শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯
logo
গৃহপালিত ইসি মানবে না বিএনপি
প্রকাশ : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:০২:১২
প্রিন্টঅ-অ+
রাজনীতি ওয়েব

ঢাকা: বর্তমান ইসির মতো ‘আজ্ঞাবহ’ নতুন নির্বাচন কমিশন মেনে নেওয়া হবে না বলে সরকারকে আগাম হুঁশিয়ার করেছে বিএনপি।
কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ নেতৃত্বাধীন বর্তমান ইসির মেয়াদ ফুরিয়ে আসার প্রেক্ষাপটে আবারও সার্চ কমিটির মাধ‌্যমে নতুন ইসি গঠনে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের বক্তব‌্যের প্রেক্ষাপটে এই হুঁশিয়ারি এল।  
মঙ্গলবার ঢাকায় এক আলোচনা অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, “আমরা নির্বাচন চাই, অবশ্যই নির্বাচন চাই। অবশ্যই একটি সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে ও স্বাধীন নিরপেক্ষ একটি নির্বাচন কমিশনের অধীনে আমরা সেই নির্বাচন চাই।
“গৃহপালিত নির্বাচন কমিশন দিয়ে আপনি নির্বাচন পরিচালনা করবেন, আপনি আপনার মতো করে সব কিছু সাজিয়ে নেবেন, সেই নির্বাচনে আমরা বিশ্বাস করি না। সার্চ কমিটি করেন, আর যাই করেন, জনমতের বাইরে গিয়ে কোনো কমিটি এদেশের মানুষ মেনে নেবে না।”
আগামী ফেব্রুয়ারিতে কাজী রকিবের ইসির মেয়াদ শেষ হচ্ছে, যে কমিশনকে সরকারের ‘আজ্ঞাবহ’ বলে আসছে বিএনপি। তাদের অধীনে সংসদের কোনো উপ-নির্বাচনে যায়নি বিএনপি, তবে স্থানীয় নির্বাচনে গিয়েছিল।
গত ১৫ সেপ্টেম্বর আনিসুল হক বলেছিলেন, আগের মতোই সার্চ কমিটি গঠনের মাধ‌্যমে পাঁচ সদস্যের নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে।
সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ দিলেও ২০১২ সালে সর্বশেষ কমিশন হয় সার্চ কমিটির মাধ্যমে। তখন রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপেও বসেছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান।
অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, “২০১৯ সালের নির্বাচন কমিশন গঠনে এখন সার্চ কমিটি গঠনের মুলা ঝুলিয়েছে। সার্চ কমিটি কে গঠন করবে, রাষ্ট্রপতি? সেটা অনুমোদন দেবেন কে, প্রধানমন্ত্রী?
“তাহলে সেই সার্চ কমিটি নিরপেক্ষ হবে, একজন ব্যক্তিত্বশালী লোক নির্বাচন কমিশনের বসাইবেন, এটা আমরা বুঝি কী করে?”
সার্চ কমিটির সদস‌্যদের রাজনৈতিক দলগুলো থেকে মনোনীত করার প্রস্তাব দেন গয়েশ্বর।
“সকল রাজনৈতিক দল মিলে পাঁচজন নির্বাচন কমিশনের সদস্য নির্বাচন করুক। রাষ্ট্রপতি তাতে স্বাক্ষর করবেন। এটা একটা পথ হতে পারে।
“তা নাহলে এই সার্চ কমিটি দিয়ে, আরেকটা রকিবউদ্দীন মার্কা নির্বাচন কমিশন করলে সেই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারবে না,”বলেন গয়েশ্বর।
স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, “আবার সেই সার্চ কমিটির নাটক শুরু হয়েছে।সার্চ কমিটির নাটকের ফলাফল কয়েকবছরের নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণ বুঝে গেছে। আবার সেই কমিটি দেশের মানুষকে প্রতারণা করার জন্য।
“এই সার্চ কমিটি গঠনে আওয়ামী লীগ, পরিচালনায় আওয়ামী লীগ, অভিনয়ে হচ্ছে আওয়ামী লীগ। এই নাটকের কোনো দর্শক নাই। বাংলাদেশের মানুষ এই নাটক আর গ্রহণ করবে না। এটা জনগণ প্রত্যাখ‌্যান করবে।”
রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে খালেদা জিয়ার নবম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় বিএনপি নেতারা ইসি পুনর্গঠন নিয়ে আলোচনা করেন।
সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে গ্রেপ্তার খালেদা জিয়া ২০০৭ সালের ১১ সেপ্টেম্বর জামিনে মুক্তি পান। এরপর থেকে এই দিনটিকে কারামুক্তি দিবস হিসেবে বিএনপি পালন করে আসছে।
বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে খালেদা জিয়ার ভূমিকা তুলে ধরে বর্তমানে তার বিরুদ্ধে মামলার সমালোচনা করেন বিএনপি মহাসচিব ফখরুল।
“বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ২৯টা মিথ্যা মামলা দিয়েছেন। যতই মামলা দেন, যতই জেলে দেন, দেশের মানুষ কখনই আপনাদের দমননীতিকে মেনে নেবে না।”
তিনি আওয়ামী লীগের দেশ পরিচালনার সমালোচনা করে বলেন, “সরকার জঙ্গিবাদকে ব্যবহার করে বিরোধী দলকে ধ্বংস করার জন্য কাজ করছে। আওয়ামী লীগের লোকজনকে নিয়ে সকল জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নগুলোতে ১০ জনের সন্ত্রাস দমন কমিটি করা হয়েছে।
 
“এই কমিটিগুলো এখন তালিকা তৈরি করছে, বিএনপির নেতা-কর্মীদের বলছে, এত টাকা দাও, তাহলে তোমার নামে জঙ্গির মামলা দেওয়া হবে। আজকে এভাবে তালিকা করে নতুন করে তারা নির্যাতন-নিপীড়নের পথ বেছে নিয়েছে।”
“উদ্দেশ্য একটাই বিরোধী দল, বিএনপিকে নির্মূল করতে হবে। ১৯৭৫ সালের একদলীয় শাসন ব্যবস্থা তারা ভিন্ন মোড়কে প্রতিষ্ঠা করতে চায় ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করতে,” বলেন ফখরুল।
ঢাকা মহানগর বিএনপির সভাপতি মির্জা আব্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ‌্যে নজরুল ইসলাম খান, মোহাম্মদ শাহজাহান, আবদুল আউয়াল মিন্টু, শামসুজ্জামান দুদু, নিতাই রায় চৌধুরী, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, জয়নুল আবদীন ফারুক, খায়রুল কবির খোকন বক্তব্য রাখেন।
সহযোগী সংগঠনের নেতাদের মধ্যে স্বেচ্ছাসেবক দলের মীর সরফত আলী সপু, লিটন মাহমুদ, মহিলা দলের নুরে আরা সাফা, ফরিদা ইয়াসমীন, যুবদলের আবদুস সালাম আজাদ, এসএম জাহাঙ্গীর, রফিকুল আলম মজনু, মহানগর বিএনপির কাজী আবুল বাশার, মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু, ছাত্রদলের রাজীব আহসান বক্তব্য রাখেন।
 

রাজনীতি এর আরো খবর