শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০
logo
পদ্মা পাড়ে বৃহত্তম আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র
প্রকাশ : ২১ জুলাই, ২০১৪ ১১:০২:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+
জাতীয় ওয়েব

ঢাকা: ঢাকা-মাওয়া রোডে পদ্মা নদীর পাশে দেড়শ বিঘা জমির উপর নির্মাণ করা হবে দেশের সর্ববৃহৎ আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র। রোববার সচিবালয়ে এ সংক্রান্ত কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিবদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জনান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।
এ প্রকল্পে ২৩শ কোটি টাকার বেশি খরচ হবে বলে বাংলামেইলকে অনানুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছে অর্থমন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র।
অর্থমন্ত্রী জানান, প্রকল্পের সার্বিক বিষয়ে তদারকির জন্য গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিবকে প্রধান করে একটি আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে দেয়া হয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে কমিটি প্রকল্পের সুবিধা অসুবিধাসহ সব বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে অর্থমন্ত্রলায়কে জানাবে। সব ঠিকঠাক থাকলে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব (পিপিপি) ও সরকারি উদ্যোগে আগামী দুই বছরের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।
তিনি বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশে বিদেশিদের দৃষ্টি রয়েছে। দেশে আন্তর্জাতিকমানের সম্মেলন কেন্দ্র থাকলেও তা আয়তনে ছোট হওয়ায় অনেক সময় সব অনুষ্ঠান হয়ে ওঠে না। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি এরকম কিছু একটা করার।’
বৈঠক সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এ বৈঠকে আমরা মোট চারটি বিষয়ে আলোচনা করেছি। প্রথম বিষয় হচ্ছে এ আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের জমির আকার কত হতে পারে। আর তার জন্য প্রথমিক সিদ্ধান্ত হয়েছে ১০০ থেকে ১৫০ বিঘা। দ্বিতীয় বিষয়টি ছিল এর আয়তন নিয়ে, এতে একটি সম্মেলন কক্ষ থাকবে যাতে ৫ হাজার জন উপস্থিত থাকতে পারবেন, এর মধ্যে ২০০টি অফিস থাকবে এবং বেশ কয়েকটি কনফারেন্স রুম থাকবে। আগামী দুই বছরের মধ্যে এর কার্যক্রম শেষ হবে।’
প্রকল্প এলাকা ও ব্যয় সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এ বিষয়ে এখনি বলা যাচ্ছে না। এর কারণ হলো এলাকার নাম বললে ওই এলাকার জমির দাম বেড়ে যাবে। আর এর ব্যয় সম্পর্কে এখনো সঠিক অংক বলা যাচ্ছে না।’ তবে পরে মন্ত্রণালয়ে সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ২৩শ কোটি টাকার বেশি টাকা।
প্রকল্পটি ঢাকা-মাওয়া রোডে হবে এমন শোনা যাচ্ছে এবং এর জমি অধিগ্রহণে কোনো প্রকার সমস্যা সৃষ্টি হবে কি না। যেমন সমস্য হয়েছিল এ এলাকায় (আড়িয়ল বিল) বিমানবন্দর স্থাপনের সিদ্ধান্তে। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রী বলেন, ‘বিমানবন্দর হবে এ বিষয়ে কার্যক্রম চলছে। এছাড়া মাওয়া পদ্মাসেতু রেল রাস্তার কাজ চলছে তাও করা হবে।’
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন- স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ।
এছাড়া স্বরাষ্ট্র, ভূমি, তথ্য, অর্থ, বাণিজ্য, স্থানীয় সরকার ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিবরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
 

জাতীয় এর আরো খবর