সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯
logo
এবার সানির বিরুদ্ধে যৌতুক মামলা
প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০১৭ ১১:৩০:৩৪
প্রিন্টঅ-অ+
আইন ওয়েব
ঢাকা: তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনের মামলার পর এবার জাতীয় দলের ক্রিকেটার আরাফাত সানির বিরুদ্ধে যৌতুকের মামলা করেছেন স্ত্রী দাবিদার নাসরিন সুলতানা নামের সেই তরুণী।

সোমবার ঢাকার মহানগর হাকিম রায়হানুল ইসলাম ওই তরুণীর নালিশি মামলাটি করা হয়। মামলায় আসামি করা হয়েছে সানির মা নার্গিস বেগমকেও। আদলত মামলা আমলে নিয়ে সানি ও তার মা’র বিরুদ্ধে সমন জারির আদেশ দিয়েছেন

ওই নারীর আইনজীবী মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ক্রিকেটার সানির সঙ্গে বাদীর বিয়ে হয় ২০১৪ সালের ৪ ডিসেম্বর। বিয়ের পর তাঁরা বাসা ভাড়া নিয়ে একসঙ্গে বসবাস করেন। কিন্তু সানির পরিবার বিয়ে মেনে নিতে চাননি। পরে সানি বাদীর কাছে ২০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। বাদীকে বলেন, টাকা দিলে তাঁর মা বাদীকে ঘরে তুলে নেবেন। মামলার আরজিতে এই অভিযোগ এনেছেন ওই নারী।

বাদীর আইনজীবী রফিকুল বলেন, “সকালে আদালত বাদীর বক্তব্য রেকর্ড করেছেন। আরাফাত সানি ও তার মা নার্গিস বেগমের বিরুদ্ধে মামলা নেয়ার জন্য আদালতে আবেদন করেছিলাম। আদালত শুধু সানির বিরুদ্ধে মামলা আমলে নিয়েছেন।”

এর আগে রোববার তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনের মামলায় গ্রেফতার হন জাতীয় দলের স্পিনার আরাফাত সানি। পরে আদালত তার একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বর্তমানে তিনি মোহাম্মদপুর থানা হেফাজতে রয়েছেন।

আরাফাত সানিকে এক দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। পুলিশের কাছে আরাফাত দাবি করেছেন, ওই নারীকে তিনি বিয়ে করেননি। আপত্তিকর কোনো ছবিও ফেসবুক মেসেঞ্জার পাঠাননি।

পুলিশ বলছে, তদন্তের পর আসল ঘটনা জানা যাবে।

মামলার এজহারে নাসরিন সুলতানা অভিযোগ করেন, ৭ বছর আগে পরিচয় সূত্রে আমাদের ঘনিষ্ঠতা হয়। এক পর্যায়ে দু'জন ভালোবেসে ০৪/১২/২০১৪ তারিখে পরিবারকে না জানিয়ে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। কিন্তু বিয়ের তিন বছরেও সানি দুই পরিবারের সঙ্গে আলাপ করে আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে নেননি। বারবার এ বিষয়ে চাপ দিলেও তিনি কালক্ষেপণ করেন। গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে নাসরিন সুলতানাকে বিয়ে দেয়ার জন্য তার পরিবার পাত্র খোঁজা শুরু করে। ওই সময় তাদের বিয়ের বিষয়টি সবাইকে জানিয়ে তুলে নেয়া অথবা বিবাহ বিচ্ছেদের মাধ্যমে সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য আরাফাত সানিকে অনুরোধ জানান নাসরিন।

মামলার এজাহারে আরো বলা হয়েছে, গত বছরের ১২ জুন আরাফাত দুজনের একান্ত ব্যক্তিগত ছবি ও নারীর একক আপত্তিকর ছবি মেসেঞ্জারে পাঠান। ছবি পাঠিয়ে আরাফাত সানি ওই নারীকে হুমকি দেন। পরে আবার ২৫ নভেম্বর আরাফাত ওই নারীকে আপত্তিকর ছবি পাঠিয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্য অপেক্ষা করতে বলে হুমকি দেন।

আইন আদালত এর আরো খবর