শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০
logo
চাঁদপুরে সনাক-টিআইবি’র উদ্যোগে ভূমিখাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত হলো ভূমি বিষয়ক কার্যসূচনা অনুষ্ঠান
ভূমিখাতে সঠিক ব্যবস্থাপনার জন্য দুষ্ট চক্র ভাঙ্গতে হবে : অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল হাই
প্রকাশ : ২২ মার্চ, ২০১৭ ১১:২৬:৫০
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর: ‘ভূমিখাতে চাই স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, সেবার সহজীকরণ ও জনভোগান্তি  হ্রাস’ এ শ্লোগান নিয়ে ভূমিখাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত হলো সনাক চাঁদপুরের ভূমি বিষয়ক কার্যক্রমের কার্যসূচনা অনুষ্ঠান। চাঁদপুর সদর উপজেলার ভূমি বিষয়ক সরকারি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ ও জনসাধারণের মধ্যে সু-সমন্বয় করার লক্ষ্যে সনাক-টিআইবি’র আয়োজনে এবং উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয়।
            সনাক সভাপতি কাজী শাহাদাত-এর সভাপতিত্বে কার্যসূচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আবদুল হাই তাঁর বক্তব্যে বলেন, ভূমিখাতে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য জনগণকে কাজ করতে হবে। তিনি ভূমি ব্যবস্থাপনা একটা দুষ্ট চক্রের কাছে জিম্মি রয়েছে বলে জানান। ভূমিখাতে সঠিক ব্যবস্থাপনার জন্যে এই দুষ্ট চক্র ভাঙ্গতে হবে। একজন সেবা গ্রহীতা জানেন না ভূমি খাতে বা দলিল রেজিস্ট্রি করতে কোন খাতে কত টাকা লাগে। জনসাধারনের সেবা আরো সহজ করার জন্য সিটিজেন চার্টার স্থাপন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, আমি প্রতিমাসে একটি উপজেলায় ভূমি বিষয়ক গণশুনানী আয়োজন করবো। এজন্য তিনি সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে প্রতিটি ইউনিয়নে গণশুনানী আয়োজন করার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, যে ব্যক্তি সেবা নিতে আসে তাকে সেবা দেয়াটাই যদি আমাদের মিশন ও ভিশন হয় তাহলে উন্নয়নের মতো স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতায় প্রতিষ্ঠায় বিশে^র মধ্যে বাংলাদেশ রোল মডেলে পরিণত হবে।
            সনাক সদস্য ডাঃ পীযূষ কান্তি বড়ুয়ার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চাঁদপুর জেলা রেজিস্টার মুশতাক আহমেদ বলেন, প্রত্যেকটি সাব রেজিস্টার অফিসে প্রতিষ্ঠানের সকল তথ্য সমৃদ্ধ সিটিজেন চার্টার স্থাপন করা হয়েছে যাতে জনগণ খুব সহজেই সকল তথ্য পেতে পারে। তিনি বলেন, সঠিক তথ্য না জানার কারণে অনেকেই সঠিকভাবে দলিল লিখতে পারে না। তিনি দলিল লেখক সমিতির উদ্দেশ্যে বলেন, তাঁরা যেন দলিল লেখার সময় আরো যতœবান ও সহনশীল হন। তিনি রেজিস্ট্রেশন আইনের ২১ ও ২২ নম্বর ধারা তুলে ধরে বলেন, সাব রেজিস্ট্রার অফিস, ভূমি অফিস এবং সেটেলমেন্ট অফিসের সু-সমন্বয় হলে ভূমি খাতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ভূমিখাতে স্বচ্ছতা আনয়নের জন্য পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধির আহবান জানান।
            সহকারী কমিশনার (ভূমি) বলেন, চাঁদপুরে অনলাইন ভিত্তিক ভূমি সেবা কার্যক্রম যেভাবে চলছে এভাবে চলমান থাকলে কয়েক বছরের মধ্যেই সুশাসন প্রতিষ্ঠা সম্ভব। তিনি বলেন, আমরা সকলের কথা শুনতে প্রস্তুত আছি। তিনি আরো বলেন, তথ্য না জানার জন্যই মানুষ দুর্নীতির শিকার হয় এবং মধ্যসত্ত্বভোগীদের দ্বারস্থ হয় ও ভোগান্তির শিকার হয়। তিনি দুর্নীতি প্রতিরোধে সকলকে সচেতন হওয়ার আহবান জানান এবং যে কেনো সমস্যা তাকে জানানোর আহ্বান জানান।
সভাপতির বক্তব্যে সনাক সভাপতি কাজী শাহাদাত বলেন, বর্তমান প্রশাসন অনেক ইতিবাচক এবং সর্বক্ষেত্রে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধির জন্য অনেক ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে। তিনি বলেন, দেশ অনেক এগিয়ে গেছে এবং আরো এগুতে হবে। এজন্য সকলের দায়-দ্বায়িত্ব নিয়ে এগিয়ে আসা উচিত এবং  ভূমিখাতসহ সকল ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা আনয়নের জন্য আমরা সবাই মিলে এগিয়ে যেতে চাই। তিনি বলেন, পরিবর্তনের মানসিকতা সকলের আন্তরিকতার মধ্যে থাকলে ভূমিখাতেও আমাদের উদ্যোগ সফল হবে এবং আমরা আমাদের কাঙিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবো।
