শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯
logo
জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪১তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মেয়র নাছির উদ্দিন আহম্মেদ
বঙ্গবন্ধু বিশাল মনের অধিকারী হওয়ায় তিনি স্কাউটসহ বেশ কিছু শিশু সংগঠন সৃষ্টির ক্ষেত্রে অবদান রেখেছেন
প্রকাশ : ১৮ আগস্ট, ২০১৬ ১৩:৩৩:৫০
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

স্টাফ রিপোর্টার
১৮ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০
প্রিন্টঅঅ-অ+
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠন চাঁদপুর অংকুর কচি-কাঁচার মেলার উদ্যোগে আয়োজিত শিশুদের ছবি অাঁকা, সুন্দর হাতের লেখা ও রচনা লিখন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে।
গত ১৫ আগস্ট সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে পুরস্কার ও সনদপত্র বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি ও পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহম্মেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন চাঁদপুর অংকুর কচি-কাঁচার মেলার পরিচালক অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন খান। সভাপতিত্ব করেন চাঁদপুর অংকুর কচি-কাঁচার মেলার কোষাধ্যক্ষ আলহাজ্ব ওচমান গণি পাটোয়ারী। অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে ১ মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়।
এ সময় বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর অংকুর কচি-কাঁচার মেলার সংগঠক শহীদ পাটোয়ারী। মেলার আহ্বায়িকা তাসমিয়া তাসমিন তানির উপস্থাপনায় প্রধান অতিথি মেয়র নাছির উদ্দিন আহম্মেদ তাঁর বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুদের খুবই ভালোবাসতেন। সেজন্যে তিনি এদেশে স্বাধীনতার পর পরই শিশু একাডেমী গঠন করে শিশুদের শারীরিক, মানসিক ও সাংস্কৃতিক বিকাশের ক্ষেত্র তৈরি করে দেন। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশাল মনের অধিকারী হওয়ায় তিনি স্কাউট আন্দোলনসহ বেশ কিছু শিশু সংগঠন সৃষ্টির ক্ষেত্রে অবদান রেখেছেন। কচি-কাঁচার মেলা একটি প্রাচীন শিশু সংগঠন। যার প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন রোকনুজ্জামান খান দাদা ভাই। তার সহধর্মিণী ছিলেন চাঁদপুরের কৃতী সন্তান মরহুমা নূরজাহান বেগম। এ সংগঠনের সাথে অনেক খ্যাতিমান ব্যক্তি জড়িয়ে আছেন। আমি বহু পূর্ব থেকেই এ সংগঠনের কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত আছি। তিনি বলেন, চাঁদপুরে অংকুর কচি-কাঁচার মেলার যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। বিশেষ করে শিশুদের নিয়ে এ সংগঠনটি অনেক সমাজহিতকর কাজ করেছে এবং করছে। তিনি আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশু সুলভ ছিলেন বলেই তাঁর সময়কালে তিনি শিশু সংগঠনের পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন। তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাও এ সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি নিজে শিশুদের জন্যে কাজ করে যাচ্ছেন। কারণ, শিশুরাই হচ্ছে আগামী দিনের পথপ্রদর্শক এবং কর্ণধার। এরাই একদিন এ দেশকে নেতৃত্ব দেবেন। আসুন আমরা সবাই মিলে এ সকল শিশু সংগঠনের পৃষ্ঠপোষকতা এবং সহযোগিতায় এগিয়ে আসি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর অংকুর কচি-কাঁচার মেলার প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, চাঁদপুর জেলা শাখার উপদেষ্টা সদস্য সরদার আব্দুর রশিদ, চাঁদপুর অংকুর কচি-কাঁচার মেলার যুগ্ম সংগঠক আবুল কাশেম সায়মন ও সাথী ভাই মোহাম্মদ ওমর ফারুক।

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর