শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০
logo
পতিতাবৃত্তির অভিযোগে আশিকাটির হাফানিয়ায় ৬ জনের কারাদন্ড
প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৬ ১২:৫৪:২০
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব
চাঁদপুর: চাঁদপুরের আশিকাটি ইউনিয়নের হাফানিয়া গ্রামে পতিতাবৃত্তির অভিযোগে চাঁদপুরে দালালসহ ৬ পতিতাকে ৩ মাসের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল বিকেল ৫টায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উম্মে হাবিবা মীরা এ রায় প্রদান করেন। জানা যায়, সদর উপজেলা আশিকাটি ইউনিয়নের হাপানীয়া গ্রামের যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সাথে মিজি বাড়ির সেনাবাহিনী কর্মকর্তা শফিকুর রহমান লিটনের ঘর থেকে গত ৪ ডিসেম্বর রাত ১১টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মতলব দক্ষিণ উপজেলার রসুলপুর গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে দেহ ব্যবসার দালাল মোঃ সুলতান হোসেন (৬০), সুলতানের স্ত্রী হনুফা বেগম (৫৫), ফরিদগঞ্জ উপজেলার বৈচাতলী গ্রামের হাজী আঃ মান্নানের ছেলে মোঃ রাব্বানী (৩০), রায়পুরের বাঙলাকান্দী গ্রামের ওহিদ বেপারীর ছেলে মোঃ ফয়েজ বেপারী (৩০), আবুল খানের মেয়ে রোকসানা (৩০) ও লাভলী (২৮)-কে চাঁদপুর মডেল থানার এসআই কামরুজ্জামান আটক করে। আটকের পর গতকাল সোমবার বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করেন।  
    এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন হাপানীয়া গ্রামের লিটন মিজির বসত বাড়িতে দীর্ঘদিন যাবৎ দেহ ব্যবসাসহ নানা অপকর্ম চলছে। আর তাদেরকে মিজি বাড়ির জনৈক আলহাজ¦ মিজানুর রহমান মিজি ওরপে চৌধুরী (৭০)ও তার ছেলে জুয়েল মিজি (৩০) নামে দুই জনে আশ্রয় দিয়ে আসছে। ঘটনার দিন রাত উল্লে¬খিত স্থানে অনৈতিক কাজের সত্যতা দেখে এলাকাবাসী পুলিশ সুপার শামছুন্নাহারকে অবগত করলে তিনি দ্রুত ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠায়। পুলিশ এসে ঘটনার সত্যতা পেয়ে তাদেরকে আটক করেন। এদের মধ্যে দালাল সুলতান হোসেন ও তার স্ত্রী হনুফা বেগমকে ১৯৬০ সনের ২৯৪ ধারা অনুসারে তিন মাসের সাজা প্রদান করে এবং মোঃ রাব্বানী, মোঃ ফয়েজ বেপারী, রোকসানা ও লাভলীকে ১ মাসের সাজা প্রদান করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উম্মে হাবিবা মীরা। বাবুরহাটসহ আশপাশের দেহ ব্যবসায়ীদের দালালদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করার জন্য এলাকাবাসী পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর