বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯
logo
জেলা বেকারী মালিক সমিতির বিশেষ সাধারণ সভায় কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মোঃ আঃ হান্নান মিয়া
আমরা সবাই চেষ্টা করবো ভালো ও মানসম্মত খাবার তৈরি করার
প্রকাশ : ০৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৩:০২:০৮
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: চাঁদপুর জেলা কন্ফেকশনারী ও বেকারী মালিক সমিতির বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল ৬ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকাল ১১টায় চাঁদপুর প্রেসক্লাবের দ্বিতীয় তলায় এলিট চাইনিজ এন্ড রেস্টুরেন্টে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে কন্ফেকশনারী ও বেকারী মালিক সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান উপদেষ্টা মোঃ আঃ হান্নান মিয়া।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, আমরা যারা এ ব্যবসার সাথে জড়িত আছেন তাদের কাছে অনুরোধ থাকবে, আপনারা সৎভাবে ব্যবসা করবেন। আল্লাহ’র আইন মেনে ব্যবসা করবেন, যাতে সাধারণ মানুষকে ঠকানো না হয়। আর এখোনো যারা অমানসম্মত খাবার তৈরী করে আসছেন, তাদের প্রতি অনুরোধ আসুন আমরা তা পরিহার করি। আমরা সবাই চেষ্টা করবো ভালো এবং মানসম্মত খাবার তৈরী করার জন্য।
তিনি বলেন, ভালো খাবার বেশি দামে বিক্রি করলেও ক্রেতারা সন্তুষ্ট থাকে। এতে নিজেও লাভবান হবেন এবং ক্রেতারাও লাভবান হবে। ব্যাবসা মানেই লাভ-লোকসান, তবে বেশী লোকসান যাতে না হয় সেভাবেই ব্যাবসা পরিচালনা করবেন।
তিনি আরো বলেন, এই বর্তমান সরকারের সময়ে আমরা বেকারী মালিকরা ভালো ব্যাবসা করেছি। মানসম্মত খাবার তৈরি করে সততার সাথে ব্যবসা করলে আপনারাও একদিন গাড়ি-বাড়ির মালিক হবেন। আমরা যারা এই বেকারী ব্যবসার সাথে জড়িত তাদের সুখ-দুঃখ ভাগ করে নেয়া এবং বিপদে-আপদে ঐক্যবদ্ধ থাকার জন্যই আজকের এই আয়োজন। আমি মনে করি চাঁদপুরে সকল বেকারী মালিক ঐক্যবদ্ধ আছেন এবং আগামীতে থাকবেন।
অন্যান্য বক্তারা বলেন, যে হারে বেকারী পণ্য উৎপাদনের কাঁচামালের মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে তাতে করে ব্যবসা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। প্রতি ড্রাম তেলে প্রায় ৩ হাজার টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। শুধু তাই নয়, ময়দা, চিনি, গ্যাস ও লাড়কির দামও বেড়েছে। তার উপর সরকারকে ১৫% হারে টেক্স দিতে হচ্ছে। শ্রমিকদের সুযোগ-সুবিধা দিতে হচ্ছে। এতে করে আমরা মালিক পক্ষ কেউ ভালো নেই। শোনা যাচ্ছে ঈদের পর ময়দার দাম আরো বাড়বে। আমরা বেকারী মালিকরা যদি ঐক্যবদ্ধ হয়ে উৎপাদিত পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করে ব্যবসা করি তাহলে লোকসান কিছুটা পুশিয়ে আনতে পারবো। ঢাকার বেকারী মালিকরা যদি আমাদের সাথে ঐক্যবদ্ধ না হয়ে চাঁদপুর কিংবা কুমিল্লায় তাদের পণ্য সামগ্রী প্রবেশ করতে দেবো না। তাছাড়া যারা আমাদের কাছ থেকে পাইকারি মালামাল নিয়ে থাকে তারা আমাদেরকে কয়েন দিয়ে থাকে। ওইসব কয়েন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ নিতে চায় না। যার ফলে আমাদের কনফেকশনারীতে প্রচুর কয়েন জমা পড়ে আছে। এতে করেও আমাদের লোকসান গুণতে হচ্ছে। তা পুশিয়ে আনতে হলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ যেনো কয়েন গ্রহণ করে।
চাঁদপুর জেলা কন্ফেকশনারী ও বেকারী মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব এসএম জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক লায়ন বিএম হারুনুর রশীদের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা জেলা ব্রেড বিস্কুট প্রস্তুতকারক মালিক কল্যান সমিতির সভাপতি তারেক কামাল ইমতিয়াজ, সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মো. মজিবুর রহমান, লক্ষ্মীপুর জেলা বেকারী মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. আবুল কাশেম, সাধারণ সম্পাদক আ. রহিম বাবু। অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন, জেলা কন্ফেকশনারী ও বেকারী মালিক সমিতির সিনিয়র সহ সভাপতি আলমগীর তালুকদার, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নাছির আখন্দ, দপ্তর সম্পাদক সফিউল আলম পাটওয়ারী, অর্থ সম্পাদক নুর হোসেন ঢালী, কার্যকরী সদস্য বেলায়েত হোসেন, মনসুর আহমেদ, সমিতির ম্যানাজার তপন পাল, ফরিদগঞ্জ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন, শাহরাস্তি উপজেলার সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম। এসময় জেলা বেকারী মালিক সমিতি ও উপজেলা সমিতির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর