সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯
logo
ফিলিপিন্সে বোমা হামলায় নিহত ১৪
প্রকাশ : ০৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১২:৫২:১২
প্রিন্টঅ-অ+
আন্তর্জাতিক ওয়েব

চাঁদপুর: ফিলিপিন্সের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতার্তের নিজ শহর দাভাওতে এক বোমা হামলায় ১৪ জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।
শুক্রবার রাত ১০টা ৩০ মিনিটের দিকে শহরের মার্কো হোটেলের সামনে রাতের বাজারে এ বোমা হামলা চালানো হয়।
বিবিসি ও রয়টার্স বলছে, এ সময় প্রেসিডেন্ট দুতার্তে দাভাওতেই ছিলেন, তবে ঘটনাস্থলের কাছাকাছি ছিলেন না।
সাপ্তাহিক ছুটিগুলোতে তিনি সাধারণত দাভাওতেই থাকেন, প্রায়ই মার্কো পোলো হোটেলে আসেন, বিভিন্ন বৈঠক ও লোকজনের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ করেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়ও এই হোটেলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেছেন তিনি।   
বোমা হামলার জেরে শনিবার ফিলিপিন্সজুড়ে বিশেষ সতর্কতা জারি করেছেন তিনি, যাকে ফিলিপিন্সের আইনে বলা হয় ‘স্টেইট অব ললেসনেস’। এই সতর্কতা জারি থাকার অর্থ হল, বেআইনি সহিংসতা দমনে প্রেসিডেন্ট প্রয়োজন মনে করলে সেনাবাহিনী নামাতে পারবেন।
তবে এ অবস্থা জরুরি অবস্থা বা সামরিক আইন নয় বলে ফিলিপিন্স সরকারের ভাষ্য।
দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে এক সময়ের অপরাধপ্রবণ শহর দাভাওয়ের মেয়র ছিলেন দুতার্তে। এই শহরের অপরাধ দমনে পাওয়া সাফল্যের কারণেই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হন তিনি।
ফিলিপিন্সের ‘অসাধারণ সময়ে’ এ বোমা হামলা চালানো হয়েছে মন্তব্য করে প্রেসিডেন্ট জানান, অপরাধ, মাদক ও বিদ্রোহ দমনে পুলিশ ও সামরিক বাহিনী তাদের উদ্যোগ দ্বিগুণ করবে।
তিনি বলেন, “সহিংসতার কারণে দেশজুড়ে স্টেট অব ললেসনেস ঘোষণা করতে বাধ্য হচ্ছি আমি, তবে এটি সামরিক আইন নয়।
“জনগণ ও জাতির বিরুদ্ধে হুমকি হয়ে না ওঠা পর্যন্ত এটি সামরিক আইন নয়, এই দেশকে রক্ষা করা আমার দায়িত্ব।”
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী এই হামলার দায় স্বীকার করেনি। এ হামলার আরো ৬৭ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।
৭১ বছর বয়সী দুতার্তেকে হত্যার একটি ছক কষার গুজব সম্প্রতি ছড়িয়েছে। তবে এতে কান দেননি তিনি।
৩০ জুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেওয়ার পর থেকে মাদক অপরাধের বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান শুরু করেন তিনি, এতে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে এ পর্যন্ত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন।
 
এ অভিযানের জেরেই তাকে হত্যার ছক কষা হয়েছে বলে জোর গুজব শোনা যাচ্ছে।

আন্তর্জাতিক এর আরো খবর