মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯
logo
রংপুরে পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ
প্রকাশ : ২০ আগস্ট, ২০১৬ ১১:৫২:৩৮
প্রিন্টঅ-অ+
জেলা ওয়েব

রংপুর: রংপুরে পুলিশের বেধড়ক পিটুনিতে নুরন্নবী হোসেন (৩৫) নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী পুলিশকে প্রায় দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখে।
শনিবার সকালে মাহিগঞ্জ বীরভদ্র বালাটারী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। তবে পুলিশ পিটিয়ে হত্যার বিষয়টি অস্বীকার করেছে।
নিহতের ভাই গোলজার হোসেন জানান, মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে কোতোয়ালি থানার এসআই তারিকুল ইসলামের নেতৃত্বে সাদা পোশাকে একদল পুলিশ বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় নুরন্নবীকে আটক করে বেধড়ক পিটুনি দিলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। পরে পুলিশ তার মরদেহ গাড়িতে করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।
গোলজার অভিযোগ করে বলেন, এ সময় পুলিশ তার কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়েছে এবং আরো ৪০ হাজার টাকা দাবি করেছে। ওই টাকা না দিলে তাকেও চুরির মামলায় ফাঁসানো হবে বলে হুমকি দিয়েছে পুলিশ।
নিহতের স্ত্রী আরজিনা বেগম জানান, তিনি দুবাইতে থাকেন। ৩ মাস আগে দেশে এসেছেন। আসন্ন ঈদ-উল আযহার পর স্বামীকে নিয়ে দুবাই যাওয়ার কথা ছিল। এর জন্য স্বামীর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করতে ব্যস্ত ছিলেন তারা।
তিনি বলেন, মঙ্গলবার তার স্বামীসহ প্রথমে দিনাজপুর এবং ওই দিনই বিকেলে ঢাকা চালে যান। পরে বৃহস্পতিবার বাড়িতে ফিরে আসেন। মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে শুক্রবার রাতে পুলিশ তার বাড়িতে গিয়ে নিরাপরাদ স্বামীকে পিটিয়ে হত্যা করেছে।
নিহত নুরন্নবীর বড় ভাই তোফাজ্জল হোসেন জানান, রাতে সবাই ঘুমিয়ে ছিলাম। এ সময় পুলিশ বাড়িতে এসে তার ছোটভাই গোলজারকে পিটিয়ে ৮০ হাজার টাকা নিয়ে নেয় এবং নুরন্নবীকে পেটালে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়। এ ঘটনায় তিনি দায়ী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে বিচারের দাবি জানান।
এদিকে, নুরন্নবীর মরদেহ মেডিকেলে নেয়ার সময় তার ভাবীকে গাড়িতে তুলে নেয় পুলিশ সদস্যরা। পরে শনিবার সকাল ৬ টায় তাকে বাড়িতে পৌঁছানোর জন্য পুলিশ বালাটারীতে গেলে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী পুলিশ সদস্যদের অবরুদ্ধ করে রাখে। খবর পেয়ে কোতোয়ালা থানার ওসিসহ অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে দুই ঘণ্টা পর সকাল ৮টার দিকে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এবিএম জাহিদুল ইসলাম বলেন, গত বৃহস্পতিবার কোতোয়ালি থানায় করা মোটরসাইকেল চুরির মামলায় শহরের বাহারকাছনা তৈলীটারী এলাকার রিপন ওরফে ওলেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মোটরসাইকেল চুরির সঙ্গে নুরন্নবীর সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার পর শুক্রবার রাতে অভিযানে যায় পুলিশ। এ সময় পুলিশের উপস্থিতিতে নুরন্নবী হার্ট অ্যাটাক করে মারা যান। তবে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।
নিহতের ভাই গোলজারের কাছ থেকে পুলিশের ৮০ হাজার টাকা নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান।
 

জেলা এর আরো খবর