শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯
logo
চাঁদপুর অটো রাইসমিল মালিক সমিতির সদস্যদের সাথে মতবিনিময় সভায় জেলা প্রশাসক (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন
পরিবেশ দূষণ করলে আমরা মোবাইল কোর্টের আওতায় আনবো
প্রকাশ : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১১:০৯:০৩
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর:চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে চাঁদপুর অটো রাইস মিল মালিক সমিতির সদস্যদের সাথে প্রশাসনের এক মতবিনিময় সভা গতকাল ২৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সার্বিক মোঃ মাসুদ হোসেনের পরিচালনায় রাইস মিলগুলো দ্বারা এলাকার পরিবেশ, বায়ু, নদী ও পানি দূষণ বিষয় সম্পর্কে আলোচনা করেন পরিবেশ অধিদপ্তর চাঁদপুরের সহকারী পরিচালক মোঃ সাঈদ আনোয়ার। বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সুভাষ চন্দ্র রায়, সহ-সভাপতি তমাল কুমার ঘোষ, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বিএম হান্নান, চাঁদপুর রাইস মিল মালিক সমিতির সভাপতি পরেশ মালাকার ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী। আরো বক্তব্য রাখেন চেম্বার পরিচালক মাইনুল ইসলাম কিশোর, রাইস মিল মালিক সমিতির সদস্য কণা পাটওয়ারী, নকিবুল ইসলাম চৌধুরী, ইব্রাহিম খলিল, হুমায়ুন কবির বাদল বেপারী, সফিকুর রহমান হাওলাদার, আব্দুর রহিম, হাজী শাহ আলম বাদশা, বেলায়েত হোসেন তপাদার প্রমুখ।


ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন তাঁর বক্তব্যে বলেন, চাল কল মালিকরা স্বীকার করেছেন অনেক সময় কর্মচারীদের ত্রুটির কারণে রাইস মিল থেকে ছাই উড়ে মানুষের ক্ষতি করছে এবং বায়ু দূষণ হচ্ছে। মিলগুলোতে যে সব ত্রুটি আছে মালিকরা তা সংশোধন করে নিবেন। জনস্বার্থে দৃশ্যমান পরিবেশ দূষণ ছাড় দেয়া হবে না। যেসব মিল পরিবেশ দূষণ করবে আমরা তাদেরকে মোবাইল কোর্টের আওতায় আনবো। নদী ও পানি দূষণ এবং মানুষের ক্ষতি হয় কিনা সরজমিনে পরিদর্শন করে এ মর্মে প্রতিবেদন আগামী ১৫ দিনের মধ্যে দিতে হবে। এজন্যে পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালককে প্রধান করে চাঁদপুর চেম্বার, ক্যাব ও রাইস মিল মালিক সমিতির একজন করে ৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত দেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক।


তিনি আরো বলেন, নদী দূষণের বিষয়টি পরবর্তী সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত আগের পর্যায়ে থাকবে। ছাই উড়ে মানুষের ক্ষতি এবং পরিবেশ বিনষ্ট হলে পরিবেশ আইনে মোবাইল কোর্ট চলবেই। পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোঃ সাঈদ আনোয়ার তার বক্তব্যে প্রত্যেক রাইস মিলকে ১২০ উচ্চতায় স্থাপনের জন্যে মিল মালিকদের নির্দেশনা দেন।


চেম্বার সভাপতি সুভাষ চন্দ্র রায় বলেন, আমাদের ব্যবসায়ীরা আইন মেনে ব্যবসা, মিল-কারখানা পরিচালনা করেন। রাইস মিল থেকে ছাই উড়ছে এটা কেউ অস্বীকার করেনি। তবে ব্যবস্থা নেয়ায় আগের চেয়ে ছাই উড়া অনেক কমে এসেছে। যে সব মিলগুলোতে ত্রুটি আছে তাদেরকে ত্রুটিমুক্ত করে মিল চালানোর জন্যে অনুরোধ করেন।


রাইস মিল মালিকরা বলেন, আমরা পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নিয়েই মিলের চাল উৎপাদন করছি। মানুষের ক্ষতি হয় এবং পরিবেশ দূষণ যাতে না হয় এ ব্যাপারে প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে আমরা আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করবো।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর