মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯
logo
চাঁদপুরের চরাঞ্চল
উজানের পানির স্রোতে তলিয়ে যাওয়া ২৮০ পরিবার
প্রকাশ : ২২ আগস্ট, ২০১৭ ১২:৩৬:৩৬
প্রিন্টঅ-অ+
তাদেরকে সহযোগিতা দেয়া হবে

চাঁদপুর সদর ও হাইমচর উপজেলার চরাঞ্চলে উজানের পানির তীব্র স্রোতে ২শ’ ৮০ বসতঘর পদ্মা-মেঘনা নদীতে তলিয়ে যাওয়ায় ত্রান ও দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দুপুর ৩টায় চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এ সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ডাঃ দীপু মনি। তিনি বক্তব্যে বলেন, উজানের পানিতে চাঁদপুরে যেসব চরাঞ্চল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, তাদেরকে সহযোগিতা দেয়া হয়েছে। কোন কারণে বন্যা দেখা দিলে আমরা তা মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছি। আমরা দলীয়, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনসহ সকলকে নিয়ে দূর্যোগ মোকাবেলা করবো। দূর্যোগকালে এবং পরবর্তীতে ক্ষতিগ্রস্থ ও প্রসূতি মায়েদের স্বাস্থ্যসেবা এবং নিরাপত্তার বিষয়ে স্বাস্থ্য বিভাগ ব্যবস্থা নিবেন। এছাড়া হাইমচর উপজেলায় মেঘনা নদীর পশ্চিম পাড়ের মানুষের উদ্ধারের জন্য রেসকিউ বোট খুবই জরুরি। এ বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সাথে যোগাযোগ করা হবে।

জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সবুর মন্ডলের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, সিভিল সার্জন ডাঃ মো. মতিউর রহমান, নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন্নাহার, পানি উন্নয়ন বোর্ড চাঁদপুর এর নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হান, মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী এস.এম. আতাউর রহমান, হাইমচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুর হোসেন পাটওয়ারী, মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা ও হাইমচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মো. মঈনউদ্দিন।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, দূর্যোগ মোকাবেলায় তাৎক্ষনিক ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ত্রান দেওয়ার জন্য আমরা প্রস্তুত রয়েছি। চরাঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। তাদেরকে নিরাপদে আনার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ সার্বিক্ষনিক যোগাযোগ রক্ষা করছেন।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর