মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮
logo
ভালো মানুষ হয়ে ওঠার জন্যে বিতর্কের বিকল্প নেই : ডাঃ দীপু মনি এমপি
প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৫:২২:১৯
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, চাঁদপুর ওয়েব:  বাংলাদেশের প্রথম নারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি এমপি গতকাল সোমবার দুপুর ১২টায় চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে নবম পাঞ্জেরী চাঁদপুর কন্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতার উল্লাস ফাইনাল পর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন,  বিতর্ক করে আমরা জ্ঞানের পরিধি বাড়াতে পারি, পাঠ্য বিষয়ের বাইরে অনেক কিছু শিখতে পারি। প্রত্যেক পিতা-মাতারই উচিৎ তার সন্তান পুত্র কিংবা কন্যা হোক তার মেধা বিকাশের সুযোগ করে দেয়া। বিশেষ করে আমরা বাঙালি জাতি আমাদের ভাষা নিয়ে আমরা গর্বিত। 
 
তিনি বলেন, একজন বিতার্কিক যুক্তি দিয়ে তার নিজের অবস্থানকে বিতর্কের মাধ্যমে তুলে ধরতে পারেন। একজন বিতার্কিক একই সঙ্গে ভিন্ন ভিন্ন যুক্তির মাধ্যমে আমাদের বিভিন্ন বিষয়কে দাড় করাতে পারেন। একজন বিতার্কিককে প্রত্যেকটা বিষয় নিয়ে আগাম ভাবতে হয়। পক্ষে কিংবা বিপক্ষে কথা বলতে হয়। এর মাধ্যমে একজন মানুষ পরমসহিষ্ণু হয়ে উঠে। 
 
ভালো মানুষ হয়ে ওঠার জন্যে বিতর্কের বিকল্প নেই। স্বপ্নের কথা অনেকে বলেন, এই বাংলাদেশ নিয়ে জাতির পিতা স্বপ্নটি দেখেছিলেন আর স্বপ্ন দেখেছিলেন বলেই আমরা স্বাধীনতা লাভ করেছি। প্রত্যেক মানুষেরই স্বপ্ন থাকে। আমাদের জাতির পিতাও স্বপ্ন দেখতেন। পশ্চিমাদের অর্থ ছিলো, আমাদের কোনো অর্থ ছিলো না। আমাদের স্বপ্ন দিয়েই আমরা এগিয়ে গিয়েছিলাম। তবে অর্থের প্রয়োজন রয়েছে। অর্থ অনেক ক্ষেত্রে সহায়ক হিসেবে কাজ করে। আবার অর্থ থাকলেই হবে না, সেটিকে অর্থপূর্ণ প্রয়োজনে ব্যবহার করতে হবে। 
 
 
ডাঃ দীপু মনির বক্তব্যের আগে ফরিদগঞ্জ এ আর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী এবারের বিতর্ক আসরের সবচেয়ে কম বয়সী বিতার্কিক কুলছুমা আক্তার এক হৃদয়স্পর্শী বক্তব্য রাখে। তার বক্তব্য শুনে পুরো অনুষ্ঠানস্থল করতালিতে মুখরিত হয়ে উঠে। ডাঃ দীপু মনি আবেগাপ্লুত হয়ে তাকে জড়িয়ে ধরেন। এরপর তিনি কুলছুমাসহ এই বিতর্ক আসরের চারজন ক্ষুদে বিতার্কিকের হাতে পুরস্কার ও সনদপত্র তুলে দেন। এছাড়া তিনি একজন কৃতী বিতার্কিকের হাতে তার বিতর্কের বৃত্তির অর্থ তুলে দেন। 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর