়নাল আবেদীন হস্তক্ষেপ করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা  বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমি নিজে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়ার পূর্বেই ঢাকা মেট্রো-ট ১৮-১৫৬৭ ও ১৮২০২১  নম্বরের ট্রাক পাচারকারীরা খাদ্য গুদামের সামনে থেকে সরিয়ে নিয়ে যায়। এই বিষয়ে খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, তিনি যেন অনুমতি ছাড়া কোন মালামাল উঠা-নামা না করেন। তাকে প্রাথমিক ভাবে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। পাচারের কোন তথ্য পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
     এই বিষয়ে ফরিদগঞ্জ উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশীষ কুমার বলেন, আমরা ডিও’র মালামাল যাদের নামে আসে তাদের কাছে বুঝিয়ে দেই। তারা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে। এসব মালামাল পাচারকারীর কাছে বিক্রি করে কিনা, তা আমরা বলতে পারবোনা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফরিদগঞ্জ সদরের একজন ব্যবসায়ী জানান, ফরিদগঞ্জ খাদ্য গুদামের খাদ্য পরিদর্শক জাহাঙ্গীর মতলব থেকে বদলী হয়ে ফরিদগঞ্জ উপজেলায় আসার পর থেকে চোরাকারবারীদের আনাগুনা বেড়েছে। কারণ সে মতলব উপজেলার নারায়নপুর খাদ্য গুমাদের চাল চুরির ঘটনায় সাময়িক বরখাস্তের পর ফরিদগঞ্জ উপজেলায় এসে যোগ দেয়। ২ ট্রাকে মাল নেয়ার জন্য হাজীগঞ্জের চোরাকারবারী আতিক মিয়া সকাল থেকেই এসে উপস্থিত ছিলেন। প্রশাসনের হস্তক্ষেপের কথা টের পেয়ে চলে যায়। এসব চোরাকারবারীদের নেতৃত্ব দেন উপজেলার সৈয়দ আহম্মদ। তার দলের হয়ে সহযোগিতা করেন মাহবুব, সাত্তার ডিলারের ছেলে সজিব, মাসুদ মিয়া ও মঈন মেম্বার।
    চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ লুৎফর রহমান বলেন, এই ঘটনার সংবাদ পেয়ে আমরা তাৎক্ষনিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছি। এখন থেকে প্রশাসনের নির্দেশ ছাড়া কোন খাদ্য গুদাম থেকে উঠা-নামা করবে না।
 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর