শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯
logo
ফরিদগঞ্জে স্কুল শিক্ষার্থীদের গণমনস্তাতি্বক রোগে আক্রান্ত অব্যাহত এলাকায় আতঙ্ক
প্রকাশ : ০৫ অক্টোবর, ২০১৬ ১৭:০৯:১৭
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: ফরিদগঞ্জ উপজেলার সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়নের বাসারা উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কুল শিক্ষার্থীদের গণমনস্তাতি্বক রোগে আক্রান্তের ঘটনা অব্যাহত রয়েছে। গত শনিবার ও রোববার প্রায় দেড়শত শিক্ষার্থী মাচ গণমনস্তাতি্বক রোগ বা সাইকোজনিক ইলনেস  রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর গতকাল মঙ্গলবারও বেশ কিছু শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে। এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জয়দেব কৃষ্ণ সাহা জানান, শনিবার ও রোববার দুই দিনে প্রায় দেড়শ' শিক্ষার্থী গণমনস্তাতি্বক রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর সোমবার সরকারি ছুটি থাকায় মঙ্গলবার থেকে যথারীতি ক্লাস শুরু হয়। অন্য দিনের চেয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কম ছিল । মঙ্গলবার দিনও বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আবারো অসুস্থ হয়ে পড়ে। গত দুই দিনের তুলনায় তা অনেক কম ছিল। এর মধ্যে তানিয়া আক্তার নামে নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
এদিকে গণমনস্তাতি্বক রোগে  শিক্ষার্থীদের রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় মঙ্গলবার ঢাকার মহাখালীস্থ রোগত্বত্ত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (ওঊউঈজ) থেকে ডাঃ সাদিয়ার নেতৃত্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি টিম বাসারা উচ্চ বিদ্যালয়ে ঘটনা অনুসন্ধানে আসে। এ সময় তার সাথে ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে আরএমও ওই ঘটনার জন্য গঠনকৃত মেডিকেল টিমের প্রধান ডাঃ আসাদুজ্জামান জুয়েলসহ চিকিৎসকরা উপস্থিত ছিলেন।
এ ব্যাপারে ডাঃ সাদিয়া জানান, তারা শিক্ষার্থীসহ সকলের সাথে কথা বলে ঘটনার কারণ অনুসন্ধান করার চেষ্টা করছেন। এছাড়া শিক্ষার্থীদের সচেতনতামূলক সভা করছেন। যার মাধ্যমে পরিস্থিতি থেকে উত্তোরণের চেষ্টা করছেন।
ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জাহাংগীর আলম শিপন জানান, একের পর এক শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়াকে সাইকোলজিক্যাল সমস্যা অভিহিত করে তিনি এই অবস্থাকে সধংং ঢ়ংুপযড়মবহরপ রষষহবংং রোগের লক্ষণ বলে জানান। শিশু বা টিনেজ শিক্ষার্থীদের মধ্যে কোন এক অজানা আতঙ্কের কারণে অথবা মানসিকচাপে মাচ সাইকোজেনিক রোগ দেখা দিতে পারে। আর এই রোগ বা আতঙ্ক কারো মধ্যে সৃষ্টি হলে তা দলগতভাবেই সৃষ্টি হয়।
উল্লেখ্য, বাসারা উচ্চ বিদ্যালয়ে গণমনস্তাতি্বক রোগে বিভিন্ন শ্রেণির গত শনিবার ৬০ জন এবং পরদিন রোববার আরো ৮০ জন শিক্ষার্থী আক্রান্ত হয়। এর মধ্যে স্কুল কর্তৃপক্ষ প্রথম দিন শনিবার প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর পরদিন রোববার আবারো স্কুল চলাকালীন একই ঘটনা ঘটলে চাঁদপুর সিভিল সার্জন ও ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানালে তারা জরুরি মেডিকেল টিম গঠন করে ঘটনাস্থলে প্রেরণ করেন। এদিকে এ ঘটনার পর এলাকায় কথিত জ্বীনের আসর বলে গুজব রটে যাওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর