মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯
logo
বুশরা হত্যায় ফাঁসির আসামিসহ খালাস ৪
প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর, ২০১৬ ১৩:৩৫:০৯
প্রিন্টঅ-অ+
আইন ওয়েব
ঢাকা: রাজধানীর রমনা থানা এলাকায় রুশদানিয়া বুশরা হত্যা মামলায় ফাঁসির আসামিসহ চারজনকে খালাস দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ এ রায় দেন।

বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন- বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি বজলুর রহমান।

আদালতে আসামিপক্ষে ছিলেন খন্দকার মাহবুব হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা ও আরেক ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল খন্দকার দিলিরুজ্জামান।

খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- এম এ কাদের (ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ছিলেন), তার স্ত্রী রুনু কাদের, শেখ কবির আহমেদ ও শেখ শওকত আহমেদ। তাদের মধ্যে কবির ও শওকত আহমেদকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিলেন নিম্ন আদালত। পরে হাইকোর্ট তাদের খালাস দেন। মঙ্গলবার আপিল বিভাগ সেই রায় বহাল রাখেন।

অন্যদিকে, রুনু কাদেরকে নিম্ন আদালতে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়। হাইকোর্ট তার দণ্ডাদেশ বহাল রাখেন। মঙ্গলবার আপিল বিভাগ তাকে খালাস দেন।

এম এ কাদেরকে নিম্ন ও উচ্চ-উভয় আদালতই মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিলেন। তবে আপিল বিভাগ মঙ্গলবার তাকে খালাস দেন।

রায়ের বিষয়ে আসামিপক্ষের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, সন্দেহবশত চারজনকে নিম্ন ও উচ্চ আদালত সাজা দিয়েছিলেন। অজ্ঞাত ব্যক্তিরা বুশরাকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছিল। কিন্তু শত্রুতাবশত ওই চারজনকে এ মামলায় জড়ানো হয়। আদালত বিষয়টি আমলে নিয়ে তাদের খালাস দেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, রমনা থানাধীন পশ্চিম হাজীপাড়া এলাকায় ২০০০ সালের ২ জুলাই নিজ বাসায় খুন হন কলেজছাত্রী রুশদানিয়া বুশরা। এ ঘটনায় তার মা লায়লা ইসলাম বাদী হয়ে ওই দিনই রমনা থানায় মামলা করেন।

২০০৩ সালের ৩০ জুন এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল এম এ কাদের, শেখ শওকত আহমেদ ও শেখ কবির আহমেদকে মৃত্যুদণ্ড দেন। আর রুনু কাদেরকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। মামলার অপর আসামি সুফিয়া বেগম ও কাজী কানিজ ফাতেমা ওরফে হেনাকে খালাস দেয়া হয়।

এর পর ২০০৭ সালের ওই মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের শুনানি শেষে প্রধান আসামি এম এ কাদেরের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন হাইকোর্ট। শেখ শওকত আহমেদ ও কবির আহমেদকে খালাস দেওয়া হয়। একই সঙ্গে এম এ কাদের স্ত্রী রুনু কাদেরকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন হাইকোর্ট।

পরে আসামিপক্ষ ও রাষ্ট্রপক্ষ উভয়ই হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন। এরপর দীর্ঘ শুনানি শেষে মঙ্গলবার আপিল বিভাগ চারজনকে খালাস দেন।
 

আইন আদালত এর আরো খবর