মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০
logo
সদ্য সংবাদ :

প্রতিবেশী ও বন্ধুপ্রতীম দেশগুলোর সহযোগিতা নেবে সরকার
প্রকাশ : ০৬ জুলাই, ২০১৬ ১২:০৩:১৬
প্রিন্টঅ-অ+
জাতীয় ওয়েব

ঢাকা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, “জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় দেশের সর্বস্তরের জনগণকে সম্পৃক্ত করে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।” জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ‘প্রতিবেশী ও বন্ধুপ্রতীম’ দেশগুলোর সহযোগিতাও নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
 
মন্ত্রী জানান, রাজধানীর গুলশানের সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় নিহত জঙ্গিদের শনাক্ত করেছেন তাদের অভিভাবকেরা। তারা জঙ্গি বলেই তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে।
 
মঙ্গলবার বিকেলে সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
 
গুলশানের জিম্মি উদ্ধার অভিযানে নিহত সন্দেহভাজন হামলাকারীদের মধ্যে পাঁচজনের পরিচয় জানা গেছে। খায়রুল ইসলাম ওরফে পায়েলের বাড়ি বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার ব্রিকুষ্টিয়া গ্রামে। তিনি ডিহিগ্রাম ডিইউ সেন্ট্রাল ফাজিল মাদ্রাসা থেকে ২০১৫ সালে আলিম (এইচএসসি সমমান) পাস করে ফাজিল শ্রেণিতে ভর্তি হন। রোহান ইবনে ইমতিয়াজ ঢাকার ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, মীর সামেহ মোবাশ্বের স্কলাসটিকা থেকে ও লেভেল পাস করা, নিবরাস ইসলাম মালয়েশিয়ার মোনাশ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং শফিকুল ইসলাম ওরফে উজ্জ্বলের বাড়ি বগুড়ার ধুনট উপজেলার ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়নের কৈয়াগাড়ি গ্রামে।
 
লিখিত বক্তব্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, গুলশানের ওই রেস্তোরাঁয় সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে জিম্মি উদ্ধার অভিযান শুরু হয়ে ১৩ মিনেটের মধ্যে সন্ত্রাসীদের পরাভুত করা হয়। অভিযানে ১৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। মোট ২৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে ১৭ জন বিদেশি ও তিনজন বাংলাদেশি। বিদেশিদের মধ্যে ৯ জন ইতালি, ৭ জন জাপানি ও একজন ভারতীয় নাগরিক। অন্য ছয়টি লাশ সন্ত্রাসীদের বলে প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হয়। পরে এদের মধ্যে পাঁচজনের পরিচয় পাওয়া যায়। তাদের অভিভাবকগন তাদের শনাক্ত করেছেন। তারা জঙ্গি বলেই তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে।
 
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নিহত সন্ত্রাসীরা সবাই বাংলাদেশি। বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের সদস্য। বিভিন্ন সময়ে জঙ্গি হামলার মতোই এ ঘটনা ঘটেছে বলে আমরা মনে করি।
 
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অভিযানে ঘটনাস্থল থেকে চারটি পিস্তল, তিনটি এ কে টুয়েন্টি টু রাইফেল ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। জিম্মি উদ্ধারে নিহতদের স্মরণে দুইদিনের রাষ্ট্রীয় শোক পালন করা হয়।
 
এরপর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বক্তব্য দেন। তবে সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্নের উত্তর দেননি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

জাতীয় এর আরো খবর