শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
logo
মাহমুদউল্লাহর নৈপূণ্যে কোয়েটারের জয়
প্রকাশ : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১২:৩৫:৩৩
প্রিন্টঅ-অ+
ক্রিকেট ওয়েব
ঢাকা: বাংলাদেশি অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহর নৈপূণ্যে করাচি কিংসকে ৬ উইকেটে হারাল কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্স। প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৫৪ রান তোলে করাচি কিংস। জবাবে এক ওভার বাকি থাকতেই জয় নিশ্চিত করে কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্স। বল হাতে ২১ রানে তিন উইকেট ও ব্যাট হাতে অপরাজিত ৮ রান করে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

১৫৫ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে আসাদ শফিক ও আহমেদ শেহজাদের উদ্বোধনী জুটিতেই কোয়েটার জয় নিশ্চিত হয়ে যায়। মাত্র ১২ ওভারে ১০৫ রানের জুটি বাধেন তারা। ৪০ বলে চারটি চার ও তিনটি ছয়ে ৫৪ রান করেন আহমেদ শেহজাদ।

এ ছাড়া ৩৮ বলে ছয়টি চার ও এক ছয়ে ৫১ রান করেন শফিক। এর পরই অবশ্য পথ হারিয়ে বসে কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্স। এক উইকেটে ১০৫ থেতে ৩ উইকেটে ১১১ হয়ে যায় দলের স্কোর। ১০৫ রানে শেহজাদ আউট হওয়ার পর দলীয় ১১১ রানে পিটারসেন ও শফিক আউট হলে চাপে পড়ে যায় কোয়েটা। তবে রিলে রুশো ও অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদের ৩১ রানের জুটিতে জয়ের কক্ষপথেই থাকে কোয়েটা।

দলীয় ১৪২ রানে রুশো আউট হলেও মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে ভর করে ম্যাচ জিতে নেয় কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্স। এর আগের ম্যাচে বল হাতে বেশি বিধ্বংসী ছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। চার ওভারে ২১ রান দিয়ে নিয়েছেন তিন উইকেট।

দুবাই ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে টস জিতে করাচি কিংসকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানায় মাহমুদউল্লাহর দল। বাবর আজম আর কুমার সাঙ্গাকারা মিলে উদ্বোধনী জুটিতে তোলেন ৬৩ রান। জুটিটা ভাঙতে সফরফরাজ দারস্থ হন মাহমউল্লাহ রিয়াদের।

প্রথম ওভারেই বল হাতে সফলতা পেয়ে যান বাংলাদেশি অলরাউন্ডার। অষ্টম ওভারের পঞ্চম বলে সাঙ্গাকারাকে স্টাম্পড করেন তিনি। ১০ম ওভারে বাবর আজমের উইকেটটিও তুলে নেন মাহমুদউল্লাহ। হাসান খানের হাতে বাবর আজম আউট হওয়ার আগে ৩৬ রান করেন তিনি। নিজের স্পেলের শেষ ওভারে শোয়েব মালিককে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান রিয়াদ।

গেইলের ২৯ আর পোলার্ডের ৩১ রানে ভর করে শেষ পর্যন্ত ১৫৪ রানের সম্মানজনক স্কোর তোলে করাচি কিংস। এই জয়ে ফলে ৬ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল।