শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯
logo
ফুটবলারদের কাছে মেয়ে পাঠায় ম্যানইউ!
প্রকাশ : ১৫ আগস্ট, ২০১৬ ১৯:৫১:০৩
প্রিন্টঅ-অ+
ক্রীড়া ওয়েব

লন্ডন: ২০১৩ তে মোনাকো থেকে ৫৮ মিলিয়ন পাউন্ডে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে এসেছিলেন ফরাসি মিডফিল্ডার অ্যান্থনি মার্শাল৷ নতুন ক্লাবে এসেই প্রথম মৌসুমে ১৭টি গোল করেছিলেন তিনি৷ রেড ডেভিলসদের জার্সিতে ক্রমেই ইংলিশ ফুটবলে পরিচিত নাম হয়ে ওঠেন৷
ম্যানচেস্টারে এসেই মার্শালের জীবন আমূল বদলে গিয়েছিল৷ এই পরিবর্তনের জোয়ারেই মার্শালের সঙ্গে তার এক্স গার্লফ্রেন্ড সামান্থা জ্যাকুয়েলিনেটের সম্পর্কটাও তলিয়ে যায়৷ এমনটাই দাবি মার্শালের প্রাক্তন বান্ধবী সামান্থার৷‘দ্য সান’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি রীতিমতো কেঁদে ফেললেন মার্শালের কথা বলতে গিয়ে৷ সম্পর্ক হারানোর জন্য ক্লাবই দায়ী বলে মত সামান্থার৷
মার্শালের যখন ১৭ বছর বয়স তখনই বছর ২১ বছর বয়সের সামান্থা তার জীবনে আসেন৷ এক বছরের মধ্যেই গর্ভবতী হয়ে যান সামান্থা৷ একটি কন্যাও রয়েছে তাদের৷ কিন্তু সামান্থাকে ছেড়ে দিয়েছেন মার্শাল৷ কখনও এমিলি ওয়েডমন তো কখনও মেলানি ডে ক্রুজের মতো মডেলদের সঙ্গেই থাকেন মার্শাল৷
মার্শাল কিন্তু এরকমটা ছিলেন না৷ বলছেন সামান্থাই৷ তার বক্তব্য, “ম্যানচেস্টারে এসেই ও বদলে গেল৷ এই মার্শালকে আমি আগে কোনো দিন দেখিনি৷ আসলে ইংল্যান্ডে ফুটবলাররা অনেকটা রাজার মতো৷ তাদের হাতে এত অর্থ থাকে যে, সারা পৃথিবীর আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে বিচরণ করে তারা৷ তাদের দুনিয়াটাই বদলে যায়৷ যেটা মার্শালের সঙ্গেও হয়েছে৷ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডই অল্প বয়সী মেয়েদের ছুঁড়ে দেয় ফুটবলারদের কাছে৷ মার্শাল এত লাইমলাইটে চলে এসেছিল যে, ওর মাথা ঘুরে গিয়েছিল৷ আমি জানতাম যে, ম্যানইউ অনেকটা পরিবারের মতোই৷ কিন্তু পুরো অন্য চিত্র দেখলাম৷এ ই ক্লাবটা আমার জীবন নষ্ট করে দিয়েছে৷” সূত্র: ওয়েবসাইট

খেলা এর আরো খবর