বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১
logo
যুক্তরাষ্ট্রের নাক গলানো বরদাশত করা হবে না
প্রকাশ : ১৮ মে, ২০১৬ ১৩:১৭:৪২
প্রিন্টঅ-অ+
রাজনীতি ওয়েব

ঢাকা : আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র গণতন্ত্র আর সুশাসনের কথা বলে, আপনাদের গণতন্ত্র, আপনাদের সুশাসন; বঙ্গবন্ধুর দুই খুনী আপনারা এখনো হস্তান্তর করেননি। আর মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে আমাদের ওপর চাপ দিতে চান। বাংলাদেশকে নিয়ে নাক গলানোর চেষ্টা করবেন না। সেটি বরদাশত করা হবে না।’
মঙ্গলবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক আলোচন সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
বিএনপির সমালোচনা করে সেলিম বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখন আবার ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে গেছে। দেখছেন না, মোসাদের সঙ্গে বৈঠক করা হচ্ছে। এখন ইসরায়েলকে এনে মুসলিম জাহানের ইজ্জত নষ্ট করে বিএনপি ক্ষমতায় যেতে চায়।’
তিনি বলেন, ‘আমরা এখন নিজের টাকায় ৪ লাখ কোটি টাকার বাজেট দিতে যাচ্ছি। এটি কল্পনা করা যায়? কিন্তু এটি সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার কারণে। শেখের মেয়ে, ভাঙবে কিন্তু মচকাবে না। এক পদ্মাসেতু নিয়ে আপনারা ষড়যন্ত্র করেছিলেন। কিন্তু এখন নয়টি পদ্মাসেতু নিজের অর্থায়নে বানানোর সম্বল আমাদের আছে। শেখ হাসিনা অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন।’
আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘শেখ হাসিনা যাতে বাংলাদেশে আসতে না পারেন সে জন্য জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি কমিটি গঠন করেছিল। বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকার যাতে বাংলার ক্ষমতায় কোনোদিন বসতে না পারে সেজন্য তাকে বারবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘গতবার আমরা ২ লাখ ৯৫ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেছিলাম। এবার ৩ লাখ ৪৪ হাজার কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করা হবে। এভাবেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।’
তোফায়েল বলেন, ‘আওয়ামী লীগে অন্তর্দ্বন্দ্ব ছিল, এরপর আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে শেখ হাসিনাকে দলের সভাপতি বানিয়ে দেশে নিয়ে এসেছিলাম। আজ যখন দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, যুদ্ধাপরাধীর বিচার হচ্ছে, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার হয়েছে, বিশ্বব্যাপী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব প্রশংসিত হচ্ছে; এ কারণে আনন্দিত যে, দলের যে পতাকা আমরা তার হাতে তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তা স্বার্থক হয়েছে। তিনি তার মর্যাদা রেখেছেন।’
পদ্মাসেতুসহ সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরে তোফায়েল বলেন, ‘শেখ হাসিনা ছাড়া কেউই এসব প্রকল্প করতে পারতো না। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য যে, খালেদার নেতৃত্বে এসব বানচালের ষড়যন্ত্র চলছে। কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণেই এদেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটতে পারেনি, অথচ খালেদার নেতৃত্বে বাংলা ভাইরা প্রকাশ্যে গাছে বেঁধে মানুষ হত্যা করেছে।’
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আসার আগে যুক্তরাজ্যের ইয়র্কে যে সমাবেশ করেছিলেন, যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে এতবড় জনসভা কোনদিন হয়নি। শেখ হাসিনা যুক্তরাজ্যের প্রতিটি এলাকা ঘুরে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে শক্তিশালী করেছিলেন।’
আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন- আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, অর্থনীতিবিদ খালেকুজ্জামান, সাংবাদিক আবেদ খান।

রাজনীতি এর আরো খবর