বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
logo
স্পন্সর সাইফুরস, সাংবাদিকদের অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়ে গেলেন আইনমন্ত্রী
প্রকাশ : ০৬ মে, ২০১৬ ১৮:৫৬:২১
প্রিন্টঅ-অ+
দেশ ওয়েব

ঢাকা: ইংরেজি শিক্ষার বিতর্কিত কোচিং সেন্টার সাইফুর’সকে স্পন্সর করায় সাংবাদিকদের অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়ে গেলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক।


 


শুক্রবার সকালে ডিআরইউ এর সাগর রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত মেধাবী শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে।


 


ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) আয়োজনে সংগঠনের সদস্যদের সন্তানদের মধ্যে ৪০ জন শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা ও বৃত্তি দিতে এ অনুষ্ঠানে মন্ত্রী ও উপাচার্যকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। শিক্ষার্থীরা সবাই প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ।


 


আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচায আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে জানতে পারেন এটির স্পন্সর সাইফুর’স। এই কোচিং সেন্টারটিকে ‘অবৈধ’ আখ্যায়িত করে তারা সঙ্গে সঙ্গে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন।


 


মন্ত্রী আনিসুল হককে প্রধান অতিথি এবং ড. আরেফিন সিদ্দিককে বিশেষ অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল।কিন্তু তারা বেরিয়ে যাওয়ায় প্রধান ও বিশেষ অতিথি ছাড়াই অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।


 


এতোকিছুর পরও অনুষ্ঠানে যথারীতি বক্তব্য দেন সাইফুর’স এর কর্ণধার সাইফুর রহমান খান। তিনি বক্তৃতায় তার কোচিং সেন্টারের বিজ্ঞাপন করেন। ইংরেজিভীতি দূর করতে উপস্থিত সবাইকে বিভিন্ন কৌশল বাতলে দেন।


 


এরপর ডিআরইউ এর সাবেক সভাপতি শাহেদ চৌধুরী বলেন, ‘আমরা সাংবাদিকরা পজেটিভ যেমন বলি তেমন নেগেটিভও বলি। সাইফুর’স নানা করণে বর্তমান সময়ে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। যে কারণে আজকের এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটল। আমরা আশা করবো প্রতিষ্ঠানটি এ অবস্থা থেকে বের হয়ে আসবে।’


 


সাংবাদিক নেতা কুদ্দুস আফ্রাদ সংবর্ধনা পাওয়া শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানান। ডিআরইউর সভাপতি জামাল উদ্দিন বলেন, সদস্যদের স্বার্থে ডিআরইউ বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে, ভবিষ্যতে আরো অনেক কর্মসূচি হাতে নেয়া হবে।


 


অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ডিআরইউর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন, সাইফুর’স প্রাইভেট লিমিটেডের চেয়ারপারসন শামসা আরা খান প্রমুখ।


 


উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ অ্যাকাউন্ট থেকে ১০১ মিলিয়ন ডলার (প্রায় ৮০০ কোটি টাকা) চুরি করেছে হ্যাকাররা। এর একটি অংশ (২০ মিলয়ন ডলার) শ্রীলংকা থেকে উদ্ধার করা হয়। হ্যাকারদের সামান্য একটি বানান ভুলের কারণে এই টাকাটা ধরা পড়ে। বাকি ৮১ মিলিয়ন ডলার ফিলিপাইন হয়ে গেছে হংকংয়ে। সেটি এখনো উদ্ধার হয়নি।


 


আর এই ভুল বানানের বিষয়টিকে উপলক্ষ করে ইংরেজি শিক্ষার বিজ্ঞাপন দিয়েছিল সাইফুর’স। এই ঘটনার পর ক্ষুব্ধ শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন,‘এদেশের আইনে কী আছে আমি এর শেষ দেখে ছাড়বো। সাইফুরস নামে একটা বিখ্যাত কোচিং সেন্টার আছে। এই কোচিং সেন্টার একটা বিজ্ঞাপন দিয়েছে। সেই বিজ্ঞাপনে তারা বলেছে ভালো ইংরেজি না জানতে পারলে ভালো লেখাপড়া করতে পারবে না। এমনকি ভালো হ্যাকারও হতে পারবে না।’


 


সাংবাদিকদের অনুষ্ঠান ত্যাগের বিষয়ে আইনমন্ত্রী পরে একটি ইংরেজি দৈনিককে বলেন, আমি আইনমন্ত্রী হিসেবে এমন কোনো অনুষ্ঠানে যেতে পারি না যেখানে সরকার কোচিং সেন্টার নিষিদ্ধ করেছে।


 


তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমাকে আগে থেকে জানানো হয়নি। সুতরাং বিষয়টি আমার কাছে প্রতারণামূলক মনে হয়েছে।


 


তিনি যে সাংবাদিকদের অনুষ্ঠানে সব সময় যান এবং আজও ডিআরইউতে এমন অনুষ্ঠানে গিয়ে কথা বলার পরিকল্পনা তার ছিল বলে উল্লেখ করেন আইনমন্ত্রী।

দেশ এর আরো খবর