রোববার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯
logo
দ্রব্যমূল্য সংক্রান্ত ট্রাক্সফোর্স, ভোক্ত অধিকার ও জ্বালানি তেল মনিটরিং কমিটির সভায় জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডল
আইসিটিতে সারাদেশের জেলা প্রশাসকদের মধ্যে আমি শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছি
প্রকাশ : ২১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৩:২৮:৩৭
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে দ্রব্যমূল্য সংক্রান্ত ট্রাক্সফোর্স, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কমিটি ও জ্বালানি তেল মনিটরিং কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত হয়।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাসুদ আলমের পরিচালনায় সভাপতির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সবুর মন্ডল। বক্তব্যে তিনি বলেন, সারা দেশের মধ্যে চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে আইসিটির কারণে। তিনি বলেন, ভূমি ব্যবস্থাপনায় অটোমেনিশন করেছি পুরো জেলায়। সরকারি কোন দপ্তর চাঁদপুর জেলায় কাগজে কলমে কাজ করা হয়না। সব কিছুই করা হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে অটোমেনিশনের মাধ্যমে এখন ভূমি খারিজ করা হচ্ছে। আমি চাঁদপুরে যোগদানের পর ২০১৫ সালের আগস্ট মাস থেকে এসব কাজ শুরু করা হয়। ৬ মাসের মধ্যেই উপজেলা প্রতিটি সরকারি দপ্তর এই তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে। স্কাইপের মাধ্যমে চাঁদপুরে প্রতিটি জেলার স্বাস্থ্য সেবা দেয়া হচ্ছে। যা বাংলাদেশের অন্যকোন জেলাতে নেই। ইতিমধ্যে অনলাইনের মাধ্যমে চাঁদপুর জেলার ৮টি উপজেরার প্রায় ৭ হাজার মানুষ স্বাস্থ্য সেবা নিয়েছে। আর এর কার্যক্রম শুরু করা হয় শাহরাস্তি উপজেলা থেকে। সেবা সহজি করণে অনলাইনের মাধ্যমে জেলার ২৪ লাখ মানুষ ৬টি সেবা গ্রহণ করতে পারছে। আমরা চলতি বছরের মধ্যে সরকারি সকল দপ্তরের কার্যক্রম ও তথ্যাদি অনলাইনে দেয়ার ঘোষণা করেছি। আমরা চাই সুসাশন করে পুরো জেলার সরকারি সকল দপ্তরের সাধারণ মানুষ সেবা অনলাইনে পাবে। আইসিটির ক্ষেত্রে চাঁদপুর জেলায় সহসায় বিপ্লব ঘটতে যাচ্ছে। যার স্বাক্ষী চাঁদপুরের বিদ্যালয়গুলোতে ওয়াইফাই চালু করা হয়েছে। আমরা চাঁদপুর জেলার সকল কিছুতেই সিসি টিভির ব্যবহারের ঘোষণা দিয়েছিলাম। তা বাস্তবায়ন হয়েছে। সাংবাদিকরা যদি অনুসন্ধানী সংবাদ পরিবেশন করে তাহলে যেসব দপ্তরে কার্যকর করা হচ্ছে না তারা তা করতে বাধ্য হবে। তিনি আরো বলেন, ইলিশের জন্য আমাদের প্যাকেজ রয়েছে। ইলিশকে ব্র্যান্ডিং করা হয়েছে। আমরা চতুরঙ্গের আয়োজিত ইলিশ উৎসব এর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছি। চাঁদপুর জেলায় যা করা হয়েছে এবং যার জন্য চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক সারা দেশের প্রথম হয়েছে এর ক্রেডিট আমার নয়। সব ক্রেডিট সরকারি স্ব স্ব দপ্তরের। তিনি আরো বলেন, বিআরটিএ কর্মকর্তাদের ডেকে নদীর পাড় থেকে ওয়েল্ডিং কারখানাগুলো সরাতে হবে। তাহলে সাধারণ মানুষ নির্বিঘেœ নদীর পাড় দিয়ে হাটাচলা করতে পারবে। আমরা জনকল্যাণে প্রশাসন রয়েছে। আমরা সবকিছু করতে প্রস্তুব। আর সেই জন্য আপনাদের সকলের প্রয়োজন। পেট্রোল পাম্প থেকে এজেন্টরা তেল ক্রয় করলে সাথে সাথে ক্যাশ মেমো দিতে হবে। তা না হলে সেই তেলকে আমরা অবৈধ বলে গণ্য করবো। যেসব বেকারি মালিক নিজেদের ইচ্ছেমতো ফুড প্রোডাক্টের মূল্য বৃদ্ধি করলে তা ক্ষতিয়ে দেখার জন্য জেলা মার্কেটিং অফিসারকে নির্দেশ দেয়া হয়।
    আরো বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার উপপরিচালক ওহিদুজ্জামান, এন.ডি.সি কাজী মহসিন উজ্জল, প্রেসক্লাব সভাপতি বিএম হান্নান, সাধারণ সম্পাদক সোহেল রুশদি, জেলা ক্যাব সভাপতি জীবন কানাই চক্তবর্তী, কোস্টগার্ড স্টেশন কমান্ডার সাব (লেঃ) মোঃ আতাহার আলী, মার্কেটিং অফিসার এনএম রেজাউল করিম, প্রমুখ। আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা সফিকুর রহমান, তথ্য অফিসার নুরুল হক, ডিবি অফিসার ইনচার্জ মোস্তফা কামাল, কৃষি সম্প্রসারনের অফিসা উপ সহকারী নরেশ চন্দ্র দাস, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অফিস সহকারী পরিচালক দেবাশীস রায়, চেম্বারের পরিচালক সালাউদ্দিন মোঃ বাবর প্রমুখ।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর