মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯
logo
প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন ঘিরে বিএনপির প্রত্যাশা
প্রকাশ : ০২ অক্টোবর, ২০১৬ ১৫:৩৮:৩৬
প্রিন্টঅ-অ+
রাজনীতি ওয়েব

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবাদ সম্মেলনে দলনিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে ঘোষণা দেবেন বলে প্রত্যাশার কথা জানিয়েছে বিএনপি।
রোববার বিকালে অনুষ্ঠিতব্য এই সংবাদ সম্মেলনের কয়েক ঘণ্টা আগে দলটির মুখপাত্রের দায়িত্বে থাকা শামসুজ্জামান দুদু এই প্রত্যাশার কথা শোনান।
তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনের আগে আমরা বলতে চাই, তিনি নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য তার দলকে আহ্বান জানিয়েছেন, দেশবাসীকেও আহ্বান জানিয়েছেন। সেই নির্বাচনটা দলনিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হবে এবং তিনি তার উদ্যোগ নেবেন- এই ঘোষণা তিনি দেবেন- এটা আমরা প্রত্যাশা করি।”
তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হওয়া পর থেকে ‘দেশে রাজনৈতিক সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে’ দাবি করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান দুদু।
“আমাদের দল মনে করে, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন এখন সময়ের দাবি।
“আমরা আশা করব- সঙ্কট উত্তরণে সরকার শুভবুদ্ধির পরিচয় দিয়ে কর্তৃত্ববাদী মনোভাব থেকে সরে এসে একটি জাতীয় সংলাপের সূচনার পরিবেশ উন্মুক্ত করবে।”
সাম্প্রতিক কানাডা সফর ও নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগদানের অভিজ্ঞতা নিয়ে রোববার বিকাল ৪টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে।
এর প্রায় চার ঘণ্টা আগে বিএনপির প্রত্যাশার কথা জানাতে নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সামনে আসেন শামসুজ্জামান দুদু।
তিনি বলেন, “যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, তারা একাধিকবার ক্ষমতায় থাকার প্রত্যাশা করতেই পারে। তারা (আওয়ামী লীগ সরকার) অনেক উন্নয়ন করেছে বলে দাবি করে। দেশের অনেক সমৃদ্ধিতে পথ দেখিয়েছে বলে তারা দাবি করে। প্রধানমন্ত্রী দেশে-বিদেশে অনেক সমর্থন পেয়েছেন বলে দাবি করেন।
“এসব কথা সত্য হলে একটি গ্রহণযোগ্য ও সকলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে অসুবিধা কী?”
জনগণ চাইলে কোনো সরকার একাধিক মেয়াতে ক্ষমতায় থাকতে পারে মন্তব্য করে এই বিএনপি নেতা বলেন, “কিন্তু যে অবস্থায়, যে ভঙ্গিতে তারা (আওয়ামী লীগ) আছে, এটা যথাযথ নয় এবং জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা মনে করি, এই পথটা ঠিক নয়।”
সরকার কথিত বন্দুকযুদ্ধের নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের অব্যাহতভাবে হত্যা করছে বলে অভিযোগ তোলেন শামসুজ্জামান দুদু।
এ প্রসঙ্গে গত ৯ মাসে বন্দুকযুদ্ধে দেশে ১৭৮ জনের মৃত্যুর হয়েছে বলে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের প্রতিবেদনের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, “এভাবে বন্দুকযুদ্ধে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের হত্যা দেশে যেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক ধরনের নেশা ও রেওয়াজে পরিণত হয়েছে।”
১ অক্টোবর সাভার পৌর যুব দলের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ আলম নয়নকে ‘বন্দুকযুদ্ধে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।
“আমরা এহেন হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে এই হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্তের মাধ্যমে বিচারের দাবিও করছি।”
নয়নের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তার শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনাও জানান দুদু।
নেত্রকোনায় বিএনপির জেলা কার্যালয়ে ‘আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা’ ভাংচুর করেছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
“সরকারের সন্ত্রাসবাদী রাজত্বে এটি একটি ধারাবাহিক ও নিরবিচ্ছিন্ন ঘটনা। আমরা এর নিন্দা জানাই।”
অন্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য কাজী আসাদ, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুবুর রহমান শামীম, বিলকিস জাহান শিরিন, আবদুস সালাম আজাদ, মুনির হোসেন বেলাল আহমেদ, তকদির হোসেন জসিম, আকম মোজাম্মেল, আমিনুল ইসলাম ও ঢাকা জেলা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আশফাকুর রহমান সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
 

রাজনীতি এর আরো খবর