শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯
logo
২ শিশুকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন, তোলপাড়
প্রকাশ : ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:২৫:৪৬
প্রিন্টঅ-অ+
জেলা ওয়েব

রংপুর: রংপুরের পীরগঞ্জে ইউনিয়ন মেম্বারের নির্দেশে দুই শিশুকে চুরির দায়ে গাছে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্যাতনের পর তাদের রাতভর আটকে রাখা হয়। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। শিশু নির্যাতনকারীদের শাস্তি দাবি করেছেন এলাকাবাসী।
 
রোববার উপজেলার বড়আলমপুর ইউনিয়নের বড়আলমপুর গ্রামের সন্ন্যাসীর বাজারে এ ঘটনা ঘটে।
 
নির্যাতিত শিশুরা হচ্ছে- বড়আলমপুর ইউনিয়নের ষোলঘরিয়া গ্রামের শাহানুর মিয়ার ছেলে শাফিকুল (১২) ও আবু সাঈদ মিয়ার ছেলে আদম মিয়া (১০)।
 
অভিযুক্ত ওই মেম্বারের নাম মাহফুজার রহমান।
 
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সন্ন্যাসীর বাজারের সুমন মিয়ার মুদি দোকানে গত শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে চুরি হয়। এ সময় শাফিকুল ইসলাম হাতেনাতে আটক হয় এবং আদম পালিয়ে যায়।
 
এরপর স্থানীয় ইউপি মেম্বার মাহফুজার রহমান গ্রাম পুলিশ সদস্য দিয়ে শফিকুল ইসলামকে ডেকে এনে চড়-থাপ্পড় দেয়ার পর সন্ন্যাসীর বাজারে একটি কাঁঠাল গাছের সঙ্গে দু’হাত বেঁধে নির্যাতন করেন। পরে গ্রাম পুলিশরা সন্ন্যাসীর বাজারে শাফিকুলকে বেঁধে রেখে রাতভর প্রহরা দেয়।
 
অপরদিকে খোঁজাখুঁজির পর রোববার সকাল ৯টার দিকে আদমকে ধরে এনে সন্ন্যাসীর বাজারে বেঁধে রাখা হয়।
 
এ ব্যাপারে মুদি দোকানার সুমন মিয়া বলেন, আমার দোকানে চুরির সময় শাফিকুলকে হাতেনাতে আটক করি। পরে ইউপি মেম্বার মাহফুজার রহমানকে বলার পর তিনি গ্রাম পুলিশ নিয়ে আসেন। চোরেরা প্রায় ৫ হাজার টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়।
 
গ্রাম পুলিশ সদস্য শাম মর্মু দাস বলেন, মেম্বারের নির্দেশে আমরা শিশু দুটিকে পাহারা দিচ্ছি।
 
এদিকে বিষয়টি নিয়ে ওই ইউপি মেম্বার মাহফুজার রহমান বলেন, আমি লাঠি হাতে নিয়ে শিশু দুটিকে মারার মতো করে ভয় দেখিয়েছি। পরে গণ্যমাণ্যদের উপস্থিতিতে দেড়শ টাকার ষ্ট্যাম্পে শিশু দুটির অভিভাবকদের কাছ থেকে স্বাক্ষর নিয়ে তাদেরক ছেড়ে দিয়েছি।
 
পীরগঞ্জ থানার ওসি রেজাউল করিম বলেন, আমার কাছে এ ধরনের অভিযোগ আসেনি।

জেলা এর আরো খবর