সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০
logo
সদ্য সংবাদ :

জিএসপি সুবিধা পুনর্বহাল না হওয়া দুঃখজনক: প্রধানমন্ত্রী

সুন্দরী নার্সের সান্নিধ্যে সারবে ধূমপানের বদ অভ্যাস!

এমটিসি গ্লোবাল-আইসিটি এ্যাওয়ার্ড পেলেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান মোঃ সবুর খান

এ সংগঠনের ন্যায় সকল সংগঠনেরই মাদকবিরোধী কার্যক্রমে এগিয়ে আসা প্রয়োজন

হরিণা ফেরিঘাটে চাঁদাবাজি

ঈদুল আযহা শেষ হলেও চাঁদপুর লঞ্চঘাটে যাত্রীদের ভিড় কমেনি

চাঁদপুর মাছঘাট থেকে ইলিশের ডিম প্রক্রিয়াজাত করে বিদেশ পাঠানো হচ্ছে

কৃষি, মৎস্যখাতে উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি অন্যান্য বিষয়ে নজর দিতে হবে

'রিজার্ভ চুরির ১১৯ কোটি টাকা দু'এক দিনের মধ্যে আসছে'

গম্ভীরকে সবচেয় বেশি ঘৃণা করি: আফ্রিদি

অভিনেত্রী জিয়া খানের মৃত্যু রহস্যে নয়া মোড়
প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:১৯:৪৯
প্রিন্টঅ-অ+
বিনোদন ওয়েব

মুম্বাই:  অভিনেত্রী জিয়া খানের মৃত্যু রহস্যে নয়া মোড়। ভারতীয় তদন্তকারীদের থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন কথা বললেন ব্রিটেনের ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ। ব্রিটেনের ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞর দাবি, জিয়াকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হলেও, সেটা সাজানো ছিল। এছাড়াও তার গলায় ও মুখে যে ধরনের আঘাতের চিহ্ন ছিল, তার থেকে প্রমাণিত এটা কোনও সাধারণ আত্মহত্যার ঘটনা নয়।
প্রসঙ্গত, ব্রিটেনের ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ জ্যাসন পাইন জেমস-এর এই দাবি তিন বছরের পুরনো এই মামলাকে নয়া প্রশ্ন চিহ্নের মুখে দাঁড় করিয়ে দিল।
ব্রিটেনের এই ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞকে অভিনেত্রী জিয়ার মা রাবিয়া নিয়োগ করেছিলেন। আগামীকাল বিশেষজ্ঞ-এর এই রিপোর্ট সেখানকার সিটি সেশন কোর্টে জমা দেবেন জিয়ার মা। তবে আদালত কতটা এই তদন্ত রিপোর্টকে গুরুত্ব দেবে, সেটা কালই বোঝা যাবে।
প্রসঙ্গত, জিয়ার মা রাবিয়া বিশেষজ্ঞ নিয়োগের সিদ্ধান্ত তখনই নেন, যখন মাসখানেক আগে সিবিআই বম্বে হাইকোর্টে এই মামলা সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট জমা দেন। সেখানে বলা হয়, এই মৃত্যুর সঙ্গে খুনের কোনও সম্পর্ক নেই।
অভিনেত্রী জিয়া খান বলিউড অভিনেতা আদিত্য পাঞ্চোলির ছেলে সুরজ পাঞ্চোলির সঙ্গে প্রেম করতেন। ২০১৩ সালে ৩ জুন জিয়াকে তাঁর জুহুর অ্যাপার্টমেন্ট থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন জিয়ার মা। এরপর রাবিয়া একাধিকবার বিভিন্ন জায়গায় দাবি করেন, তার মেয়ে আত্মহত্যা করেননি। এই মর্মে বম্বে হাইকোর্টে একটি মামলাও দায়ের করেন রাবিয়া। তবে ভারতীয় তদন্তকারীদের তদন্তের ধারায় খুশি ছিলেন না রাবিয়া।
এরপরই তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগে ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করেন। সেই বিশেষজ্ঞ জিয়ার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট, ডাক্তারি পরীক্ষার রিপোর্ট, সিসিটিভি ফুটেজ, জিয়ার সেইমুহূর্তের ছবি ও ঘরের ছবি খতিয়ে দেখেন। সমস্ত কিছু খতিয়ে দেখে ব্রিটেনের এই ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ ভারতীয় তদন্তকারীদের থেকে সম্পূ্র্ণ ভিন্ন রিপোর্ট জমা দিলেন। এখন প্রশ্ন চিহ্নের মুখে গোটা মামলাটি।

বিনোদন এর আরো খবর