বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯
logo
চাঁদপুরে সড়ক নিরাপত্তা ও জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক সভা-সমাবেশ (কনফারেন্স) ও র‌্যালি
ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কোনো গাড়ি চালক গাড়ি চালাতে পারবে না : অতিরিক্ত সচিব নাজমুল আহসান মজুমদার
প্রকাশ : ৩১ জানুয়ারি, ২০১৭ ১২:০১:৩৪
প্রিন্টঅ-অ+
“সাবধানে গাড়ি চালান, নিরাপদ থাকুন” এ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে চাঁদপুরে সড়ক নিরাপত্তা ও জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক সভা-সমাবেশ (কনফারেন্স) ও র‌্যালি বের হয়। গতকাল ৩০ জানুয়ারি সোমবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) চাঁদপুরের আয়োজনে শহরের হাসান আলী হাইস্কুল মাঠ থেকে র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে এসে শেষ হয়। পেশাজীবী মোটরযান চালকদের সড়ক নিরাপত্তা সচেতনতা বিষয়ক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত সচিব ও ঢাকা বিআরটিএ পরিচালক (প্রশাসন) নাজমুল আহসান মজুমদার। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, চাঁদপুরে সড়ক নিরাপদ রাখা যায়, সে সম্পর্কে আজকের এ আলোচনা সভা। স্থানীয় সমস্যা কী, তা কিভাবে সমাধান করা যায়; সে বিষয়ে কথা বলা। 
তিনি আরো বলেন, মা ইলিশ ও জাটকা নিধন বন্ধ করার যে প্রাচুর্য সৃষ্টি হয়েছে তা নিয়েই ঢাকায় ব্র্যান্ডিং অনুষ্ঠান হয়েছে। তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার। চাঁদপুর জেলার জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর ম-ল চাঁদপুরে আসার পর এখানে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। বর্তমান জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার দু’জনেই চাঁদপুরের সফল কর্মকর্তা। আমরা যারা সিভিল ডিফেন্সে চাকুরী করি তার মধ্যে দু’টি পদ অনেকে হতে পারেন না। তা হলো সচিব ও জেলা প্রশাসক। তিনি আরো বলেন, জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর ম-লের যোগ্যতা ও দেশ প্রেম আছে বলেই চাঁদপুরে উন্নয়ন কর্মকা- করতে পারছেন। অনেকে চেষ্টা করলেও করতে পারে না। জেলা প্রশাসক যদি উদ্যোগ গ্রহণ করেন তাহলে চাঁদপুরের সড়ক নিরাপদ উন্নয়ন করতে পারবে। চালকদের প্রশিক্ষণ দিয়ে যদি সৃষ্টি করা হয় তাহলে সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করা যাবে। আইন প্রয়োগ করে তা রোধ করা যাবে না। চালকদেরকে জেল জরিমানা করা যায়। কিন্তু তারা ভুক্তভোগী। এতে করে তাদের পরিবার নিঃশেষ হয়ে যায়। সড়কে গাড়ি চালাতে গিয়ে চালকের ভুল ত্রুটি হতে পারে। সড়কের ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কোনো চালক যদি গাড়ি চালায় তাহলে দুর্ঘটনা ঘটবে। তাই ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া চাঁদপুরে কোনো চালক গাড়ি চালাতে পারবে না। আমি চাঁদপুরে ৮২-৮৩ সালে চাকুরী করেছি। তখনকার চাঁদপুর আর এখনকার চাঁদপুর অনেক পরিবর্তন। অনুমোদনবিহীন কোনো গাড়ি যাতে চাঁদপুরে না চলতে পারে সেদিকে জেলা প্রশাসক দৃষ্টি রাখবেন। ২০১০ সালে ১৫ লাখ গাড়ির লাইসেন্স ছিলো। ২০১৬ সালে তা দাঁড়িয়েছে ২৯ লাখে। বর্তমান সরকার সড়ক নিরাপদ রাখতে ২-৪ লাইনের রাস্তা সৃষ্টি করেছে। ২০০৮ সালে সারা বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনা হয়েছিল ৪ হাজার ৪শ’ ২৭টি। এতে নিহত হয়েছিল ৩ হাজার ৭শ’ ৬৫ জন। ২০১৬ সালে সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনা হয়েছে ২ হাজার ৩শ’ ৬৬টি। নিহত হয়েছিল ১ হাজার ৯শ’ ৮২ জন। যা ৮ বছর আগের তুলনায় অনেক কম। তা সম্ভব হয়েছে চালকদের সচেতনা বৃদ্ধির কারণে। বর্তমান সরকার রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসার পর ২০১০ সাল থেকে ডিজিটাল ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্যক্রম চালু করেছে। এভাবে যদি উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকে তাহলে সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করা যাবে। 
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন বলেন, বর্তমানে পত্রিকা ও টিভি খুললে দেখা যায়, সড়ক দুর্ঘটনায় অনেকে মারা যাচ্ছে। সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করতে হবে। মানুষ ঘর থেকে বের হয়ে আসছে। ৪০ ভাগ ঘরের বাইরে থাকে। আর ৬০ ভাগ ঘরের ভিতরে রয়েছে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সুখী সমৃদ্ধশালী দেশ গঠনে কাজ করে আসছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করছে। এভাবে দেশ চলতে থাকলে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আমরা উন্নত দেশে পৌঁছতে পারবো। যে জাতি যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছে সে জাতি সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। বর্তমান সরকার শিক্ষা-দীক্ষা ব্যাপক জোর দিয়েছে। আমরা ভারতের দিক থেকে অনেক অগ্রগামী রয়েছি। আজকে আমরা যে সভা করছি তাতে সড়ক দূর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব হবে মালিক ও শ্রমিকের ঐক্যের মাধ্যমে। চাঁদপুর সেই শহর যেই শহরের গুরু দায়িত্বে রয়েছি আমি। এখানে জানজট হলে সকল দায়-দায়িত্ব আমাকে নিতে হবে। এখানে প্রত্যেক উপজেলার মানুষ পদচারনা করে। সিএনজি-স্কুটার বেশি চলার কারণে রাস্তা ঘাট নষ্ট হচ্ছে। এক সময় চাঁদপুর পৌর এলাকায় রিক্সা চলাচল করত। তখন পৌরসভা থেকে ৫ হাজার রিক্সার লাইসেন্স দেয়া হয়েছিল। আমরা তা কমিয়ে ২ হাজার করেছি। আর সেই স্থান দখল করে নিয়েছে ব্যাটারি চালিত অটোবাইক। তার কারণ হলো স্বল্প পয়সায় শহরবাসী চলাচল করতে পারছে। আগামীতে আমরা গাড়ীর সংখ্যা আরো কমিয়ে দিব।
জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর ম-লের সভাপতিত্বে ও জেলা কালচারাল অফিসার আবু সালেহ মোঃ আব্দুল্লাহর পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান, চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিআরটিএ উপ-পরিচালক (ইঞ্জিঃ) মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, চাঁদপুর চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি সুভাষ চন্দ্র রায়, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সভাপতি শরীফ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক জিএম শাহীন, জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ মমিন মিয়া, জেলা সড়ক পরিবহনের শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আনোয়ার হোসেন মুন্সী, জেলা ট্রাক ও ট্যাংক লরি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল কালাম মন্টু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর বিআরটিএ সহকারী পরিচালক (ইঞ্জিঃ) শেখ মোঃ ইমরান। শুরুতে কোরআন তেলোওয়াত করেন হাফেজ মোঃ মনির হোসাইন ও গীতা পাঠ করেন সাংবাদিক লক্ষ্মণ চন্দ্র সূত্রধর।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর