শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯
logo
স্টোকসের সেঞ্চুরিতে ইংল্যান্ডের ৩০৯
প্রকাশ : ০৭ অক্টোবর, ২০১৬ ১৯:০৩:১৪
প্রিন্টঅ-অ+
ক্রিকেট ওয়েব

ঢাকা: সাম্প্রতিক সময়ে ইংল্যান্ডের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংই বলছিল হাই স্কোরিং ম্যাচই অপেক্ষা করছে। ব্যতিক্রম হয়নি শুক্রবার সিরিজের প্রথম ম্যাচেও। টস জিতে বেন স্টোকসের সেঞ্চুরি ও বেন ডাকেটের হাফ সেঞ্চুরিতে বড় রানের ভিত গড়ে দলটি। শেষ দিকে অধিনায়ক জস বাটলারের জড়ো হাফ সেঞ্চুরিতে ৮ উইকেটে ৩০৯ রান করে ইংল্যান্ড। জয়ের জন্য বাংলাদেশের টার্গেট ৩১০ রান।
ইনিংসের শুরু থেকেই দাপুটে ব্যাটিং শুরু করেছিল ইংল্যান্ড। যার গোড়াপত্তন করেছিলেন জ্যাসন রয়। জেমস ভিন্সের সঙ্গে তার জুটি অষ্টম ওভারেই বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। শফিউলের বলে মাশরাফির হাতে ক্যাচ দেন ভিন্স (১৬)। দলীয় ৬১ রানে জ্যাসন রয় সাকিবের শিকার হন। তিনি ৪০ বলে ৪১ রান করেন। ২ রান পরই বেয়ারস্টো (০) সাব্বিরের ক্ষিপ্র গতির সরাসরি থ্রোয়ে রান আউট হন। ৬৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসা ইংল্যান্ডকে পথ দেখায় স্টোকস ও অভিষিক্ত ডাকেটের জুটি।
বাংলাদেশের ফিল্ডারদের বদন্যতায় দুজন মিলে তিনবার জীবন পেলেও ব্যাটিংয়ে আক্রমণের ধারা অব্যাহত রেখেছিলেন তারা। ৪৫ বলেই স্টোকস তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি। অভিষেকেই ২১তম ইংলিশ ব্যাটসম্যান হিসেবে হাফ সেঞ্চুরি করেন ডাকেট ৬৩ বলে। দুবার জীবন পান স্টোকস। ৬৯ রানে তাসকিনের বলে মিড অনে মাহমুদউল্লাহ ও ৭১ রানে আবারও মাশরাফির বলে ডিপ কভারে তার ক্যাচ ফেলেন মোশাররফ হোসেন রুবেল। তবে ইংল্যান্ডের তৃতীয় উইকেট জুটি বিচ্ছিন্ন হয় ৩৯তম ওভারে।
দলীয় ২১৬ রানে শফিউলের নিরীহ ফুলটসে বোল্ড হন ডাকেট। ৫৯ রানে রুবেলের হাতে জীবন পাওয়া ডাকেট ১ রান যোগ করেই ফিরে যান। ভেঙে যায় ১৫৩ রানের জুটি। ডাকেট ফিরলেও সেঞ্চুরি মিস করেননি স্টোকস। ৯৮ বলে পূর্ণ করেন ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি। মাশরাফি শিকার হওয়ার আগে ১০০ বলে ১০১ রানের (৮ চার, ৪ ছয়) ইনিংস খেলেন তিনি।
শেষ দিকে ইংল্যান্ডের স্কোরটা তিনশো পার হয় বাটলারের ঝড়ো হাফ সেঞ্চুরিতে। ৩৩ বলে ৭ম হাফ সেঞ্চুরি করেন তিনি। সাকিবের বলে সাব্বিরের হাতে ক্যাচ দেয়ার আগে ৩৮ বলে ৬৩ রানের (৩ চার, ৪ ছয়) ইনিংস খেলেন বাটলার। ইনিংসের শেষ বলে রান আউট হন ১৬ রান করা ক্রিস ওকস। বাংলাদেশের পক্ষে মাশরাফি, সাকিব ও শফিউল ২টি করে উইকেট নেন।
 

ক্রিকেট এর আরো খবর