সনাক-টিআইবি’র এ আয়োজনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সনাক সদস্য ও ভূমি বিষয়ক উপকমিটির আহ্বায়ক মো: আব্বাস উদ্দিন। তিনি বলেন, ভূমি ব্যবস্থাপনার বিষয়টিকে কীভাবে মানুষের কাছে সহজ করে তোলা যায় এবং এর মাধ্যমে কীভাবে মানুষকে ভালোভাবে সেবা প্রদান করা যায় সেটিই হবে আমাদের আজকের কার্যক্রমের মূল উদ্দেশ্য। টিআইবি ও সনাকের ভূমিসেবা বিষয়ে বিস্তারিত উপস্থাপন করেন টিআইবি’র প্রোগ্রাম ম্যানেজার করুনা কিশোর চক্রবর্তী। তিনি এ সম্পর্কিত উপস্থাপনায়, ভূমিখাত নিয়ে কাজের মূল লক্ষ্য, স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে কাজের উদ্দেশ্য, স্থানীয় পর্যায়ে যেসব প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করা হবে, জাতীয় পর্যায়ে যেসব মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের সাথে অ্যাডভোকেসি কার্যক্রম পরিচালিত হবে, কর্মসূচি বাস্তবায়ন এলাকাসমূহ, ভূমি ইস্যুতে কাজের লক্ষিত ফলাফল এবং ফলাফল অর্জনে কার্যক্রমসমূহ নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন মানুষের কাছে যেন ভূমি বিষয়ক তথ্যের সহজলভ্যতা ও সেবা কার্যক্রম সহজতর হয় এবং মানুষ সেবা বঞ্চিত হলে তারা যেন অভিযোগ জানানোর পাশাপাশি সেগুলোর প্রতিকার পেতে পারে সে পরিবেশ সৃষ্টির জন্যই সনাক-টিআইবি’র প্রয়াস থাকবে যা ভূমি বিষয়ক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ও সাধারণ জনগণের মধ্যে পারস্পরিক আস্থাপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।
ভূমি বিষয়ক সেবা প্রাপ্তি এবং এ খাতে স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা বৃদ্ধি কল্পে সমস্যা ও সুপারিশমূলক উন্মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। উন্মুক্ত আলোচনা পর্বে অংশগ্রহন করেন হিডো’র নির্বাহী পরিচালক সালাউদ্দিন আহমেদ, চিকিৎসক ডা:  মো: এ. কিউ রুহুল আমিন, দৈনিক চাঁদপুর খবর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক সোহেল রুশদী; সনাকের স্বজন সদস্য সাবিহা সুলতানা ও ইউনিয়ন উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা খায়রুল হক চৌধুরী। অতিথিবৃন্দ ভূমি বিষয়ক আজকের এই কার্যসূচনা অনুষ্ঠানটি আয়োজনের জন্য সনাক ও টিআইবির প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং বলেন, টিআইবি ও সনাকের এই উদ্যোগ অব্যাহত থাকলে স্থানীয় পর্যায়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। সনাক সদস্য ইসমত আরা সাফি বন্যা আজকের এই আয়েজনে কার্যকর অংশগ্রহনের জন্য প্রধান আতিথি, বিশেষ অতিথিসহ সকল সম্মানিত অতিথিগণের প্রতি সনাক ও টিআইবি’র পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং ভবিষ্যৎ কার্যক্রম পরিচালনায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। অনুষ্ঠানে বিশেষভাবে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর পৌর ও সদর উপজেলার উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা (তহশীলদার), আইনজীবী, দলিল লেখক সমিতির প্রতিনিধি, ভূমি ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তি, ভূমি বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গসহ ভূমি সেবা সংশ্লিষ্ট সরকারি/বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা, নারী সংগঠন প্রতিনিধি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও স্থানীয় সরকার বিভাগের প্রতিনিধি, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ, এনজিও প্রতিনিধি, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সনাক সদস্যবৃন্দ, সনাকের সহযোগী সংগঠন ইয়েস, স্বজন ও ইয়েস ফ্রেন্ডস্ গ্রুপের সদস্যবৃন্দ এবং টিআইবি কর্মীবৃন্দ।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর