বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০
logo
খাবার দেখলে মুখ ফিরিয়ে নেয় শিশুরা কেন?
প্রকাশ : ২২ মে, ২০১৬ ১৬:১৮:৩৬
প্রিন্টঅ-অ+
স্বাস্থ্য ওয়েব

বাচ্চা কিছুতেই খেতে চায় না! এই অভিযোগ অনেক বাবা-মায়েরই। এটা চিন্তার কারণও বটে। সঠিক খাওয়াদাওয়া না করলে শিশুর সুস্বাস্থ্য গড়ে ওঠে না। তাই জোর করে খাওয়ানোর চেষ্টা করেন বাবা-মা।  রোজ রোজ এমনটা চললে তো আর হবে না। আপনাকে বেছে নিতে হবে বিকল্প পন্থা। তার আগজেনে নিন বাচ্চারা খেতে চায় না কেন -
১. খাবারের স্বাদ, গন্ধ, দেখতে কেমন, এই সব বিষয়গুলির উপর বাচ্চাদের খাদ্যাভাস নির্ভর করে। কোনও প্রকার ত্রুটি থাকলে তা বাচ্চার খাওয়ার বাসনাকে কম করে দেয়। সেখান থেকেই খাবার নষ্ট করা এবং খাবার না খাওয়ার অভ্যাস গড়ে ওঠে।
২. সুস্বাদু ও মুখরোচক স্ন্যাক্সের প্লেট চেটেপুটে সাফ। কিন্তু খাবার খেতে বললেই চোখমুখ বেঁকিয়ে বিরক্তিভাগ। খাওয়ার আগে স্ন্যাক্সজাতীয় খাবার খেলে আর কিছু খেতে চায় না বাচ্চারা।
৩. বাচ্চাদের জোর করে বেশি কিছু করানো যায় না। বিশেষ করে খাওয়াদাওয়ার ব্যাপারে তা একেবারেই চলে না। খাবার চেটেপুটে শেষ করতে হবে, এমন ধারা জবরদস্তি করলে বাচ্চারা কিছুতেই খেতে চায় না।
৪. খাবার টেবিলে বসে টিভিতে মুখ, খেতে বসেও ভিডিও গেম হাতে। এমনটা হলে বাচ্চার মন পড়ে থাকে অন্যদিকে। খাওয়াদাওয়ার প্রতি তার কোনও আগ্রহই থাকে না।
৫. শারীরিক অসুস্থতার কারণেও বাচ্চারা খাবার খেতে চায় না। অনেকসময় ছোটোদের সমস্যা বোঝা যায় না। তাই জোর করার আগে দেখুন বাচ্চার কোনও সমস্যা রয়েছে কি না।
৬. বড়দের সঙ্গে ব্যস্ত জীবনে দৌড়তে হয় বাচ্চাদের। স্কুল থেকে ফিরেই গান, নাচ বা আঁকার স্কুল। প্রতিযোগিতার যুগে পিছিয়ে পড়লে চলবে না। তাই অনেক সময় বাচ্চারা সময়মতো খাওয়ার সুযোগ পায় না। দীর্ঘসময় না খেয়ে থাকলে খাবারের প্রতি অবসাদ তৈরি হয় বাচ্চাদের।
৭. অভ্যাসেই গড়ে ওঠে শিশুর সুস্বাস্থ্য। তাতেই যদি গলদ থাকে, তবে বাচ্চার নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। বাচ্চার খাওয়াদাওয়ার সঠিক সময় নির্ধারণ করে দেওয়া দরকার। যখন-তখন অনিয়মিত খাওয়ার অভ্যাস, বাচ্চার খাওয়ার ইচ্ছাকে নষ্ট করে দেয়।
৮. ছোটোদের একটা অভ্যাস থাকে, নিজের পছন্দের খাবার খেয়ে অন্যান্য খাবার দূরে ঠেলে দেয়। এখানেই তৈরি হয় সমস্যা। পছন্দসই খাবার হলে তা খেল, নয়তো খাবারে মুখও দিল না।