শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০
logo
চাঁদপুর শহরের গুয়াখোলায় বসত বাড়িতে ভয়াভহ অগ্নিকান্ড
প্রকাশ : ১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০৮:৪২:০২
প্রিন্টঅ-অ+
শরীফ চৌধুরী

চাঁদপুর: চাঁদপুর শহরের গুয়াখোলায় গ্যাসের চুলার নিচে থাকা  লক্ষী পুজার আতশবাজি থেকে ভয়াভহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে ফায়ার সাভিস কর্তৃপক্ষ দাবী করে অভিযোগ এনেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার রাত অনুমান ৯টায় গুয়াখোলা সুবল চন্দ্র দে এর বাড়িতে। আগুনের লেলিহান শিখা পার্শবর্তী ৫তলা বিশিস্ট বিল্ডিয়ে উপরে পর্যন্ত উঠে যায়। এলাকার শত-শত মানুষ বাসা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র গিয়ে আশ্রায় নেন। এ ঘটনায় বসত বাড়ির আসবাব পত্র মালামালসহ কমপক্ষে ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধিত হয়েছে বলে দাবী করেছেন বাড়ির মালিক সুবল চন্দ্র দে।
      চাঁদপুর শহরের নতুন বাজার ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মো: আবদুল হালিম শিকদারের নেতৃত্বে  ১০ সদস্য বিশিষ্ট টিম ও এলাকাবাসী  প্রায় ১ ঘন্টা চেস্ট চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়।  ফায়ার সাভিসের স্টেশন অফিসার মো: আবদুল হালিম শিকদার জানান, গ্যাসের চুলার বিস্ফোরনে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়। পুরো এলাকায় গ্যাসের আগুন ছড়িয়ে পড়ে। বৈদুৎতিক লাইন ও গ্যাস সংযোগ বন্ধ করার ফলে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা সম্ভব হয়েছে।
     এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শহরের কুমিল্লা রোডের ব্যবসায়ী দে স্টোরের মালিক সুবল বাবুর  গুয়াখোলার বাসার ভাড়াটিয়া পালবাজারের কাঁচামালের দোকানদার রবি চন্দ্রের বাসার গ্যাসের চুলার নিচে লক্ষী পুজার আতশবাজির গরম হওয়ার জন্য দিয়েছিল্। সে আতশবাজিতে আগুন লেগে  বিস্ফোরিত হয়ে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। আগুনের লেলিহান শিখা দেখে গুয়াখোলার শত-শত মানুষ বাসাবাড়ি রেখে রাস্তায় নেমে পড়ে। পৌর  ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাছির চোকদার  জানান, এলাকাবাসি ও ফায়ার সার্ভিসের আপ্রান চেস্টায় পার্শ¦বর্তী পুকুর থেকে পানি দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা সম্ভব হয়েছে। তা না হলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতো।
 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর