বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০
logo
মুখ নিয়ন্ত্রণ করে গুনাহ থেকে বাঁচুন
প্রকাশ : ২২ এপ্রিল, ২০১৬ ১১:২৫:০১
প্রিন্টঅ-অ+
ধর্ম ওয়েব

জিভের নিয়ন্ত্রণহীন ব্যবহারের কারণে আমাদের সমাজ ও সংসারে অশান্তি দানা বেঁধে থাকে। অনেক ক্ষেত্রেই কারও সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আমরা জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণ করি না। মুখে যা আসে তাই নির্দ্বিধায় বলে ফেলি। সমাজে অনেক সময় মানুষে মানুষে সংঘাত-সংঘর্ষ হয় এ কারণে। সংসারে অশান্তির দাবানল জ্বলে ওঠে নিয়ন্ত্রণহীন রসনার কারণে। তাই জিহ্বার নিয়ন্ত্রণ জরুরি।
হজরত আবু হোরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, তোমরা জানো কি কোন বস্তু মানুষকে সর্বাপেক্ষা বেশি বেহেশতে প্রবেশ করাবে? তা হলো আল্লাহর ভয় ও সচ্চরিত্র। তোমরা জানো কি মানুষকে কোন বস্তু সর্বাপেক্ষা বেশি দোজখে প্রবেশ করাবে? তা হলো দুটি পথ। একটি মুখ এবং অন্যটি লজ্জাস্থান। (তিরমিজি, ইবনে মাজাহ)
হজরত ওকবা ইবনে আমের (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, একবার আমি রাসুলে আকরাম (সা.) এর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে জিজ্ঞাসা করলাম, মুক্তি পাওয়ার উপায় কী? তিনি বললেন, তুমি তোমার রসনাকে নিয়ন্ত্রণ কর, নিজের ঘরেই অবস্থান কর এবং নিজের পাপের জন্য ক্রন্দন কর। (আহমদ, তিরমিজি)
হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) রাসুল (সা.) এর কথা উল্লেখ করে বলেছেন, মানুষ যখন ভোরে ওঠে তখন তার অঙ্গ-প্রত্যঙ্গগুলো রসনাকে সবিনয়ে বলে, আমাদের ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় কর। কেননা আমরা সবাই তোমার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। সুতরাং তুমি যদি ঠিক থাক, আমরাও ঠিক থাকব। আর তুমি বক্রতা অবলম্বন করলে আমরাও বক্র হয়ে পড়ব। (তিরমিজি)
তা ছাড়া অনর্থক কথা বললেও গুনাহ হয়। হজরত আনাস (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, একবার কোনো একজন সাহাবির মৃত্যু হলে এক ব্যক্তি বলল যে, তোমার প্রতি বেহেশতের সুসংবাদ। তখন রাসুল (সা.) বললেন, তুমি জান না, হয়তো এমনও হতে পারে, সে অনর্থক বাজে কথাবার্তা বলেছে। অথবা হয়তো সে এমন ব্যাপারে কৃপণতা করেছে, যা না করলেও তার কিছু হ্রাস পেত না। (তিরমিজি)
হজরত সুফিয়ান ইবনে আবদুল্লাহ সাকাফি (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, আমি বললাম, ইয়া রাসুলাল্লাহ! আমার জন্য যে বস্তুগুলো ভয়ের কারণ বলে আপনি মনে করেন, তন্মধ্যে সর্বাধিক ভয়ের কারণ কোনটি? তখন তিনি তাঁর নিজের জিহ্বা ধরে বললেন, এ বস্তুটি। (তিরমিজি)

ধর্ম এর আরো খবর