সোমবার, ০১ জুন ২০২০
logo
হিলারি-ট্রাম্প নির্বাচনী বিতর্ক শুরু
প্রকাশ : ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১১:৪১:০২
প্রিন্টঅ-অ+
আন্তর্জাতিক ওয়েব

নিউইয়ার্ক: কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তা, কর আরোপ নিয়ে আলোচনা দিয়ে শুরু হয়েছে ডেমোক্রেটিক দলীয় প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে নির্বাচনী বিতর্ক। পাশাপাশি গুরুত্ব পাচ্ছে নিরাপত্তা ইস্যু।
 
স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে নিউইয়র্কের হফস্ট্রা বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয় প্রথম নির্বাচনী বিতর্ক। বিতর্ক সঞ্চালনা করেন লেস্টার হল্ট।
 
ট্রাম্পের মতে, এ মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে আইনশৃঙ্খলা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। অন্যদিকে, হিলারি ক্লিনটন অপরাধ-সংক্রান্ত আইন সংস্কারের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেছেন।
 
বিতর্কের শুরুতেই কর্মসংস্থান নিয়ে বর্তমান অবস্থার সমালোচনা করেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো গুটিয়ে যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের লোকজন চাকরি পাচ্ছে না। দৃঢ় চীনা অর্থনীতি ধাক্কা দিচ্ছে মার্কিন অর্থনীতিতে। আর এ কারণেই প্রয়োজন কর কমিয়ে দেয়া।
 
কর হ্রাসের পক্ষে শুরু থেকেই যুক্তি তুলে ধরেন ট্রাম্প। তার মতে, কর হ্রাসের ফলে বড় প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবসা করতে পারবে। অন্যরা ব্যবসার জন্য এগিয়ে আসবে। বর্তমান করনীতিতে পুঁজিপতিরা উৎসাহী নয়।
 
অন্যদিকে, হিলারি ক্লিনটন কর হ্রাসের বিপক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “আমি ধনীদের কর কমিয়ে দেয়ার পক্ষে নই।”
 
হিলারি বলেন, ছোট ব্যবসায়ীরা এগিয়ে আসুক। ধনীদের যথেষ্টই অর্জন আছে। তিনি বলেন, “ট্রাম্প ভাগ্যবান। তিনি ধনীর ছেলে ছিলেন। বড় সম্পদ দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। আমার বাবা ছিলেন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান।”
 
জ্বালানি নিয়ে বর্তমান নীতির সমালোচনা করেন ট্রাম্প। অন্যদিকে, সৌরশক্তি সম্ভাবনা নিয়ে যুক্তি তুলে ধরেন হিলারি।
 
বিতর্কে বর্তমান আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি তুলে ধরেন ট্রাম্প। তিনি জানান, গত কয়েক মাসে যুক্তরাষ্ট্রে কয়েক হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন বিভিন্ন সংঘর্ষে। দ্রুত আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিত স্বাভাবিক করার দাবি জানান তিনি। আর এ ক্ষেত্রে পুলিশের সদস্য বাড়ানোর পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন তিনি।
 
অন্যদিকে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার কথা বলেন হিলারি। এ ক্ষেত্রে বিভিন্ন সংস্কার আনবেন বলে জানান তিনি। একই সঙ্গে বর্তমান অস্ত্র আইনে সংস্কার আনার কথা জানিয়েছেন।
 
নির্বাচনী প্রচারের সময় ট্রাম্প নারীদের প্রতি বৈষম্যমূলক বিভিন্ন মন্তব্য করেন বলে জানান হিলারি। তিনি এসব মন্তব্য উপস্থাপনও করেন।
 
মার্কিন গণমাধ্যম জানিয়েছে, বিতর্ক শুরু হওয়া পর্যন্ত জনমত জরিপে দেখা যায়, হিলারির পক্ষে ৪৬ শতাংশ ও ট্রাম্পের পক্ষে ৪৪ শতাংশ সমর্থন আছে। -সংবাদমাধ্যম

আন্তর্জাতিক এর আরো খবর