মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯
logo
চাঁদপুরে সাংবাদিকদের সাথে ব্র্যাকের মতবিনিময় সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ মাসুদ হোসেন
মা ও মেয়েদের জন্য সকল ক্ষেত্রে নিরাপদ নাগরিকত্ব নিশ্চিত করবো
প্রকাশ : ০১ মার্চ, ২০১৭ ১১:০৭:৫৪
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর :যৌন হয়রানি ও বাল্যবিয়ে নির্মূলকরণে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে চাঁদপুরের সাংবাদিকদের সাথে কর্মসূচি অবহিতকরণ ও মতবিনিময় সভা করেছে ব্র্যাক। ব্র্যাকের সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচির আওতায় মেজনিন-মেয়েদের জন্য নিরাপদ নাগরিকত্ব প্রকল্প এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। চাঁদপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে গতকাল মঙ্গলবার এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ মাসুদ হোসেন। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ব্র্যাক বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে যৌন হয়রানি ও বাল্যবিয়ে সম্পর্কে সচেতন করার লক্ষ্যে যে কর্মসূচি হাতে নিয়েছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। এটি অবশ্যই সময়োপযোগী। তবে পাশাপাশি অভিভাবকদেরও এসব কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত করা উচিত। কারণ অভিভাবকদের উপর অনেক কিছু নির্ভর করে। তিনি বলেন, সাইবার বুলিং খুবই ভয়াবহ একটি বিষয়। এ প্রসঙ্গে তিনি ফ্যাক আইডির মাধ্যমে ভয়াবহ একটি ঘটনার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আমরা সকলের সম্মিলিত প্রয়াসে মা ও মেয়েদের জন্য সকল ক্ষেত্রে নিরাপদ নাগরিকত্ব নিশ্চিত করবো।
            চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শরীফ চৌধুরীর সভাপ্রধানে এবং সাধারণ সম্পাদক জিএম শাহীনের উপস্থাপনায় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকরাম চৌধুরী, কাজী শাহাদাত, গোলাম কিবরিয়া জীবন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন মিলন, সোহেল রুশদী, অ্যাডঃ মোঃ শাহজাহান মিয়া, মোঃ জাকির হোসেন প্রমুখ। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা তথা অফিসার মোঃ নূরুল হক।
            ব্র্যাকের উক্ত কর্মসূচির উপর বিস্তারিত তথ্য প্রজেক্টরের মাধ্যমে তুলে ধরেন ব্র্যাকের সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচি, কুমিল্লা-এর আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক প্রশান্ত কুমার দে। কর্মসূচির উপর বক্তব্য রাখেন ব্র্যাক প্রধান কার্যালয়ের সিনিয়র সেক্টর স্পেশালিস্ট সিআইপি মীর শামছুল আলম। তিনি জানান, আমাদের মেজনিন কর্ম এলাকা হচ্ছে সারাদেশের মধ্যে ১০টি জেলা। এর মধ্যে চাঁদপুর একটি।  এই ১০টি জেলার আওতাধীন ৩শ’টি মাধ্যমিক বালক ও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মেজনিন প্রকল্পের আওতায় আসবে। এর মধ্যে চাঁদপুর জেলার রয়েছে ৩০টি। ত্রিশটির মধ্যে ১৫টি হবে এ বছর। তিনি বলেন, আমরা প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধমূলক কার্যক্রম জোরদার করতে চাই। তবে শুধুমাত্র কোনো গোষ্ঠী বা একটি সংস্থার দ্বারা এসব সামাজিক অপরাধ দমন বা প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়। সকলের সম্মিলিত প্রয়াসে এ বিষয়গুলো মোকাবেলা করতে চাই। এছাড়া শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ব্র্যাক-এর সামাজিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচির জেলা ব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী এবং ব্র্র্যাকের জেলা প্রতিনিধি ফারুক আহমেদ।
            মুক্ত আলোচনা পর্ব শেষ গ্রুপ ওয়ার্ক অনুষ্ঠিত হয়। উপস্থিত সাংবাদিকরা দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে মেজনিন-এর কর্মসূচির উপর গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে ভূমিকা, চ্যালেঞ্জ ও করণীয় বিষয়ে লিখিত উপস্থাপন করা হয়। পরে একটি গ্রুপের লিখিত উপস্থাপনার ব্যাখ্যা তুলে ধরেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা ও অপর গ্রুপের উপস্থাপনার ব্যাখ্যা তুলে ধরেন সাংবাদিক আবদুল আউয়াল রুবেল।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর