মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯
logo
ক্রিকেটার শাহাদাত দম্পতির বিরুদ্ধে রায় ৬ নভেম্বর
প্রকাশ : ৩১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৩:৫০:৩৭
প্রিন্টঅ-অ+
আইন ওয়েব
ঢাকা: গৃহকর্মী নির্যাতনের মামলায় ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন ও তার স্ত্রী জেসমিন জাহান নিত্যের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণার জন্য আগামী ৬ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার মামলাটির যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে ঢাকার ৫ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক তানজিলা ইসমাইল এ দিন ধার্য করেন।

এর আগে গত ২৭ অক্টোবর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিরপুর মডেল থানার সাবেক পরিদর্শক শফিকুর রহমানের সাক্ষ্যগ্রহণের মাধ্যমে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ কার্যক্রম শেষ হয়।

গত ২৪ আগস্ট গৃহকর্মী মাহফুজা আক্তার হ্যাপি ও তার মামা সোহাগ আদালতে সাক্ষ্য দেন। সাক্ষ্যে তারা শাহাদাত দম্পতির নির্যাতনের কথা অস্বীকার করেছেন।

এদিকে সোমবার শাহাদাত ও তার স্ত্রী জেসমিন জাহান নিত্য আদালতে হাজির ছিলেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আলী আজগর স্বপন বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।

গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও মিরপুর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুর রহমান তাদের বিরুদ্ধে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের (সিএমএম) আদালতে এ অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

২০১৫ সালের ৫ অক্টোবর ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে শাহাদাত আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়।

অন্যদিকে, স্ত্রী নিত্যকে গত বছরের ৪ অক্টোবর ভোরে দিবাগত গভীর রাত সাড়ে ৩টায় মালিবাগের পাবনা গলিতে তার বাবার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে মিরপুর মডেল থানা পুলিশ।

গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২২ ধারা অনুযায়ী ঘটনার বর্ণনা দিয়ে একটি জবানবন্দি দিয়েছে ভিকটিম হ্যাপি।

গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মিরপুর মডেল থানায় ক্রিকেটার শাহাদাত তার বাসার গৃহকর্মী মাহফুজা আক্তার হ্যাপিকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না মর্মে একটি জিডি করেন। এর পর একই দিন রাত ৮টার দিকে মিরপুরের পল্লবী এলাকা থেকে হ্যাপিকে উদ্ধার করে পুলিশ।

এর পর তাকে মিরপুর থানায় নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে হ্যাপি অভিযোগ করে, শাহাদাতের বাসায় তার ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হতো।

পরে পুলিশ হ্যাপিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করে। একই সঙ্গে খন্দকার মোজাম্মেল হক নামের ওই এলাকায় বসবাসকারী এক সাংবাদিক শিশু নির্যাতনের দায়ে শাহাদাতের নামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

আইন আদালত এর আরো খবর