শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯
logo
চাঁদপুর প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় অ্যাডিশনাল আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারী
মানুষকে ভালো কিছু দেয়ার সুযোগ পুলিশের চেয়ে অন্য কোনো পেশায় এতোটা নেই
প্রকাশ : ০৯ মার্চ, ২০১৭ ১১:২৯:১৫
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর: গতকাল ৮ মার্চ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় চাঁদপুর সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন চাঁদপুরের কৃতী সন্তান অ্যাডিশনাল আইজিপি (স্পেশাল ব্রাঞ্চ) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম (বার)। অনুষ্ঠানের শুরুতে পরিচিতি পর্ব শেষে শুভেচ্ছা বক্তব্যে জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, এ সভাটি একেবারেই ইনফর্মাল। এখানে কোনো প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি নেই। আমরা আজ আপনাদের (সাংবাদিকদের) থেকে জানবো চাঁদপুরের পুলিশ কেমন করছে। আপনাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী এ জেলার পুলিশ কাজ করছে কি না এবং সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে কি না। এরপর উপস্থিত সাংবাদিকদের থেকে ২১ জন বক্তব্য রাখেন। সাংবাদিকরা তাঁদের বক্তব্যে যেমনি চাঁদপুরের পুলিশের নানা সফলতা ও জনগণের প্রত্যাশা অনুযায়ী সেবা পাওয়ার বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন, তেমনি কোনো কোনো ক্ষেত্রে পুলিশের অনিয়ম, অসহযোগিতা এবং তাদের লোকবল ও ইকুপমেন্ট সঙ্কটসহ নানা সমস্যার কথাও তুলে ধরেন। ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী তাঁর বক্তব্যে বলেন, সাংবাদিকরা যে সমাজের দর্পণ তা আবারো প্রমাণিত হলো আজকের এ মতবিমিয় সভার মধ্য দিয়ে। আপনারাই বলেছেন, আমাদের কর্মকাÐ নিয়ে। আপনারা শুধু আমাদের প্রশংসাই করেন নি, সমস্যাগুলোও তুলে ধরেছেন। অর্থাৎ আরো কী কী করলে জনগণ তাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী সেবা পাবে সে বিষয়গুলো উঠে এসেছে আপনাদের বক্তব্যে। তিনি বলেন, মানুষ বেঁচে থাকে তার কর্মের মাধ্যমে। মানুষকে ভালো কিছু দেয়ার সুযোগ পুলিশের চেয়ে অন্য কোনো পেশায় এতোটা নেই। আমরা জনবান্ধব পুলিশ হতে চাই। আর এ জনবান্ধব হচ্ছে মানুষের পাশে দাঁড়ানো। চাঁদপুরের পুলিশ এ পথে অনেক এগিয়ে আছে। তিনি আরো বলেন, প্রত্যেক পেশায়ই ভালো-খারাপ আছে। কোথাও হয়তো ভালোর পরিমাণ বেশি, আবার কোথাও খারাপের পরিমাণ বেশি। মাদক ও জঙ্গিবাদ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এ দুটি সমস্যা সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। আমাদের এবার পুলিশের জাতীয় সমাবেশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পুলিশের প্রতি একটাই ম্যাসেজ ছিলো যে, মাদক ও জঙ্গিবাদকে নির্মূল করতে হবে। জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, মাদকের সাথে পুলিশের কোনো সম্পর্ক থাকবে না। এটা আমাদের জিরো টলারেন্স। আর মাদক নির্মূলে চাঁদপুর যেনো সারাদেশে মডেল হয়। যেহেতু এটা আমার জেলা। তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশ যে সাফল্য অর্জন করেছে তা সারা পৃথিবীতে মডেল। আমরা হয়তো নির্মূল করতে পারি নি তবে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছি। সবশেষে ড. জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, আমি আপনাদের মাঝে বেঁচে থাকতে চাই, আপনাদের ভালোবাসায় বেঁচে থাকতে চাই।
            চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মোহাঃ শফিকুল ইসলাম বিপিএম বলেন, এ দেশটাকে আমাদেরই গড়তে হবে। অন্য কেউ এসে পরিবর্তন করে দিয়ে যাবে না। জঙ্গিবাদের ব্যাপারে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বাংলাদেশ পুলিশ এখন অনেক আধুনিক, সক্ষম। জঙ্গিদের কার্যক্রম সম্পর্কে আমাদের ধারণা আছে। তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা প্রতিবেশির প্রতি নজর রাখবেন, খোঁজখর রাখবেন। আগন্তুক ব্যক্তির উপর নজর রাখবেন। তাহলেই আর জঙ্গি বা অন্য কোনো অপরাধী এসে আপনার এলাকায় অবস্থান করতে পারবে না। মাদক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মাদক নির্মূল করতে হলে শুধু বিক্রেতাকে আটক করাই যথেষ্ট নয়। মাদকাসক্তদেরও এ পথ থেকে ফিরিয়ে আনতে হবে। তাদেরকে কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমে ভালো পথে আনতে হবে। চাঁদপুরের এসপি যেমনটা করছে। আমরা জেনেছি চাঁদপুরের এসপি শামসুন্নাহার মাদক বিক্রেতাদের এবং চিহ্নিত মাদকাসক্তদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদেরকে কাউন্সিলিং করছে, তাদের থেকে অঙ্গীকার নিয়েছে সে আর মাদক বিক্রি করবে না, মাদক সেবন করবে না। এটা খুবই ফলপ্রসূ একটি উদ্যোগ। আমরা পুলিশ বিভাগ এ উদ্যোগটিকে গুরুত্বের সাথে নিয়েছি। এছাড়া চাঁদপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ে যে ‘নারী ও শিশু সহায়তা কেন্দ্র’ নামে সেল খোলা হয়েছে সেটিও দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। সারাদেশেই এখন আমরা এটি চালু করেছি। এর দ্বারা অসংখ্য মানুষ উপকৃত হচ্ছে।
            সবশেষে চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার পিপিএম তাঁর সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। পুলিশ কর্মকর্তাদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন নৌ-পুলিশ সুপার সুব্রত হালদার। তিনি তাঁর আলোচনায় নৌ-পুলিশের ব্যাপারে উত্থাপিত বিভিন্ন অভিযোগ খতিয়ে দেখবেন এবং ভবিষ্যতে যাতে কোনো অভিযোগ না শুনতে হয় সে ব্যাপারে দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেন। এছাড়া নৌ-পুলিশের নানা সীমাবদ্ধতার কথাও তিনি উল্লেখ করেন।
            চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জিএম শাহীনের সঞ্চালনায় এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপস্থিত সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শরীফ চৌধুরী, সাবেক সভাপতি ইকরাম চৌধুরী, গোলাম কিবরিয়া জীবন, অধ্যক্ষ জালাল চৌধুরী, শাহ মোহাম্মদ মাকসুদুল আলম, বিএম হান্নান, সাংবাদিক অধ্যাপক দেলোয়ার আহমেদ, গিয়াস উদ্দিন মিলন, রহিম বাদশা, সোহেল রুশদী, পার্থনাথ চক্রবর্তী, আলম পলাশ, আব্দুল আউয়াল রুবেল, ল²ণ চন্দ্র সূত্রধর, আল ইমরান শোভন, রিয়াদ ফেরদৌস, শাহাদাত হোসেন শান্ত, মুনাওয়ার কানন, এমএ লতিফ ও জাকির হোসেন। অনুষ্ঠানে চাঁদপুর প্রেসক্লাব, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরাম ও ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে অ্যাডিশনাল আইজিপি ও চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। মতবিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শহীদ পাটোয়ারী, প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য অধ্যাপক আহসানুজ্জামান মন্টু, সময় টিভির স্টাফ রিপোর্টার ফারুক আহামদ, প্রেসক্লাবের প্রচার সম্পাদক এ এইচ এম আহসান উল্যাহ, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডঃ ইয়াছিন ইকরাম প্রমুখ।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর