শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০
logo
চাঁদপুর পুলিশ লাইনসএ মাদক দ্রব্যের কুফল ও প্রতিকার বিষয়ে জেলা পর্যায়ে চূড়ান্ত রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এবং জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশ
যে যতবড় নেতাই হউক না কেন, তাকে ছাড় দেয়া হবে না ........ মায়া চৌধুরী
প্রকাশ : ২৯ আগস্ট, ২০১৬ ০৯:১২:৩৮
প্রিন্টঅ-অ+
শরীফ চৌধুরী

চাঁদপুর: দূর্যোগ ব্যবস্থপনা ও ত্রানমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম এমপি বলেছেন, আওয়ামী পরিবারের কোন লোক যদি অন্যায় তদবির করে তাকে আগে ধরবেন। এবং যে অপরাধ করে তাকে ২ নম্বর আসামি করবেন। যে যতবড় নেতাই হউক না কেন, তাকে ছাড় দেয়া হবে না। কোথাও যেন বাল্য বিয়ে না হয় সে ব্যাপারে খেয়াল রাখবেন। কোথাও যদি বাল্য বিয়ে হয় তাহলে ওই স্থানের জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহি করতে হবে। আসন্ন কোরবানীর ঈদে কোথাও চাঁদাবাজি হয় কিনা তা মনিটরিং করবেন। শেখ হাসিনা জঙ্গিদের বিরুদ্ধে ডাক দিয়েছেন, তাদের আর নিস্তার নেই। দেশের মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমানের মরনোত্তর বিচার হওয়া প্রয়োজন। খালেদা জিয়ারও বিচার করতে হবে। তারা দেশের সাথে দেশের মানুষের সাথে বেইমানী করেছে। কিন্তু ষড়যন্ত্রকারীরা সফল হতে পারবে না। তিনি বলেন, চাঁদপুরের পুলিশ সুপার যে কার্যক্রম হাতে নিয়েছে তা স্যালুট পাওয়ার যোগ্য। দেশের প্রতিটি জেলায় এভাবে প্রশাসন এগিয়ে আসলে বাংলাদেশ মাদকমুক্ত হবে। দেশে কোথাও মাদকাসক্ত থাকতে পারবে না। চাঁদপুর যেন একটি মাদকমুক্ত মডেল জেলা হয় সেই ব্যবস্থা আমাদের করতে হবে। আশা করি ইনশাআল্লাহ আমরা সফল হবো। রোববার বিকেলে চাঁদপুর পুলিশ লাইনসএ জেলা পুলিশের আয়োজনে মাদক দ্রব্যের কুফল ও প্রতিকার বিষয়ে জেলা পর্যায়ে চূড়ান্ত রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এবং জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
           মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বাঘ কামড় দিলে অনেক সময় ছেড়ে দেয়, কিন্তু প্রধানমন্ত্রী কখনো অন্যায়কে ছাড় দেন না। এদেশে জঙ্গী নেই এটা বলা যাবে না। কিছু জঙ্গী লালন করা হচ্ছে রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতায়। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে এদেশে জঙ্গীবাদ শুরু হয়। যারা স্বাধীনতাকে মেনে নিতে পারে নাই, তারা যখনই সুযোগ পাবে তখনই ছোবল মারবে। এটি দমন করতে না পারলে আমাদের মূল্য দিতে হবে। জঙ্গিবাদ দেশে যেভাবে সন্ত্রাসী কার্যক্রম শুরু করেছে। তাদেরকে নির্মূল করার জন্য প্রধামন্ত্রীর ডাকে আহবান দিয়ে সারা দেশে জাতীয় ঐক্যের সৃষ্টি হয়েছে। খুব কম সময়ে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে মানুষ একত্রিত হয়ে প্রতিবাদ করেছে।
    চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সবুর মন্ডল, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মেয়র নাছির উদ্দিন আহামেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, নৌ পুলিশের পুলিশ সুপার সুব্রত কুমার হালদার,জেলা শিক্ষা অফিসার মো. শফি উদ্দিন। অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি সুভাষ রায়, শাহরাস্তি পৌর সভার মেয়র হাজী আব্দুল লতিফ, হাইমচর উপজেলা চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারী, চঁদাপুর প্রেসক্লাব সভাপতি বিএম হান্নান ও জেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কাজী শাহাদাত। সবশেষে মাদক দ্রব্যের কুফল ও প্রতিকার বিষয়ে জেলা পর্যায়ে চূড়ান্ত রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ক, খ, ও গ গ্রুপের বিজয়ীদের হাতে নগদ অর্থ ও পুরস্কার তুলে দেন প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।
 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর