বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯
logo
চাঁদপুর ই-হক কোচিং সেন্টারের কান্ড
শিক্ষার্থীদের জোর করে মন্দিরে নিয়ে যাওয়ায় অভিভাবকরা ক্ষুব্ধ
প্রকাশ : ২১ ডিসেম্বর, ২০১৬ ১৫:৩১:২৩
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর: চাঁদপুর শহরের একটি ধর্মীয় মন্দিরের অনুষ্ঠানে ই-হক কোচিং সেন্টারের শিক্ষার্থীদের জোরপূর্বক অংশ্রগ্রহণে বাধ্য করায় তাদের অভিভাবকরা অসন্তোস প্রকাশ করেছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের মিথ্যা কথা বলে কোচিং বন্ধ রেখে আড়াই ঘন্টাব্যাপী ওই অনুষ্ঠানে বসিয়ে রাখায় তারা বিরুপ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছে। শুধু তাই নয় এ বিষয়ে উপস্থিত সাংবাদিকরা ওই কোচিং সেন্টারের পরিচালক মৃণাল কান্তি দাশের কাছে জানতে চাইলে তিনি এবং তার ভাই মৃদুল কান্তি দাশ সংবাদ কর্মীদের সাথে অশোভন আচরণ করেন এবং বিভিন্নভাবে হুমকি প্রদান করেন। ২০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার চাঁদপুর শহরের পুরাণ আদালত পাড়ার অযাচক আশ্রমে এ ঘটনা ঘটে। আয়োজন স্থানে উপস্থিত থেকে দেখা যায়, গতকাল মঙ্গলবার ঐ মন্দিরে ভারতের চিকিৎসক ডা. শ্রী অশোক কুমার মুখোপধ্যায়কে সংবর্ধনা প্রদান ও ধর্মীয় আলোচনার আয়োজন করা হয়। এ সময় দেখা যায়, অনুষ্ঠানস্থলের দর্শক সাড়িতে দুই তৃতীয়াংশ ছিলো বোরকাপরা নারী ও ছেলে শিক্ষার্থী। কিছুক্ষণ পর পর ওই শিক্ষার্থীদের কোচিং শিক্ষক মৃণাল দাশ এসে তাদের ‘আর অল্প সময় থাকতে হবে’ বলে সান্তনা দিতে দেখা যায়। এসময় মন্দিরের বাইরে গেটে বেশ ক’জন অভিভাবককে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে তাদের ভেতরে আসতে বলা হলে তারা অনিহা প্রকাশ করে বলেন, ভেতরে তাদের মেয়ে আছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অবিভাবক বলেন, এটি একটি মন্দির, অথচ আমাদের মুসলিম মেয়েদের কোচিং সেন্টার থেকে এখানে আনা হয়েছে’। অথচ তেমন কোনো হিন্দু মেয়েকে এ অনুষ্ঠানে দেখা যাচ্ছে না। ক্ষোভ প্রকাশ করে আরেক অভিভাবক বলেন, ‘আমরা মেয়েদের কোচিং পড়াতে ই-হক সেন্টারে দিয়েছি, কিন্তু তাদের জোর করে ভিন্ন ধর্মের অনুষ্ঠানে নেয়ার অনুমতি দেইনি। কেউ যদি স্বেচ্ছায় কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যায় তাতে কোনো আপত্তি নেই। আমাদের ওয়াজ মাহফিলে ভিন্ন ধর্মের কারো সন্তানকে জোর করে আনা হলে তারাও তো কষ্ট পেতেন।
    শিক্ষার্থীদের সাথে কথা হলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা বলেন, মৃণাল স্যার আমাদের মিথ্যা কথা বলে এখানে এনেছে। আমরা যদি জানতাম যে এটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান তবে আসতাম না।
    এ বিষয়ে ই-হক কোচিং সেন্টারের পরিচালক মৃণাল দাশের কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রথমেই ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বিভিন্নভাবে এ সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য হুমকি দিয়ে বলেন, ‘এই সংবাদ প্রকাশ করলে (আপনার) সমস্যা হবে’ এখন এমন করছেন, কিছুক্ষণ পরে আবার স্যার স্যার বলে কুল পাবেন না,। ‘শিক্ষার্থীরা নিজেদের ইচ্ছায় এসেছে কিনা’ জানতে চাইলে তিনি বলেন, আজকে কোচিং বন্ধ, ওরা সবাই এসএসসি পরিক্ষার্থী, একজন ভালো লোক এখানে বক্তব্য রাখবে তাই মেয়েদের এখানে আনা হয়েছে।
    এদিকে অনুষ্ঠানের শেষে শিক্ষার্থীরা বেড়িয়ে যাওয়ার সময় তাদের শিক্ষক মৃণাল ও তার ভাই মৃদুল শিক্ষার্থীদের ভয় দেখিয়ে বলেন, ‘‘তোমরা বলবে যে নিজেদের ইচ্ছেতেই এখানে এসেছো’’।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর