মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯
logo
চান্দ্রা বাজার ইয়াকুব আলী স্মারক উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া
অন্য যে কোনো খাতের চেয়ে শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ সবচেয়ে নিরাপদ : মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ
প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১১:৪৭:৩৮
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২নং চান্দ্রা ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চান্দ্রা বাজার ইয়াকুব আলী স্মারক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭৩তম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০১৭ সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল ২৬ ফেব্রুয়ারি রোববার সকাল ১০টায় বিদ্যালয় মাঠে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন, আলোচনা সভা, শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা আয়োজনে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন ও প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ। ক্রীড়া প্রতিযোগিতাকে ঘিরে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে এক আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।
            উদ্বোধন পূর্বে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ নজরুল ইসলাম পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে ও সহকারী শিক্ষক সুলতান মাহমুদের পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ হুমায়ুন কবির। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সদর উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এ কে এম সাইফুল হক, ১২নং চান্দ্রা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ খান জাহান আলী কালু পাটোয়ারী, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী মোঃ ছায়্যিদুর রহমান বেপারী, অত্র বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির প্রাক্তন সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসেন পাটোয়ারী, প্রাক্তন সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ হারুনুর রশিদ মিয়া প্রমুখ।
            প্রধান অতিথি আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, অন্য যে কোনো খাতের চেয়ে শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ সবচেয়ে নিরাপদ। সবকিছুতেই লাভ-লোকসান আছে। কিন্তু শিক্ষা খাতে অর্থ খরচ করলে কোনো লোকসান নেই। বর্তমান সরকার শিক্ষা বান্ধব সরকার। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার শিক্ষা খাতকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। বছরের শুরুতে সারাদেশে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের হাতে একযোগে নতুন বই তুলে দেন। বিগত দিনে যারা দেশ পরিচালনা করেছে তাদের পক্ষে এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি। সরকার ২০২৫ সালের মধ্যে জাতিকে শতভাগ শিক্ষিত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করা হবে। মেয়েদের শিক্ষার উপর অধিক গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। এ দেশের কিছু ধর্মান্ধ ফতুয়াবাজ ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে মেয়েদেরকে ঘরের ভেতরে রাখার অপচেষ্টা চালিয়ে ছিলো। তাদের সে অপচেষ্টা সফল হয়নি। এখন নারীরা পুরুষের পাশাপাশি সমানভাবে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ পদ-পদবীতে চাকুরি করে দেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রা এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, আমাদের যুদ্ধ ক্ষুধা-দারিদ্রের বিরুদ্ধে। আমরা খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে উন্নত জাতি হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে যাচ্ছি। সে লক্ষ্যেই জননেত্রী শেখ হাসিনা নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তিনি ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, শিক্ষার্থীদেরকে বাংলা ভাষার সঠিক উচ্চারণ শিখাতে হবে। বাংলা ভাষার জন্যে পৃথিবীর অন্য কোনো দেশ কিংবা জাতিকে প্রাণ দিতে হয়নি। একমাত্র বাঙালি জাতিকেই ভাষার জন্যে প্রাণ দিতে হয়েছে।
            শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা মানুষ গড়ার কারিগর। শিক্ষার্থীদেরকে সঠিকভাবে পাঠদান করাবেন। ভবিষ্যতে এরাই জাতির চালিকা শক্তি হিসেবে কাজ করবে। অত্র বিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়নসহ যে সকল সমস্যা রয়েছে, সেসব সমস্যা সমাধানে ডাঃ দীপু মনি এমপির সাথে পরামর্শ করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সমাধান করার ব্যবস্থা নেয়া হবে।
            শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ভালোভাবে পড়ালেখা করবে। পড়ালেখার বিকল্প নেই। সবকিছুতেই অংশীদার থাকে। একমাত্র শিক্ষা ক্ষেত্রে কোনো অংশীদার নেই। বাবা-মা, শিক্ষক এবং বড়দেরকে শ্রদ্ধা করবে। মাদক থেকে দূরে থাকবে। যারা মাদক সেবন কিংবা গ্রহণ করে তাদেরকে কোনোভাবেই আশ্রয়-প্রশ্রয় দেবে না।
            অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনার সন্তান মাদকের সাথে জড়িয়ে পড়ছে কিনা সেদিকে সতর্ক থাকবেন। বাল্যবিয়ে দেয়া থেকে বিরত থাকবেন। নিজের সন্তানকে বাল্যবিয়ে দিয়ে বিপদের মুখে ঠেলে দেবেন না।
            স্বাগত বক্তব্যে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ হুমায়ুন কবির বলেন, এ বিদ্যালয়ে প্রায় ২ হাজার শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত। শ্রেণি কক্ষ সঙ্কটসহ নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে আমাদেরকে পাঠদান করাতে হয়। এ বিষয়ে  তিনি প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিদের সুদৃষ্টি কামনা করেন।
            অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ওমর ফারুক, খলিলুর রহমান, মনির হোসেন, আওলাদ হোসেন, ওয়ালি উল্যাহ, জয়নাল আবেদীন, সুমন চন্দ, পলাশ দে, জাহানারা বেগম, মাকসুদা বেগম, শারমিন আক্তার, খাদিজা বেগম, হাফসা বেগম, রুমানা বেগম, সুমাইয়া আক্তারসহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ।
            অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার সুধীজন। অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধান অতিথি মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদকে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা স্মারক ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। এছাড়া আমন্ত্রিত অতিথিদেরকেও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর