শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯
logo
চান্দ্রায় মৎস্য আড়ত ভাংচুর ও টাকা লুট ॥ আহত ৪
প্রকাশ : ২১ নভেম্বর, ২০১৬ ০৯:১৬:০৬
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক
চাঁদপুর: চাঁদপুর সদর উপজেলার চান্দ্রা ইউনিয়নের চান্দ্রা বাজারের পাইকারী মৎস্য আড়তে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হামলায় ৪ জন আহত, মৎস্য আড়ত ভাংচুর ও নগদ অর্থ লুট হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ৬টায়। ঘটনার পর চাঁদপুর মডেল থানার এসআই মাহবুর আলম ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান খান জাহান আলী কালু পাটওয়ারী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। ঘটনার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দেয়ার আশ^াস দেন।
    ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, গত ১৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় চান্দ্রা বাজারের পাইকারী মাছ বিক্রয় কেন্দ্র সোনালী মৎস্য আড়ৎ পরিচালক সিরাজ সর্দারের সাথে পাশর্^বর্তী আড়তদার জসিম সর্দারের কাছ থেকে কয়েকটি মাছ কেনার জন্য অনুরোধ জানান। জসিম সর্দার মাছ বিক্রি করবে না বলে সিরাজ সর্দারের সাথে খারাপ আচরণ করে। এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক হয়। পরে ঐদিন সকাল ৮টায় জসিম সর্দার লোকজন নিয়ে সিরাজ সর্দার ও সোনালী মৎস্য আড়তে হামলা চালায়। হামলায় সিরাজ সর্দার ও মনা সর্দার গুরুতর আহত হয়। আশপাশের ব্যবসায়ীরা আহতদের উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে। আহতরা বর্তমানে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ বিষয়ে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান খান জাহান আলী কালু পাটওয়ারী আহতদের মামলা না করার অনুরোধ জানান। বিষয়টি বসে সমাধান করবেন বলে আশ^াস দেন। দু’দিন যেতে না যেতেই গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ৬টায় জসিম সর্দার, তার বাবা মমিন সর্দার, রিয়াদ, মিলন, মানিক, রাসেল, আল আমিন, হাবিব, মোতালেবসহ ২০/৩০ জনের একদল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে সোনালী মৎস্য আড়তে হামলা চালায়। হামলায় আহমেদ সর্দার ও আলী আহমেদ সর্দার গুরুতর আহত হয়। হামলাকারীরা সোনালী মৎস্য আড়তে খুলনা থেকে আসা মাছ বিক্রির দু’ ক্যাশে থাকা ৪ লাখ ২৫ হাজার টাকা এবং পাশর্^বর্তী মায়ের দোয়া আড়ত ভাংচুর করে ২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা নিয়ে যায়। আহতরা বর্তমানে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ বিষয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এ বিষয়ে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান খান জাহান আলী কালু পাটওয়ারী বলেন, বৃহস্পতিবার ঘটনা জানতে পেরে আমি সমাধান করবো বলে মামলা না করার জন্যে বলি। আমি ঐদিন বলেছিলাম রোগী আগে সুস্থ হোক তারপর বসা যাবে। কিন্তু আমার কথা উপেক্ষা করে তারা আবারো হামলা করেছে। এদের আর ছাড় দেয়া হবে না। জসিম সর্দারের বিরুদ্ধে চান্দ্রায় পেট্রোল বোমা বিস্ফোরণের মামলাসহ মাদক মামলাও রয়েছে।
স্থানীয়রা জানায়, জসিম সর্দার চান্দ্রা ইউনিয়নের যুব সমাজ মাদকে আসক্ত করে ধ্বংস করে দিচ্ছে। তাকে বেশ কিছুদিন আগে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ মাদক বিক্রির অভিযোগে ধরে নিয়ে যায়। সেখান থেকে এসে আবারো মাদক বিক্রি শুরু করেছে।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর