বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০
logo
নানান সমস্যায় জর্জরিত কচুয়ার হাতিরবন্দ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ॥ পাঠদান ব্যাহত
একটি একাডেমিক ভবনই বদলে দিতে পারে বিদ্যালয়ের পুরো চিত্র
প্রকাশ : ১০ আগস্ট, ২০১৬ ১২:১৩:৪৭
প্রিন্টঅ-অ+
চাঁদপুর ওয়েব ডেস্ক

চাঁদপুর: শিক্ষক সঙ্কট, একাডেমিক ভবন, শ্রেণী কক্ষ, বিদ্যুৎ, আসবাবপত্র, শৌচাগার ও আসেনিকমুক্ত টিউবওয়েলসহ নানান সমস্যায় জর্জরিত কচুয়া উপজেলার ১৬৪নং হাতিরবন্দ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বছরের পর বছর এসব হাজারো সমস্যার বোঝা মাথায় নিয়ে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। যেকোন সময় বিদ্যালয়টি পুকুরে ভেঙ্গে পরে কিংবা ধ্বসে পড়ে প্রাণহানীসহ বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশঙ্কা করছে সচেতন এলাকাবাসী।
    সরেজমিনে জানা গেছে, ১৯৯৫ সালে তৎকালীন সময়ে বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী কদম আলী গং এলাকার শিক্ষা বিস্তারের চাহিদা মেটাতে অজোপাড়া গাঁয়ে এ বিদ্যালয়টি স্থাপন করেন। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার পর থেকে পঞ্চম শ্রেণীর সমাপনি ও অন্যান্য শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা সন্তোষজনক ফলাফল উপহার দিয়ে আসছে। বিদ্যালয়ে প্রায় ২শতাধিক শিক্ষার্থী হয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ মোট ৪জন  শিক্ষক রয়েছে।
    বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মোঃ আলমগীর হোসেন জানান, বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার পর থেকে নানা মুখী সমস্যার মধ্য দিয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে। বিশেষ করে বিদ্যালয়ে একাডেমিক ভবন না থাকা, বিদ্যালয়ের সামনের পুকুরে বিদ্যালয়টি ভেঙ্গে যাওয়া, ফাটল সৃষ্টিসহ নানান সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট বার বার আবেদন করেও কাজে আসছেনা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোসাঃ পারভীন আক্তার জানান, আমাদের কষ্ঠের শেষ নেই। শ্রেণীকক্ষের অভাবে প্রধান শিক্ষকের অফিস কক্ষেই বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাচ্ছি। বিদ্যালয়টি ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় অনেক শিক্ষার্থী এ বিদ্যালয়ে আসতে চায়নি বলে অনেক অভিভাবক জানিয়েছে। এদিকে হাতিরবন্দ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি দ্রুত সংস্কার কিংবা একটি নতুন একাডেমিক ভবন স্থাপনের জন্য স্থানীয় সাংসদ ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে সচেতন এলাকাবাসী।
 

চাঁদপুর : স্থানীয় সংবাদ এর আরো খবর