বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯
logo
‘৭ নভেম্বর নিয়ে বিকৃত ইতিহাস আওয়ামী লীগের’
প্রকাশ : ০৭ নভেম্বর, ২০১৬ ১৩:৩৩:৪২
প্রিন্টঅ-অ+
রাজনীতি ওয়েব
ঢাকা: ৭ নভেম্বর নিয়ে আওয়ামী লীগ বিকৃত ইতিহাস রচনা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, “ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর নিয়ে আওয়ামী লীগ ইদানীংকালে বিকৃত ইতিহাস রচনা করছে। শুধু তাই নয় তারা তাদের বিভিন্ন প্রচার মাধ্যম এই দিনটির বিরুদ্ধে ব্যবহার করছে। ”

সোমবার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে সাংবাদিকদের সামনে এ কথা বলেন ফখরুল।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি-ঘর ও মন্দিরে হামলার নিন্দা জানিয়ে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।
 
ফখরুল বলেন, “কোথায়ও সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা হলেই সরকার বিএনপিকে দোষারোপ করে। এটা আওয়ামী লীগের পুরনো অভ্যাস।”
 
কক্সবাজারের রামুর হামলার ঘটনা স্মরণ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “আপনারা দেখেছেন অতীতেও দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর এমন হামলা হয়েছে। সরকার কোনো তদন্ত না করে তাদের নিজের দোষ এবং লোকদের আড়াল করতে বিএনপিসহ বিরোধী অন্য দলকে দায়ী করেছে।”
 
তিনি বলেন, “দেশবাসী জানে, প্রমাণ হয়েছে এসব হামলার সঙ্গে সরকার দলের লোকেরা জড়িত। এসব করে সরকার সুপরিকল্পিতভাবে দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করছে।”

বিএনপির বিপ্লব ও সংহতি দিবস

এই দিনে এক অস্থিতিশীল পরিস্থিতির মধ্যে সিপাহী-জনতার অভ্যুত্থান ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে নিয়ে আসে তৎকালীন সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমানকে।

দেশ স্বাধীন হওয়ার মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। এরপর রাষ্ট্র পরিচালনায় তৈরি হয় বিশৃঙ্খলা। ৩ নভেম্বর জেলখানায় হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতাকে। ওই দিনই অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খালেদ মোশাররফ। বন্দি করা হয় সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমানকে। চলে অভ্যুত্থান-পাল্টা অভ্যুত্থান।

পরে ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার এক পাল্টা অভ্যুত্থানে বন্দিদশা থেকে মুক্ত হন সেনাপ্রধান জিয়াউর রহমান। রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন তিনি।

রাজনীতি এর আরো খবর