বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১
logo
রাজধানীর ভেতরে আর পশুরহাট নয়
প্রকাশ : ২৫ জুলাই, ২০১৫ ২২:২২:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+
রাজধানী ওয়েব

ঢাকা: জনদুর্ভোগ কমাতে এবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কোরবানির পশুর অস্থায়ী হাটগুলো মূল শহরের বাইরে নেয়া হচ্ছে। এ লক্ষ্যে গত বছরের সাতটি হাটের পাঁচটিই বাতিল করা হয়েছে। পরিবর্তে নতুন করে চারটি হাট বসানো হচ্ছে।
গতবছর ৮ অক্টোবর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রশাসককে ‘কাণ্ডজ্ঞানহীন’ বলে আখ্যা দিয়ে বলেন, হাসপাতালের সামনে পশুর হাট বসানোর অনুমতি দিয়ে ‘ক্রিমিনাল অফেন্স’ (ফৌজদারি অপরাধ) করেছে। সেসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, হাসপাতালের সামনে পশুর হাট না বসানোর জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তিন মাস আগে থেকেই বারবার চিঠি দেয়া হয়েছে। পরের বছর থেকে কোনো হাসপাতালের সামনে পশুর হাট বসবে না বলেও প্রতিশ্রুতি দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।
এর কিছুদিন আগে পরিবেশ অধিদপ্তর ও নিউরো সায়েন্সেস ইনস্টিটিউট থেকেও ওই স্থানে হাট না বসানোর জন্য করপোরেশনকে চিঠি দেয়া হয়। কিন্তু কারো আবেদনই গ্রাহ্য করেনি ডিএনসিসি।
ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম জানান, যানজট ও জনদুর্ভোগের কথা মাথায় রেখে এ বছর থেকে মূল শহরের ভেতরে কোনো হাট রাখা হবে না। আগারগাঁও, উত্তরা আজমপুর সরকারি প্রাইমারি স্কুল মাঠ, বারিধারা জে ব্লকের খালি জায়গা, উত্তরা ১১ ও ১৩নং সেক্টরের সোনারগাঁও জনপদসংলগ্ন খালি জায়গা এবং বনানী রেলওয়ে স্টেশনসংলগ্ন খালি জায়গার অস্থায়ী পশুহাট বাতিল করা হয়েছে।
গত ২১ জুলাই উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এবার কোরবানির ৬টি অস্থায়ী পশুরহাটের ইজারা আহ্বান করা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে- খিলক্ষেত বনরূপা আবাসিক প্রকল্পের খালি জায়গার অস্থায়ী পশুহাট, মিরপুর সেকশন ৬ (৬নং ওয়ার্ড) এর ইস্টার্ন হাউজিংয়ের খালি জায়গা, উত্তরা ১১ ও ১৩নং সেক্টরের সোনারগাঁও জনপদসংলগ্ন খালি জায়গায় পশুর হাটের পরিবর্তে এবার উত্তরা ১৫ ও ১৬ নং সেক্টরের মধ্যবর্তী সেতু-সংলগ্ন খালি জমি, বনানী রেলওয়ে স্টেশনসংলগ্ন খালি জায়গার অস্থায়ী পশুহাট ও বারিধারা জে ব্লকের খালি জায়গার পশুর হাটের পরিবর্তে এবার কুড়িল ফ্লাইওভার সংলগ্ন পূর্বাচলমুখি ৩০০ ফুট প্রশস্ত সড়কের বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারের পর থেকে সড়কের দুই পাশের কাঁচা অংশের খালি জমি, আগারগাঁও বস্তির খালি জায়গার অস্থায়ী পশুরহাটের পরিবর্তে রায়েরবাজার কবরস্থান সংলগ্ন পশ্চিাঞ্চল পুলিশ লাইনের নির্ধারিত খালি জমিতে অস্থায়ী পশুর হাট।
এসব হাটের ইজারার প্রথম পর্যায়ে দরপত্র বিক্রি শুরু হবে ৯ আগস্ট এবং দরপত্র দাখিল ১০ আগস্ট। দ্বিতীয় পর্যায়ে দরপত্র বিক্রি শুরু ২৪ আগস্ট এবং দরপত্র দাখিল ২৫ আগস্ট। তৃতীয় পর্যায়ে দরপত্র বিক্রি শুরু ৭ সেপ্টেম্বর এবং দরপত্র দাখিলের শেষ সময় ৮ সেপ্টেম্বর। প্রত্যেকবার দরপত্র দাখিলের দিনই বাক্স খোলা হবে।
স্থানীয়দের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, ডিএনসিসি আগারগাঁও বস্তির খালি জায়গায় কোরবানির পশুর হাটের ইজারা দিয়ে থাকে। কিন্তু ইজারাদাররা হাটের আশে পাশে কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে হাট বসান। এই হাটের পাশেই বেশ কয়েকটি হাসপাতালসহ সরকারি বহু অফিস রয়েছে। ফলে রোগীদের বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স ও যানবাহন চলাচলে চরম বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। এসব কারণে এবার এখানে হাট না বসনোর সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন তারা।
উত্তরা আজমপুর সরকারি প্রাইমারি স্কুল মাঠ, বারিধারা জে ব্লকের খালি জায়গা, উত্তরা ১১ ও ১৩নং সেক্টরের সোনারগাঁও জনপদসংলগ্ন খালি জায়গা এবং বনানী রেলওয়ে স্টেশনসংলগ্ন খালি জায়গার অস্থায়ী পশুহাটের আশেপাশের এলাকায় একই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।
ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘রাজধানীবাসীর কথা চিন্তা করেই এবছর আমরা শহরের ভিতরে কোনো হাট বসাবো না।’
এ প্রসঙ্গে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম এনামুল হক বাংলামেইলকে বলেন, ‘এবার উত্তর সিটি করপোরেশনের অধীনে ৬টি কোরবানির পশুর হাট বসবে। বিষয়টি চূড়ান্ত করে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়েছি। গত বছরের অস্থায়ী ৭টি পশুরহাটের মধ্যে ৫টি হাট বাতিল করেছি। এগুলো শহরের মধ্যে এবং জনবহুল এলাকার মধ্যে হওয়ায় বাতিল করা হয়েছে। এর পরিবর্তে নতুন ৪টি অস্থায়ী হাট যোগ হচ্ছে। এই হাটগুলো শহরের শেষ সীমানায়।’
 

রাজধানী এর আরো খবর