রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯
logo
চীনের নকল ডিম বাজারে সাবধান!
প্রকাশ : ১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ১১:৫৬:৫৬
প্রিন্টঅ-অ+
বিশেষ ওয়েব

নয়া দিল্লি: শুধু বৈদ্যুতিন সরঞ্জাম বা আতসবাজি নয়, খাবারের বাজারও ছেয়ে গিয়েছে চিনা দ্রব্যে৷ জানা যাচ্ছে, ভারতীয় বাজার ছেয়ে গিয়েছে নকল চিনা ডিমে৷ এই ধরনের কৃত্রিম ডিম কেবল চিনেই তৈরি হয়৷ সে দেশেও এই ডিমের ব্যাপারে সতর্ক হয়েছে মানুষ৷ কিন্তু অন্যান্য নানা দেশে অসতর্কতার সুযোগ নিয়ে এবং অসাধু ব্যবসায়ীদের হাত ধরে ঢুকে পড়েছে এই ডিম৷ ভারতের বাজারও এর ব্যতিক্রম নয়৷
কৃত্রিম এই ডিমের খোলস তৈরি করা হয় ক্যালসিয়াম কার্বনেট দিয়ে৷ ডিমের কুসুম ও সাদা অংশ তৈরি হয়েছে সোডিয়ামজাত রাসায়নিক, খাবার সোডা, জিলেটিন প্রভৃতি রাসায়নিক দিয়ে৷ বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্যে যে রাসায়নিক পদার্থ থাকে না, তা নয়৷ তবে কোন খাবারে কী পরিমাণে রাসায়নিক থাকবে তার নির্দিষ্ট মাপকাঠি আছে৷ সরকারের তরফে তা পরখ করে দেখার ব্যবস্থাও আছে৷
সেই ছাড়পত্র নিয়েই বাজারে খাবার বিক্রি হয়৷ কিন্তু কৃত্রিম এই ডিমের ক্ষেত্রে তার বালাই নেই৷ ফলে না জেনেই এই ডিম কিনে ফেলছেন সাধারণ মানুষ৷ আর তাতে মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে শরীরের৷
সাধারণত আসল ডিমের সঙ্গে এই কৃত্রিম ডিমের তফাত প্রায় নেই বললেই চলে৷ তবে কিছু সূক্ষ্ম ফারাক আছে৷ বড়সড় ক্ষতি হওয়ার আগে জেনে নিন, কোন উপায়ে চিনবেন নকল চিনা ডিম-
    নকল ডিমের খোলস সাধারণ ডিমের থেকে একটু বেশি উজ্জ্বল হয়৷ খালি চোখে ফারাকটা তেমন বোঝা যায় না৷ তবে খেয়াল করলে বোঝা যায় বাড়তি উজ্জ্বল নকল ডিমের খোলা৷
    সাধারণ ডিমে সাধারণত মাংস জাতীয় গন্ধ থাকে, যা এই কৃত্রিম ডিমে থাকে না৷
    নকল ডিম ঝাঁকালে ভিতরে তরলের নড়াচড়ার শব্দ পাওয়া যায়৷ সাধারণ ডিমের ক্ষেত্রে যা হয় না৷
    ডিম ভাঙার ক্ষেত্রে সাধারণ ডিমের ক্ষেত্রে যে আওয়াজ হয়, তা কৃত্রিম ডিম ভাঙার সময় হয় না৷
    কৃত্রিম ডিম ভেঙে রাখলে ডিমের কুসুম ও সাদা অংশ মিশে যায়৷ রাসায়নিক কারণেই একই জাতীয় পদার্থ মিলেমিশে যায়৷ সাধারণ ডিমের ক্ষেত্রে তা হয় না৷
    ভাজার জন্য কৃত্রিম ডিমের কুসুম কড়াইতে দেওয়া মাত্র তা ছড়িয়ে পড়ে৷ কিন্তু সাধারণ ডিমের ক্ষেত্রে তা ছড়িয়ে দিতে হয়৷
এই তফাতগুলো খেয়াল করে তবেই ডিম কেনা উচিত বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷ ইতিমধ্যেই নানা ক্ষেত্রে ভারতের বাজারের দখলদারি নিয়েছে চিন৷
তবে উরি হামলার পরে জৈশ নেতা মাসুদ আজহারকে জঙ্গি ঘোষণার ক্ষেত্রে চিনের বাধা দেওয়ায় ভারতের প্রতি চিনের বিরাগ প্রকাশ হয়ে পড়েছে৷ আর তারপরই চিনা বৈদ্যুতিন সরঞ্জাম বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশবাসী৷
সোশ্যাল মিডিয়ায় এ নিয়ে লাগাতার প্রচার চালানোয় দীপাবলির মুখে চিনা আলোর বিক্রি কমেছে প্রায় ২০ শতাংশ৷ সেই পথ ধরে চিনা ডিম বয়কটেরও ডাক শোনা যাচ্ছে বিভিন্ন মহলে৷

বিশেষ সংবাদ এর আরো খবর