শুক্রবার, ০৭ আগস্ট ২০২০
logo
উপকূল রক্ষা না করলে দেশ থাকবে না
প্রকাশ : ২৯ এপ্রিল, ২০১৫ ২০:৫৬:১১
প্রিন্টঅ-অ+
পরিবেশ ওয়েব

চাঁদপুর: বৈশ্বিক উষ্ণতা ও জলবায়ু পরিবর্তনে প্রাকৃতিক দুর্যোগ দিন দিন বেড়ে চলেছে। উপকূলীয় অঞ্চলে বসবাসরত জনগোষ্ঠীর জীবন-জীবিকা অনেকটা প্রাকৃতিক সম্পদের উপর নির্ভরশীল। একই সঙ্গে ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস ও নদী ভাঙনের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ উপকূলবাসীর নিত্যদিনের সঙ্গী। স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে উপকূলকে রক্ষা করতে হবে। এ জন্য দরকার সবার সম্বন্বিত প্রচেষ্টা। তাহলেই সমস্যার সমাধান করা সম্ভব হবে।
মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাইঞ্জে কোস্টট্রাস্ট আয়োজিত ‘ঘূর্ণিঝড়-৯১ স্মরণ ও উপকুলীয় ভূমি সুরক্ষা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য ও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, ‘আমাদের দেশের রাজনীতিক, আমলা ও কামলারা নিজের দেশের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিতে দ্বিধাবোধ করেন না। কিন্তু পাশের দেশ ভারতের চিত্র ভিন্ন। তারা তাদের দেশের স্বার্থের পরিপন্থী কিছু হয় তা করে না।’
তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের দেশের উপকূল রক্ষায় বিদ্যমান ব্যবস্থাগুলোর মাঝে যে সব সমস্যা আছে সেগুলোকে চিহ্নিত করে সমাধানের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এজন্য সবার আগে নীতির নৈতিক পরিবর্তন হওয়া দরকার।’
বাংলাদেশ দূর্যোগ ব্যবস্থায় অনেক দূর এগিয়েছে দাবি করে এই সংসদ সদস্য বলেন, ‘দেশ দূর্যোগ প্রতিরোধে অনেক এগিয়েছে বলেই আমরা আগেই মানুষকে এখন সতর্ক করতে পারি। দূর্যোগ মোকাবেলার সক্ষমতাও বেড়েছে।’
জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, ‘এই সমাজে বেদে নামে একটি অবহেলিত সম্প্রদায় আছে। তাদের কথা ভাবতে হবে। এ জন্য দেশের সকল এনজিও এবং সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাই।’
আলোচনায় সভায় দূর্যোগ ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নইম গওহর ওয়ারা বলেন, ‘আমাদের জবাবদিহিমুলক স্থানীয় সরকার করতে হবে। আর এ সরকারকে শক্তিশালী করার মধ্য দিয়েই সমন্বিত প্রচেষ্টা গ্রহণ করে সমস্যার সমাধান করতে হবে। যারা সংসদীয় কমিটির সদস্য আছেন তাদের সঙ্গেও সামনে দূর্যোগ আসার আগেই অন্তবর্তীকালীন একটি আলোচনায় বসতে হবে।’
সাইক্লোন উপকূলীয় সাইক্লোন সেল্টারগুলোতে যেসব থাকার রুম করা হয় তা মোটেই থাকার উপযোগী নয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘এসব উপকূলীয় সেল্টার গুলোতে যেসব রুম আছে তা মাত্র দুই মিটার। যেখানে থাকা কষ্টকর। তাই তিনি এসব ডিজাইন পরিবর্তন করে নতুন ডিজাইন করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ করেন।’
নইম গওহর আরো বলেন, ‘আমরা যদি উপকূলকে রক্ষা করতে না পারি তবে কোনভাবেই আমাদের দেশকে রক্ষা করতে পারব না। কারণ এই উপকূল ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে এক সময় দেশ বিলীন হয়ে যাবে।’
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন কোস্ট স্ট্রাস্টের সহকারী পরিচালক মোস্তফা কামাল আকন্দ, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি চৌধুরী মো. মাসুম, ৯১-সাইক্লোনের শিকার জাহেদ ইকবাল খান ও জাহিদ হোসেন প্রমুখ।

পরিবেশ এর আরো খবর