শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০
logo
আইনজীবীদের মানহানির অভিযোগ
সাবেক এমপি রনিসহ ৩ জনকে তলব
প্রকাশ : ০৮ অক্টোবর, ২০১৬ ১২:৫৭:৩১
প্রিন্টঅ-অ+
বিনোদন ওয়েব

ঢাকা: আইনজীবীদের প্রতি মানহানিকর উক্তির অভিযোগে সাবেক এমপি গোলাম মাওলা রনিসহ ৩ জনকে আদালতে তলব করেছেন ঢাকা সিএমএম আদালত।
বুধবার ঢাকা মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস শুনানি শেষে আসামিদের প্রতি আগামী ৩১ অক্টোবর আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেন।
বুধবার বেলা সাড়ে ১২টায় ঢাকা সিএমএম আদালতে আইনজীবীদের পক্ষে সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. সাইদুর রহমান মানিক এ মামলা দায়ের করেন।
মামলার অপর ২ আসামি হলেন- দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম এবং প্রকাশক ময়নাল হোসেন চৌধুরী।
বাদীপক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান, ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আব্দুল্লাহ আবু, অতিরিক্ত পিপি শাহ আলম তালুকদার, সমিতির সাধারণ সম্পাদক আয়ুবুর রহমান প্রমুখ। শুনানিকালে প্রায় পাঁচ শতাধিক আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
মামলার অভিযোগে বলা হয়, সাবেক এমপি রণি লিখিত “সুন্দরী সুজনা, দুই বৃদ্ধ এবং এক উকিল!” শিরোনামে একটি সম্পাদকীয় গত ৩০ অক্টোবর দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার ৪ নম্বর পৃষ্ঠায় প্রকাশ করা হয়।
যেখানে বলা হয় ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি ওষুধ কোম্পানির গবেষণা বিভাগ নিজেদের গবেষণাগারে ইঁদুরের পরিবর্তে উকিলদেরকে ব্যবহার করার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়ে পত্র-পত্রিকা এবং অন্যান্য সংবাদ মাধ্যমে প্রেস রিলিজ দিল। সাংবাদিকরা ওষুধ কোম্পানির গবেষণাগারে ভিড় জমাল এবং হঠাৎ এমনতরো সিদ্ধান্ত গ্রহণের কারণ জানতে চাইল। উত্তরে ওষুধ কোম্পানি তাদের গবেষণাগারে ইঁদুরের পরিবর্তে উকিল ব্যবহারের জন্য তিনটি কারণ পেশ করল।’
‘প্রথমত. উকিলের সংখ্যা ইঁদুরের সংখ্যার চেয়েও ভয়াবহ রকমভাবে বেড়ে গেছে। দ্বিতীয়ত. মানুষ যদি ইঁদুরের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে চায়, বিশ্বাস স্থাপন করতে চায় এবং ইঁদুরের কাছে কিছু আমানত রাখতে চায় তবে তা যতটা না কঠিন এবং ঝুঁকিপূর্ণ তার চেয়েও কঠিন ও ঝুঁকিপূর্ণ বিষয় হলো একই কর্ম উকিলদের সঙ্গে করা। তৃতীয়ত. ইদানীং উকিলরা সচরাচর এমন সব কর্ম করে বেড়ায় যা সাধারণত ইঁদুরেরা করে না।’
সম্পাদকীয় উক্ত বক্তব্যসমূহ দণ্ডবিধির ৫০০ ধারায় মানহানি এবং মানহনির উদ্দেশ্যে উক্ত বক্তব্য পত্রিকায় মুদ্রনের অভিযোগে ৫০১ ধারায় এবং উক্ত লেখার মাধ্যমে আইনজীবী শ্রেণিকে উত্তেজিত করার অভিযোগে ৫০৫ ধারায় অপরাধ বলে উল্লেখ করেছে বলে মামলায় বলা হয়।
উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২০ জুলাই রাজধানীর তোপখানা রোডের মেহেরবা প্লাজায় রনির অফিসে ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের সাংবাদিক ইমতিয়াজ সনি ও ক্যামেরাম্যান মহসিন মুকুলকে মারধরে অভিযোগে একটি মামলা হয়।
ওই মামলায় গত ২৮ জুলাই আদালত সাবেক এ এমপির বিরুদ্ধে চার্জগঠন করেছেন আদালত। মামলাটি বর্তমানে সাক্ষ্য গ্রহণের পর্যায়ে রয়েছে।

আইন আদালত এর আরো খবর