রোববার, ০৫ জুলাই ২০২০
logo
চাঁদপুর থেকে দ্বিগুণ যাত্রী নিয়ে যাচ্ছে ঢাকা অভিমুখে ফিটনেসবিহীন লঞ্চ চলাচল
প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:৩৭:৩৯
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: চাঁদপুর-ঢাকার মধ্যে চলাচলকারী যাত্রীবাহী লঞ্চগুলো ঈদ শেষে কর্মস্থলের অভিমুখে যাওয়া যাত্রীদের জীবনের দিক বিবেচনা না করে ধারণ ক্ষমতার বাইরে ২/৩ গুণেরও বেশী যাত্রী নিয়ে চাঁদপুর ত্যাগ করে ঢাকা অভিমুখে পাড়ি জমাচ্ছে। যাত্রীরা গন্তব্যে যাওয়ার জন্য জীবনের দিক বিবেচনা না করেই হুড়োহুড়ি করেই লঞ্চে উঠছে। গত শনিবার চাঁদপুর লঞ্চঘাটে এমন চিত্রই লক্ষ্য করা গেছে। লঞ্চে জায়গা না থাকার কারণে অনেক যাত্রীকে টার্মিনালে দাঁড়িয়ে থাকতেও দেখা যায়। চাঁদপুর নৌ-টামিনালে ঈদ উপলক্ষে ভ্রাম্যমাণ অভিযান পরিচালনার জন্য জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলামকে দায়িত্ব অর্পণ করা হলেও এ পর্যন্ত কোন লঞ্চকে অতিরিক্ত যাত্রী বহনের দায়ে জরিমানা করেননি।
    অপরদিকে যাত্রীদের অধিক চাপ থাকায় লঞ্চ মালিক কর্তৃপক্ষ এ সুযোগে, ঢাকা-চাঁদপুর, চাঁদপুর-নারায়নগঞ্জ, মতলব-নারায়নগঞ্জ-মুন্সিগঞ্জ-কাঠপট্টি নৌ-রূটে অধিকাংশ ফিটনেসবিহীন লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করছে। এছাড়া এ রূটে চলাচলকারী বহু লঞ্চকে নৌ-অধিদপ্তর ত্রুটিপূর্ণ বলে যাতায়াত নিষিদ্ধ করে দেয়। সেসব লঞ্চ ঈদ উপলক্ষে যাত্রী পারাপারের জন্য তরিগড়ি করে মেরামত ও রং করে যাতায়াতের মাধ্যমে যাত্রী পারাপার করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এ রূটে চলাচলকারী এম.ভি মিরাজ ১-২, এম.ভি রিফাত-১, এম.ভি মহারাজসহ চাঁদপুর-নারায়ণগঞ্জে যাতায়াতকারী ছোট লঞ্চ ও মতলব-ঢাকা রুটে যাতায়াতকারী অধিকাংশ লঞ্চই ত্রুটিপূর্ণ বলে সত্যতা স্বীকার করেছেন সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর পরিদর্শক মোঃ জহিরুল ইসলাম। এ অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে যেকোনো মুহূর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কাও বিরাজ করছে।
    পরিবারের সাথে পবিত্র ঈদুল আযহা উদ্যাপন শেষে কর্মমূখী মানুষ তাদের কাজে যোগ দিতে গন্তব্যস্থলে যাওয়ার জন্য গত শনিবার থেকে লঞ্চঘাটে আসতে থাকে। শরীয়তপুর জেলার চরাঞ্চাল, রায়পুর, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, ফেনী জেলাসহ আশপাশের জেলার লোকজন যাতায়াতের সহজ পথ নৌ-পথ হওয়ায় বেশীরভাগ মানুষই লঞ্চে যাতায়াত করে। এ সুযোগে লঞ্চ কর্তৃপক্ষ তাদের ইচ্ছেমত যাত্রী নিয়ে ঝুঁকিপুর্ণ যাত্রা শুরু করছে।
    হাজীগঞ্জ থেকে আসা যাত্রী জেসমিন আক্তার জানান, গতকাল রোববার অফিস খোলা, তাকে কাজে যোগ দিতে হবে। বাসেরও টিকেট পায়নি। কোন উপায় না পেয়ে লঞ্চে দাঁড়িয়ে রওয়ানা হয়েছি। যে কোনোভাবে তাকে ঢাকায় পৌঁছাতে হবে। অন্য এক যাত্রী কাপড়ের দোকানের কর্মচারী শাহজাহান জানান, সকাল থেকেই লঞ্চঘাটে ভিড়। লঞ্চ আসলেই কয়েকগুণ যাত্রী নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বেই ছেড়ে যাচ্ছে। বসার জন্য কোন আসন পাইনি। দাঁড়িয়ে রওয়ানা হয়েছি। এমভি রফ রফ-এর যাত্রী মাহমুদুল হাসান ও সুমন জানায়, লঞ্চের ২য় ও ৩য় তলায় কোন জায়গা নেই। তাই ছাদে দাঁড়িয়ে রওয়ানা হয়েছি। কারণ, আগামী সোমবার তাদেরকে কাজে যোগ দিতে হবে। প্রথম শ্রেণীর যাত্রী শিল্পী বেগম মুঠোফোনে জানান, লঞ্চে হাজার হাজার লোক দেখে মনে হচ্ছ, লঞ্চ ডুবে যাচ্ছে। আমার জন্য একটু দোয়া করবেন। আল্লাহকে ডাকছি আল্লাহ যদি ঠিক মত ঢাকায় নিয়ে পৌঁছায়।
    লঞ্চ মালিক প্রতিনিধি বিপ্লব সরকার জানায়, ঈদের পরে তেমন ভিড় ছিলো না। গতকাল হঠাৎ যাত্রী সংখ্যা বেড়ে গেছে। যাত্রীদের না উঠার জন্য নিষেধ করলেও তারা জোর পূর্বক লঞ্চে উঠছে। এ কারণে নির্দিষ্ট যাত্রীর চাইতে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে লঞ্চগুলো ছেড়ে যাচ্ছে। চাঁদপুর বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে লঞ্চ যেন না ছাড়ে সেজন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত। সকাল থেকেই লঞ্চঘাটে পুলিশ, কোস্টগার্ডসহ সকলেই কাজ করে যাচ্ছে। অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে অনেক সময় যাত্রীদের নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়ে উঠছে না।
    এ ব্যাপারে সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের পরিবহন পরিদর্শক মোঃ জহিরুল ইসলাম বলেন, জনবলের সংকটের কারণে বিভিন্ন ত্রুটিপূর্ণ (ফিটনেস বিহীন) যানবাহন ঠিকমতো পরিদর্শন করা যাচ্ছে না। যার ফলে এ রুটে ফিটনেসবিহীন ছোট বড় নৌ-যান যাতায়াতে নিয়োজিত রয়েছে।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর