বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০
logo
পঞ্চম ধাপে প্রাণ গেল ছয়জনের
প্রকাশ : ২৮ মে, ২০১৬ ১৬:৫৪:০৩
প্রিন্টঅ-অ+
জাতীয় ওয়েব

চাঁদপুর: পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আজ শনিবার নির্বাচনী সহিংসতায় জামালপুর, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম ও কুমিল্লায় ছয়জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে জামালপুরে এক কিশোরসহ তিনজন, নোয়াখালীতে এক বৃদ্ধ, চট্টগ্রামে এক সদস্য প্রার্থী এবং কুমিল্লায় এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর মৃত্যু হয়।
জামালপুর: জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরাবাদ ইউনিয়নের কুঠারচর ইবতেদায়ি মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রে আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. শাকিরুজ্জামান রাখাল ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. শাহজাহান মিয়ার সমর্থকদের মধ্যে জাল ভোট দেওয়া নিয়ে সংঘর্ষ হয়। এ সময় তিনজন নিহত হন।
নিহত ব্যক্তিরা হলেন দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার শেখপাড়ার আফজাল শেখের ছেলে মাজেদ মিয়া (১৪), একই এলাকার নূর ইসলাম (৫৫) ও কুতুবের চর গ্রামের জিয়া (৩২)। জামালপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. নিজামউদ্দিন প্রথম আলোকে তিনজনের মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেন।
জামালপুরের এসপি বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চলছিল। এ সময় বিদ্রোহী প্রার্থী মো. শাহজাহান মিয়ার সমর্থকেরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ভোটকেন্দ্রে হামলা চালায়। এ ঘটনায় পাঁচ পুলিশ সদস্য, তিন আনসার সদস্যসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর আটজন আহত হন। তাঁদের মধ্যে দুজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ১০০টি ফাঁকা গুলি ছোড়া হয়। ওই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণও স্থগিত আছে।
নিহত কিশোর মাজেদের চাচা কালাম মিয়া বলেন, তাঁর ভাতিজা ভোট দেখার জন্য ওই কেন্দ্রে যায়। সংঘর্ষ বাঁধলে গুলিবিদ্ধ হয়ে সে মারা যায়। তারপর সেখান থেকে লাশ বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।
নোয়াখালী: জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার রাজগঞ্জ ইউনিয়নের রাজগঞ্জ সিনিয়র মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভোট দিতে গিয়ে দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থক ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার মধ্যে পড়ে এক বৃদ্ধ মারা গেছেন। ওই কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। আজ বেলা ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ওই বৃদ্ধের নাম সৈয়দ আহম্মেদ (৬৫)।
প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য, কেন্দ্রের বাইরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া হয়। এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও তাদের ধাওয়া দেয়। ওই কেন্দ্রে ভোট দিতে এসেছিলেন সৈয়দ আহম্মেদ। ধাওয়ার মধ্যে পড়ে গিয়ে তিনি মাথায় আঘাত পান। গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।
হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ফরিদউদ্দিন চৌধুরীর ভাষ্য, মাথায় আঘাতের কারণে সৈয়দ আহম্মেদ মারা যান।
কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাসিম আহমেদ বলেন, ভোট স্থগিত করা হয়েছে।
বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজেদুর রহমান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের কর্ণফুলী থানা এলাকার দুই নম্বর বড়উঠান ইউনিয়নের ছয় নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বারপ্রার্থী মো. ইয়াসিন (৩৫) ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নিহত হয়েছেন। পুলিশ বলছে, নির্বাচনী সংঘর্ষে তিনি নিহত হন। আজ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ফকিরনির হাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বেলা দেড়টার দিকে তাঁকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।
হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) জহিরুল ইসলাম বলেন, ইয়াসিনের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
কুমিল্লা: জেলার তিতাস উপজেলার বলরামপুর ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহী চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মো. কামাল উদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আজ বেলা তিনটার দিকে বলরামপুর ইউনিয়নের নাগেরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের বাইরে এ ঘটনা ঘটে। ওই ভোটকেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশের এসআই আবদুল আউয়াল সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
নিহত কামাল উদ্দিনের সমর্থকেরা দাবি করেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মো. নূর নবীর সমর্থকেরা এ হত্যাকাণ্ড ঘটান।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম বলেন, ‘একজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মৃত্যুর খবর পেয়েছি। বিস্তারিত জেনে পরে বলব।’

জাতীয় এর আরো খবর