রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯
logo
সদ্য সংবাদ :
হাজীগঞ্জে কৃমিনাশক ওষুধ খেয়ে দু’ শতাধিক শিক্ষার্থী অসুস্থ্য শিক্ষার্থীদের মৃত্যু গুজবে বিদ্যালয় ভাংচুর
প্রকাশ : ০৪ এপ্রিল, ২০১৭ ১৪:২৭:৩৩
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর:হাজীগঞ্জ উপজেলায় সুহিলপুর উচ্চ বিদ্যালয়সহ চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কৃমিনাশক ঔষধ খেয়ে দু’শতাধিক শিক্ষার্থী অসুস্থ্য হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহ উপলক্ষে সোমবার ১১ ঘটিকায় সরকারিভাবে শিক্ষার্থীদের কৃমিনাশক ট্যাবলেট খাওয়ানো হয়। কৃমির ঔষধ খেয়ে ক্রমান্বয়ে শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হয়ে পড়ে।
            অসুস্থ্য শিক্ষার্থীরা হলো উপজেলার সুহিলপুর উচ্চ বিদ্যালয়, রামকানাই বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় , রান্ধুনীমুড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও সিদলা একটি মাদ্রাসার। এর মধ্যে সুহিলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৭ শতাধিক শিক্ষার্থীর মাঝে প্রায় দেড় শতাধিক অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। পরে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অসুস্থ শিক্ষার্থীদের হাসপাতালে পাঠায়।
            সুহিলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের মধ্যে কেউ কেউ অজ্ঞান হয়ে যায়, কারো মাথা ব্যাথা, কারো বুক ব্যাথাসহ বিভিন্ন রকম সমস্যা দেখা দেয়। সবাই হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ী ফিরে যাচ্ছে। আমরা সব শিক্ষক ও অভিভাবক সদস্যবৃন্দ মিলে শিক্ষার্থীদের হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করছি।’
            এই বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য ওমর ফারুক বলেন, ‘খবর পেয়ে হাসপাতালে এসে শিক্ষার্থীদের সেবার কাজে ছিলাম। আমি নিজেই প্রায় ৫০/৬০ জন শিক্ষার্থীর সেবায় নিয়োজিত ছিলাম।’
            হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে চিকিৎসা নেয়া শিক্ষার্থীরা হলো- সুহিলপুরের রিমা, আঁখি, মরিয়ম, সানজিদা, আছমা, সাবিনা, শান্তা, লিপি, তানজিনা, সুমাইয়া, সুমনা নাজমিন, সাবিনা, বৃষ্টি, খাদিজা, মারজান, ফারজানা, তামান্না, রাবেয়া, রোকসানা, সানজিদা, নাছরিন, আনিকা, জান্নাত, মাছুম, রমজান, নাছির ও সাকিবসহ আরো অনেকেই । তারা সবাই ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী।  এছাড়া হাজীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে শিক্ষার্থীরা চিকিৎসা সেবা নিয়েছে বলে জানা গেছে।
            সুহিলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ইসরাফিল জানান, ‘বেলা ১১ ঘটিকার দিকে বিদ্যালয়ে কৃমিনাশক ওষুধ খাওয়ানো শুরু হয়। পরে ক্রমেই কয়েক বন্ধুরা অসুস্থ্য হয়ে পড়ে।’
            এদিকে অসুস্থ্য হওয়া শিক্ষার্থীদের মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে পড়লে সুহিলপুর উচ্চ বিদ্যালয় ভাংচুর চালায় এলাকাবাসী। পরে হাজীগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাবেদুল ইসলাম ও সঙ্গী ফোর্স ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।
            উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আলী নুর মোহাম্মদ বশির আহম্মদ জানান, জরুরী চিকিৎসা দেয়ার জন্য ২০ জন চিকিৎসক, ১০ জন প্যারামেডিকেল চিকিৎসক, নার্সসহ প্রায় অর্ধশত কর্মকর্তা শিক্ষার্থীদের মাঝে চিকিৎসা সেবা দিয়েছে।
            তিনি আরো বলেন, ‘প্রত্যেককে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। অল্প সময়ের মধ্যে সবাই সেরে উঠবে। দুঃচিন্তার কোন কারণ নেই। কৃমি নাশক টেবলেট ভরা পেটে খেলে কোন অসুবিধা নেই। টেবলেটটি সকলকে সচেতনতার সহিত সেবন করাতে হবে। প্রয়োজনে স্বাস্থ্য সহকারি ও ডাক্তারগণের পরামর্শ নিতে পারেন।’
            উলে¬খ্য, ১ এপ্রিল শনিবার থেকে ৬ এপ্রিল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এটি ৫ বছর থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশু-কিশোর-কিশোরীদের কৃমিনাশক টেবলেট খাওয়ানো কর্মসূচি।  হাজীগঞ্জ উপজেলার ৩৯৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠাaনে সর্বমোট ৯৪ হাজার ৯শ’ ৭০ জন। অপরদিকে রবিবার মতলব উত্তর উপজেলার ইন্দুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে কৃমিনাশক ওষুধ খেয়ে প্রায় ২৫ জন শিক্ষার্থী মতলব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে¬ক্সে চিকিৎসা সেবা নিয়েছে।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর