মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯
logo
বঙ্গবন্ধুকে নিবেদিত ছড়ায় মুখর গ্রিন ইউনিভার্সিটি
প্রকাশ : ১৮ মার্চ, ২০১৭ ১৬:৫২:০৪
প্রিন্টঅ-অ+
শিক্ষা ওয়েব
ঢাকা: ‘তুমি হলে জাতির জনক, ধরলে জাতির হাল/তুমি হলে মহানায়ক, সাক্ষী মহাকাল।’ বঙ্গবন্ধুকে নিবেদিত এমন অগণিত ছড়া ফুটছিল শিশুদের মুখে। ছিল তাদেরকে পুরস্কৃত করার আয়োজনও। পাশাপাশি মহানায়কের জীবন-কর্ম সম্পর্কে জানতে রাখা হয় নাতি-দীর্ঘ এক আলোচনা সভা। তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে সর্বেসর্বা হয়ে যে বিষয়টি উঠে এসেছিল, তা হলো- বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ঘিরে বিশালাকৃতি কেক কাটা।

শুক্রবার শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এসব কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. গোলাম সামদানী ফকিরের সভাপতিত্বে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফৈয়াজ খান, ট্রেজারার ও ছাত্র বিষয়ক পরিচালক মো. শহীদ উল্লাহ্, রেজিস্ট্রার লে. জে. মো. মইনুল ইসলাম (অব.), অধ্যাপক ড. গোলাম আহমেদ ফারুকী, অধ্যাপক ড. মো. ফাইজুর রহমান।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিমিন হোসেন রিমি বলেন, বঙ্গবন্ধু একটি উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন। জন্মদিনে তাকে শ্রদ্ধা জানানোর শ্রেষ্ঠ উপায় হল- দেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে তোলা। ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত স্বপ্নের সোনার বাংলা হিসেবে বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো।

উপাচার্য ড. মো. গোলাম সামদানী ফকির বলেন, বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই আন্দোলন-সংগ্রাম, যা থেকে স্বাধীন বাংলাদেশ। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন সাধারণ মানুষের নেতা। ছাত্রজীবন থেকে শুরু করে রাষ্ট্রনায়ক- সব পর্যায়েই মানুষের সেবা করে গেছেন তিনি।

উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফৈয়াজ খান বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্নদ্রষ্টা, আধুনিক জাতীয়তাবাদী নেতা।  যদিও ইতিহাসের নির্মম পরিহাস, আমরা তাকে হারিয়েছি। জন্মদিনে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান তিনি।

ট্রেজারার ও ছাত্র বিষয়ক পরিচালক মো. শহীদ উল্লাহ্ জন্মদিনে বঙ্গবন্ধুকে বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় স্মরণ করেন। তিনি বলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’ শেখ মুজিবুর রহমানের তেজোদীপ্ত এই ভাষণেই গোটা জাতি যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। সেখান থেকেই বাঙালী ও বাংলাদেশ স্বাধীন-সার্বভৌম।

শিক্ষাঙ্গন এর আরো খবর